শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
দেড়মাস ঘুরছে না কার ও মাইক্রোবাসসহ গাড়ির চাকা
ছয় শতাধিক চালকের মানবেতর জীবন
জাহিদ আহমেদ লিটন :
Published : Monday, 20 April, 2020 at 6:23 PM
ছয় শতাধিক চালকের মানবেতর জীবনকরোনা মহাদুর্যোগে থমকে গেছে মানুষের জীবন-জীবিকা। এ পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়েছেন শ্রমজীবী খেটে খাওয়া মানুষরা। তারা কাজ করতে না পেরে বাড়িতে বসেই এক প্রকার না খেয়েই দিনাতিপাত করছেন। এ অবস্থায় মানবেতর জীবন যাপন করছে যশোরের ছয় শতাধিক প্রাইভেট কার ও মাইক্রোবাস চালক। গত প্রায় দেড়মাস যাবৎ তাদের গাড়ির চাকা ঘুরছে না। ফলে বন্ধ হয়ে গেছে তাদের রুটি-রুজির একমাত্র উৎস। প্রতিদিনি সকালে তারা স্ট্যান্ডে এসে গাড়ি র্স্টাট দিয়ে দুপুরে খালিহাতে বাড়ি ফিরে যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত কেউ তাদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়নি বলে সাধারণ চালকরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
যশোর শহর ও শহরতলীর ৫টি স্থানে প্রাইভেট কার ও মাইক্রোবাস স্ট্যান্ড রয়েছে। স্থানগুলো হলো, শহরের ঢাকারোড উপশহর বাবলাতলা, উপশহর ট্রাকস্ট্যান্ড এলাকা, পুরাতন বাস টার্মিনাল, রেলগেট রেলস্টেশন রোড ও রাজারহাট তেলপাম্প মোড়। এসব স্থান থেকেই সাধারণ মানুষ প্রাইভেট কার ও মাইক্রোবাসসহ নানা মডেলের গাড়ি ভাড়া করে বিভিন্নস্থানে যাতায়াত করে থাকে। আর এর মাধ্যমেই চলে প্রাইভেট গাড়ির মালিক ও চালকদের জীবন-জীবিকা। কিন্তু গত প্রায় দেড় মাস যাবৎ করোনা মহাদুর্যোগে এসব গাড়ির চাকা ঘুরছে না। ফলে বন্ধ হয়ে গেছে এ পেশায় জড়িতদের আয়ের সকল পথ। তারা পরিবার পরিজন নিয়ে বর্তমানে মানবেতর জীবন যাপন করছে। কেউ তাদের খোঁজ নিচ্ছে না বা সাহায্যে এগিয়ে আসছে না।
যশোর উপশহর ঢাকারোড বাবলাতলাস্থ জেলা ট্যাক্্ির, ম্যাক্্ির ও পিকআপ, মাইক্রো শ্রমিক ইউনিয়ন সূত্রে জানা যায়, এ সংগঠনে ছয় শতাধিক সদস্য রয়েছে। তারা সবাই প্রাইভেট কার ও মাইক্রোবাস চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। এ কাজের জন্য শহরের বিভিন্ন স্ট্যান্ডে চার শতাধিক প্রাইভেট গাড়ি রয়েছে। ইউনিয়নের সাবেক সড়ক বিষয়ক সম্পাদক সাহেব আলী বলেন, মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকেই তাদের ইউনিয়নের সকল সদস্য বেকার বসে রয়েছেন। সরকার ও প্রশাসনের নির্দেশে তারা গাড়ি চালনা থেকে বিরত রয়েছেন। একেবারেই জরুরি ভাড়া ছাড়া কেউ গাড়ি বের করছেন না। ফলে আয়ের একমাত্র পখ বন্ধ হওয়ায় সকল চালকরা পরিবার নিয়ে ভীষণ সমস্যায় দিন পার করছেন। এছাড়া গাড়ি ভাড়ায় চালিয়ে যে সব মালিকরা সংসার চালান তারাও সমস্যায় পড়েছেন। এ নিয়ে তাদের ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ চিন্তিত, কিন্তু সমাধানের কোন পথ খুঁজে পাচ্ছেন না। শুধুমাত্র তাকিয়ে আছেন সুদিনের অপেক্ষায়।
বাবলাতলা স্ট্যান্ডের মাইক্রোবাস চালক কাঠালতলা এলাকার আনিসুর রহমান, মোহাম্মদ টিটো ও শহিদুল ইসলাম লাভলু বলেন, গত ৯ মার্চ থেকে তাদের আয়ের সকল পথ বন্ধ হয়ে গেছে। কারণ এদিন থেকেই তাদের গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। গত প্রায় দেড়মাস যাবৎ তারা ধার-দেনা করে সংসার চালিয়েছেন। কিন্তু এসময়ে কেউ তাদের সাহায্য সহযোগিতায় এগিয়ে আসেনি, এমনকি কোন খাদ্য সহযোগিতাও তারা পাননি। তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের গাড়ির প্রয়োজন হলে তাদের ফোন দিলেই তারা ছুটে যান। টাকা নিয়ে চিন্তা করেন না। অথচ এই মহামারিতে কোন রাজনৈতিক নেতা সাহায্য দেয়া তো দূরের কথা, তাদের কোন প্রকার খোঁজ খবর নেয়নি। কর্তমানে তারা পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। তাদের বাড়িতে আগামিকাল চুলো জ্বলবে কিনা তার কোন নিশ্চিয়তা নেই। এ কারণে তারা সরকার ও যশোর প্রশাসনের সাহায্যের দাবি জানিয়েছেন।
এ বিষয়ে গাড়ির মালিক মোহাম্মদ বাবলু বলেন, গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকায় তারা নিজেরাই সমস্যায় পড়েছেন। ফলে এ দু:সময়ে চালকদের পাশে দাড়ানো তাদের কর্তব্য হলেও, এ কাজটি তারা করছে পারছে না। তারা সরকার ও প্রশাসনকে এসব অসহায় পরিবারের পাশে দাড়াতে অনুরোধ জানিয়েছেন।
বিষয়টি নিয়ে কথা হয় যশোর জেলা ট্যাক্্ির, ম্যাক্্ির ও পিকআপ, মাইক্রো শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মেহেদী হাসান আবু কালাম ও সাধারণ সম্পাদক আমিনুল হক টুকুর সাথে। তারা বলেন, ছোট সংগঠন হিসেবে তাদের ফান্ডে তেমন গচ্ছিত টাকা নেই। যা দিয়ে এই দু:সময়ে তারা শ্রমিকদের সহযোগিতা করতে পারবেন। এখন পর্যন্ত প্রশাসন বা কোন ব্যক্তি তাদের খোঁজ খবর নেয়নি ও সহযোগিতা করেনি। তারা প্রশাসনের সাথে যেগোযোগের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন, যাতে সংগঠনের সদস্যরা সাহায্য সহযোগিতা পেতে পারেন।        




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft