মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
চৌগাগার সেই জান্নাতী প্রাইভেট ক্লিনিকেই জন্ম দিলেন কণ্যা
আশিকুর রহমান শিমুল :
Published : Thursday, 14 May, 2020 at 12:42 AM
চৌগাগার সেই জান্নাতী প্রাইভেট ক্লিনিকেই জন্ম দিলেন কণ্যা যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যায়গা হলোনা চৌগাছার সেই গৃহবধূ জান্নাতীর। বেসরকারি একটি ক্লিনিকে কণ্যা সন্তান জন্ম দিলেন তিনি।
সন্তান জন্ম দেওয়ার কয়েকদিন আগেই জানা যায়, তার করোনা পজিটিভ। বুধবার দুপুরে শহরের বেসরকারি ক্লিনিক জেনেসিস হসপিটালে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক সার্জন ডাক্তার নিলুফার ইসলাম এ্যামেলি তাকে সিজার করান। ফুটফুটে কন্যা  ও মা সুস্থ আছেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
তবে, অপারেশনে থাকা চিকিৎসকসহ ছয় জনকে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে যেতে হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার দিলীপ কুমার রায়।
গর্ভবতী নারী জান্নাতী (২৮) চৌগাছা হাসপাতালের প্রসূতি ওয়ার্ডে করোনা লক্ষণ নিয়ে ভর্তি হন। সে সময় তার করোনা পরীক্ষা করার জন্যে নমুনা সংগ্রহ করেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। জান্নাতী কৌশলে হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যান। পর দিন তার নমুনা পরীক্ষায় করোনা ধরা পড়ে। পরে তাকে নিজ বাড়িতেই আইসোলেশনে রাখা হয়। তার বাড়িটি উপজেলা প্রশাসন লকডাউন ঘোষণা করে। জান্নাতীর সংস্পর্শে আসায় চৌগাছা হাসপাতালের প্রসূতি ওয়ার্ডের তিন সেবিকা করোনা আক্রান্ত হন। এছাড়াও হাসপাতালটির চার জন চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত হন। তাদের মধ্যে ডাক্তার আসিফ রায়হান, সেবিকা হাফিজা খাতুন, শিমুল আক্তার, গর্ভবতী জান্নাতী ও স্কুল ছাত্র পৌর শহরের কুঠিপাড়ার গোলাম আজমের নানী রোকেয়া বেগমসহ মোট পাঁচ জন করোনাকে জয় করেন। পর পর দুইবার তাদের নমুনা পরীক্ষায় করোনা নেগেটিভ আসায় তাদেরকে করোনামুক্ত সনদ ও ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। এরপর জান্নাতীকে সিজারিয়ান অপারেশন করতে যশোর  মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে ১০ মে আবারও তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ১২ তারিখ ফলাফল আসে তিনি করোনা আক্রান্ত। এমন নানামুখি রিপোর্ট আসায় হাসপাতালের ডাক্তাররা তাকে সেবা প্রদানে অস্বীকার করেন। এক পর্যায় ১২ মে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেন ১৩ মে তাকে সরকারি হাসপাতালেই সিজারিয়ান অপারেশন করবেন। কিন্তু রহস্যজনক কারণে ১৩ মে সকালে তাকে বেসরকারি স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠান জেনেসিস হসপিটালে নিয়ে তার সিজারিয়ান অপারেশন করা হয়। বর্তমানে শিশু ও মা সুস্থ আছেন।
ডাক্তার নিলুফার ইয়াসমিন জানান, অপারেশন টিম পারশনাল প্রটেক্টিভ (পিপিই) পরে এই অপারেশন করেছেন। এ সময় এ্যানেসথেশিয়ার দায়িত্ব পালন করেন যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ডাক্তার এমএম আনিছুর রহমান। অপরেশনের পর চিকিৎসকসহ ছয় জনকে কোয়ারেন্টিনে আসতে হয়েছে।
সিভিল সার্জন ডাক্তার শেখ আবু শাহীন জানান, জান্নাতী রোগীকে নিয়ে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ দুশ্চিন্তাই ছিলেন। স্বাস্থ্য বিভাগের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের পরামর্শ নিয়ে বুধবার সিজার করা হয়েছে। শিশুটিরও নমুনা নিয়ে পরীক্ষা করা হবে বলে তিনি জানান।
হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার দিলীপ কুমার রায় জানান, কোভিড-১৯ নভেল করোনাভাইরাস মুক্ত হওয়ার পর ফের করোনায় আক্রান্ত হন ওই গৃববধূ। স্বাস্থ্য বিভাগের তত্ত্বাবধায়নে ওই নারীর সিজারিয়ান অপারেশন করা হয়েছে। তাদের পক্ষ থেকে রোগীকে সার্বিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft