বুধবার, ২৮ অক্টোবর, ২০২০
অর্থকড়ি
ভোজ্যতেলের দাম বৃদ্ধি
কারণ অনুসন্ধানে নেমেছে সরকার
কাগজ ডেস্ক :
Published : Saturday, 30 November, 2019 at 6:18 AM
কারণ অনুসন্ধানে নেমেছে সরকারভোজ্যতেলের দাম বৃদ্ধির দায় নিচ্ছে না কেউই। কোম্পানিগুলো বলছে তারা দাম বাড়ায়নি। অথচ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে এই তেল। কারা কীভাবে বাড়িয়েছে এই তেলের দাম সেই কারণ অনুসন্ধানে নেমেছে সরকার।
বোতলের গায়ে লেখা দামেই তেল সরবরাহ করা হচ্ছে। তেল সরবরাহও স্বাভাবিক রয়েছে। চাহিদায়ও পরিবর্তন ঘটেনি। তারপরও বেড়েছে ভোজ্যতেলের দাম। তবে পাইকারি ব্যবসায়ীদের একটি সূত্র জানিয়েছে, কোম্পানি বোতলের গায়ের দামেই তেল বিক্রি করছে সত্য। তবে বিক্রির ক্ষেত্রে মূল্যে যে ‘ছাড়’ ছিল তা বাতিল করেছে। এই ‘ছাড়’ তুলে  নেয়ায় দাম বেড়েছে।
এদিকে, সরকার ও ভোজ্যতেল কোম্পানির প্রতিনিধিরা বলছেন, তেলের দাম বাড়ার কোনো কারণ নেই। আমদানি নির্ভর ভোজ্যতেলের এলসি প্রক্রিয়াও স্বাভাবিক বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। তাহলে কীভাবে, কারা বাড়িয়েছে এই পণ্যটির দাম সে কারণ অনুসন্ধানে নেমেছে সরকার। কাজ শুরু করেছে বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশন। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশন সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।
সূত্র জানিয়েছে, বাজারে সব ধরনের সয়াবিনের দাম বেড়েছে লিটারে তিন থেকে পাঁচ টাকা। তবে খোলা সয়াবিনের দাম বেড়েছে বেশি। স্থানভেদে প্রতিলিটার খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা দরে, আগে যা বিক্রি হয়েছে ৭৫ থেকে ৭৮ টাকা লিটারে। একইভাবে সিটি গ্রুপের তীর ব্র্যান্ড এবং মেঘনা গ্রুপের ফ্রেশ ব্র্যান্ডের পাঁচ লিটার সয়াবিন তেলের বোতলের গায়ে দাম লেখা রয়েছে ৫শ’ টাকা। আর রূপচাঁদা সয়াবিন তেলের পাঁচ লিটারের বোতলের গায়ে দাম লেখা রয়েছে ৫শ’৩০ টাকা। বোতলের গায়ে লেখা দামের কোনো পরিবর্তন হয়নি গত কয়েক মাসে। তবে, বিক্রির ক্ষেত্রে মূল্যে ‘ছাড়’ বাতিল করা হয়েছে। এই ‘ছাড়’ বাতিল করায় বেড়েছে খোলা ও বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম।
কাওরান বাজারের কিচেন মার্কেটের একজন পাইকারি ব্যবসায়ী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ১৫ দিন আগেও দেশের সিটি ও মেঘনাসহ প্রতিটি ভোজ্যতেল পরিশোধনকারী  কোম্পানি পাঁচ লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেল পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছে ৪শ’২৫ টাকা দরে বিক্রি করেছে। পাইকারি ব্যবসায়ীরা তা খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করেছেন ৪শ’৩০ থেকে ৪শ’৩৫ টাকা দরে। পরবর্তীতে কোম্পানিগুলো তা বাড়িয়ে পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করছেন ৪শ’৫২ টাকা দরে। পাইকারি ব্যবসায়ীরা তা খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করছেন ৪শ’৬০ টাকা দরে। একইভাবে রূপচাঁদা ব্রান্ডের পাঁচ লিটার সয়াবিন তেল পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছে কোম্পানি বিক্রি করেছে ৪শ’৩৫ থেকে ৪শ’৫০ টাকা দরে। ছাড় তুলে দেয়ার কারণে এখন তা বিক্রি হচ্ছে ৪শ’৬৭ টাকা ৫০ পয়সায়। পাইকারি ব্যবসায়ীরা তা খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করছেন ৪শ’৭০ টাকা দরে। বাজারে বোতলের গায়ে কিন্তু ওই আগের দর ৫শ’ এবং ৫শ’৩০ টাকাই লেখা রয়েছে।
তিনি বলেন, বোতলের গায়ে লেখা দাম যাচাই করলে আপনি বুঝতেই পারবেন না যে,  কোম্পানি দাম বাড়িয়েছে। আসলে তো কোম্পানি প্রতি লিটারে দাম বাড়িয়েছে পাঁচ টাকার  বেশি। কোম্পানিগুলোর এই ‘ছাড়’ দেয়া এবং ‘ছাড়’ বাতিল দাম বাড়ানোর একটি চালাকি পদ্ধতি।
এদিকে, বাজারে ভোজ্যতেলের দাম বৃদ্ধির কারণ অনুসন্ধানে নেমেছে বাংলাদেশ ট্য্যারিফ কমিশন। দেশের শীর্ষস্থানীয় ভোজ্যতেল পরিশোধনারী কয়েকজন কোম্পানির কর্মকর্তার সঙ্গে বৈঠক করেছেন ট্যারিফ কমিশনের চেয়ারম্যান নূর উর রহমান। বৈঠকে ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, বোতলজাত সয়াবিনের দাম বাড়ানো হয়নি। গত কয়েক মাস বাজারে একই দাম চলছে বলে জানালেও ‘ছাড়’ প্রত্যাহারের তথ্যটি বৈঠকে উপস্থাপন করেননি ব্যবসায়ীরা। ব্যবসায়ীরা বৈঠকে জানিয়েছেন, বোতলের গায়ে লেখা দামেই বাজারে সয়াবিন  তেল সরবরাহ করা হচ্ছে।
এ প্রসঙ্গে ট্যারিফ কমিশনের চেয়ারম্যান নূর উর রহমান জানিয়েছেন, বাজারে ভোজ্যতেলের সরবরাহ, মজুত ও মূল্য পরিস্থিতি জানতে পরিশোধনকারী কোম্পানির কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছি। বৈঠকে বাজারে কী কারণে তেলের দাম বেড়েছে তা জানার চেষ্টা করছি। এ বিষয়ে সিটি গ্রুপের উপদেষ্টা অমিতাভ চক্রবর্তী জানিয়েছেন, ভোজ্যতেলের দাম বৃদ্ধির মতো  কোনো কারণ তৈরি হয়নি। আমরা দাম বাড়াইনি। বোতলে লেখা দামেই ভোজ্যতেল সরবরাহ করছি।
বাণিজ্য সচিব ডক্টর জাফর উদ্দিন জানিয়েছেন, বাজারে সরকারি বিভিন্ন সংস্থার মনিটরিং চলছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকেও কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে মনিটরিং টিম কাজ করছে। কেউ কারসাজি করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft