মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল, ২০২১
জাতীয়
দলে ‘ভাড়া করা’ লোক চান না জিএম কাদের
কাগজ ডেস্ক :
Published : Monday, 28 October, 2019 at 8:50 PM
দলে ‘ভাড়া করা’ লোক চান না জিএম কাদেরজাতীয় পার্টি লেজুরবৃত্তি করলে মন্ত্রিসভায় ঠাঁই পেত এমন মন্তব্য করে দলটির চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেছেন, ‘আন্দোলন করার প্রয়োজন হলে করতে হবে। লোক দেখানো সমাবেশ, লোক ভাড়া করে সমাবেশ করলে চলবে না। লোক জড়ো করার সংগঠন চাই না। এমন লোকজন থাকবে যারা প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও পাশে থাকবে।’
সোমবার দুপুরে রাজধানীর গুলশানের ইমানুয়েলস কনভেনশন সেন্টার মিলনায়তনে জাতীয় পার্টি ঢাকা মহানগর উত্তরের প্রতিনিধি সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
জিএম কাদের বলেন, ‘দেশের প্রধান তিনটি দলের মধ্যে জাতীয় পার্টি একটি। প্রধান দলগুলো যদি জোটবদ্ধ হয় আমরা বাইরে থাকতে পারি না। তাই আমরা জোটবদ্ধ নির্বাচন করেছি। আমাদের যখন যা দরকার তাই করছি।’
‘বিগত নির্বাচনে জোট করেছি, আমরা লেজুড়বৃত্তি করছি না। লেজুড়বৃত্তি করলে মন্ত্রিসভায় ঠাঁই নিতে পারতাম। আমরা সংসদে সোচ্চার রয়েছি, শুধু ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ করিনি।’
সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সংস্কারক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তার আরেকটি প্রস্তাব রয়েছে নির্বাচনব্যবস্থার সংস্কার। বর্তমান নির্বাচনব্যবস্থা ক্রটিপূর্ণ। তার প্রস্তাব ছিল আনুপাতিক হারে নির্বাচন ও ফেডারেল সরকারব্যবস্থা। আমরা এটিকে বাস্তবায়নের জন্য উদ্যোগী হবো।’
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমি লোভ লালসা কিংবা ব্যক্তিগত চাওয়ার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নিই না। আমার কাছে অনেকে আসেন কথা বলি। কিন্তু কাজের ক্ষেত্রে তা কোনোভাবে প্রভাবিত করতে পারে না। রাজনীতিতে শূন্যতা রয়েছে। মানুষ জাতীয় পার্টির দিকে চেয়ে আছে। দল হিসেবে জাপাকে ভালোবাসে। মান্ষু চায় জাপা আরও এগিয়ে আসুক।’
‘আমাদের এখানে কোনো সিস্টেম ছিল না। কে কতদিন রয়েছে তার কোনো রেকর্ড নেই। তাই কিছুটা ভুলত্রুটি হয়েছে। তবে আমরা আশা করছি ভবিষ্যতে এমন অভিযোগ উঠবে না।’
সভায় জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, ‘পাঁচজন আওয়ামী লীগার হলে পাঁচ গ্রুপ, কিন্তু জাতীয় পার্টি মাত্র একটি গ্রুপ জিএম কাদেরের। এজন্য আমরা বেশি শক্তিশালী।’
তিনি বলেন, ‘আমাদের সমর্থন নিয়ে ক্ষমতায় এসে কেউ রাক্ষস কেউ বাঘ হয়ে গেছে। আমরা সরকারের কোনো দোষ নেব না। আমাদের কর্মীদের ওপর অত্যাচার চলছে। সময় আসুক জবাব দেওয়া হবে। আমি জানি কীভাবে জবাব দিতে হয়। প্রধানমন্ত্রী এক কথা বলেন, মন্ত্রীরা আরেক কথা বলেন, তৃণমূলের নেতা করেন অন্য রকম কর্মকা-।’
রাঙ্গা বলেন, ‘আমরা সমর্থন করেছিলাম, এজন্য আওয়ামী জাতীয় পার্টি বলা হয়। কিন্তু তারা সেই বন্ধুত্বের কোনো মর্যাদা দিচ্ছেন না। আমরা এমন বন্ধুত্ব রাখতে চাই না। যারা মানুষের টাকা মেরেছে, অত্যাচার করেছে তারা এখন জেলে যাচ্ছে। আরও অনেককে জেলে যেতে হবে। আওয়ামী লীগ যদি তাদের জেলে না নেয়, তাহলে আল্লাহর গজব নেমে আসবে।’
মহানগর উত্তর জাতীয় পার্টির সভাপতি প্রেসিডিয়াম সদস্য এসএম ফয়সল চিশতীর সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্যের মধ্যে প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা (এমপি), সালমা ইসলাম (এমপি), মিরপুর থানা জাতীয় পার্টির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম পাঠান প্রমুখ বক্তব্য দেন।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft