শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
যশোরে মাছ বিক্রি বন্ধ ॥ দুপক্ষের দ্বন্দ্ব-উত্তেজনা
শিমুল ভূইয়া
Published : Thursday, 14 May, 2020 at 12:52 AM
যশোরে মাছ বিক্রি বন্ধ ॥ দুপক্ষের দ্বন্দ্ব-উত্তেজনাযশোর শহরে পৌরসভা থেকে নির্ধারণ করে দেয়া ঈদগাহ মাঠে নানা সমস্যার দোহাই দিয়ে মাছ বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছে ব্যবসায়ীরা। তবে, আড়ৎদাররা তাদের ব্যবসা বন্ধ করেনি। তারা বিভিন্ন এলাকা থেকে মাছ আমদানি অব্যাহত রেখেছেন । অভিযোগ রয়েছে একই সাথে বন্ধ করে দেয়া  খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে পাওনা টাকার জন্য চাপও দিচ্ছেন। এসব বিষয় নিয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে দোকান বন্ধরাখা খুচরা ব্যবসায়ীরা। মঙ্গলবার সকালে এ নিয়ে যশোর বড়বাজারে আড়তদার ও খুচরা মাছ ব্যবসায়ীদের মধ্যে চরম উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। যা শেষ মেষ হাতাহাতির রূপ নেয়। একপর্যায় বাজার কমিটির হস্তক্ষেপে বিষয়টি মিমাংশা হয়ে যায়।
খোঁজনিয়ে জানাযায়, সকালে প্রতিদিনের মতই বিভিন্ন এলাকা থেকে আড়ৎদারদের ঘরে মাছ আসতে শুরু করে। এছাড়া শহরের বাইরের খুচরা ব্যবসায়ীরাও আসে মাছ কিনতে। বিষয়টি নিয়ে তেলে বেগুনে জলে ওঠে শহরের খুচরা মাছ ব্যবসায়ীরা। তারা আড়ৎদারদের মাছ বিক্রি না করার জন্য অনুরোধ জানান । কেউ কেউ বন্ধ করলেও  কয়েকজন আড়ৎদার তাদের কথায় ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। একপর্যায়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজও দেয় এক আড়ৎদার । পরে খুচরা ব্যবসায়ীরা একত্রিত হয়ে ওই আড়ৎদারকে খোঁজাখুজি শুরু করেন। কিন্তু তিনি সটকে পড়েন। খুচরা ব্যবসায়ীরা মাছবাজারে দীর্ঘ সময় মহড়া দিয়ে টাউনহল মাঠে যেয়ে অবস্থান নেন। বিকেল সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত তারা সেখানেই অবস্থান করছিলেন। এ বিষয়ে আড়ৎদারদের ভাষ্য, টাউনহল মাঠের মাছ ব্যবসায়ীরা ব্যবসা বন্ধ করেছে, কিন্তু অন্যরাতো ব্যবসা বন্ধ করেনি। কেউ কেউ ভ্রাম্যমান দোকানও চালাচ্ছে। ফলে তাদের যোগান দিতে হলে মাছ আনতে হচ্ছে। এ ছাড়া খুচরা ব্যবসায়ীরা তাদের সাথে সমন্বয় করে বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়নি। হঠাৎই সকালে তারা বাইরে থেকে আসা ব্যবসায়ীদের সাথে অশোভন আচরণ শুরু করে। আমরা বাধা দিতে গেলে বিষয়টি অন্যদিকে চলে যায়।
এ বিষয়ে খুচরা ব্যবসায়ীদের দাবী, টাউনহল মাঠে নানা সমস্যার কারণে তারা ব্যবসা বন্ধ রাখতে বাধ্য হয়েছেন। এরমধ্যে আবার কয়েকজন আড়তদার বকেয়া টাকার জন্যও চাপ শুরু করেছে। এসব নিয়ে তারা চোখে শস্যে ফুল দেখছেন। এরমধ্যে বুধবার সকালে আড়ৎদাররা দোকান খুলে ব্যবসা শুরু করে। এসময় বিষয়টি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত সকল মাছ ব্যবসায়ীর স্বার্থে শান্তভাবেই আড়তদারদের ব্যবসা আপাতত বন্ধ রাখার জন্য অনুরোধ জানান। অনেকেই তাদের পক্ষে মত দিয়েছিলেন। কিন্তু কয়েকজন  তাদের উপর চড়াও হয়। তাদেরকে লাঞ্চিত করা হয়।
এ বিষয়ে আড়ৎদারদের সভাপতি জাকির হোসেন বলেন, বিষয়টা তার কানে এসেছে। কিন্তু সেসময় তিনি ছিলেন না। তিনি আরো বলেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা মালামাল না কেনায় সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। অনেকের মাল স্টক করা রয়েছে। প্রতিদিন ব্যবসায়ীদের হাজার হাজার টাকা  লোকসান গুনতে হচ্ছে। এ বিষয়ে খুচরা ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি কৃষ্ণপদ বিশ্বাস বলেন, সকল মাছব্যবসায়ীর স্বার্থে আড়ৎদারদের দোকানবন্ধ রাখতে বললেই কুয়াকাটা ফিসের নুরআল তাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ দিতে থাকে। তাদের সাথে যুক্ত হয় সোনালী ফিসের লাবুও। এরপর তারা হঠাৎ ধেয়ে আসে। এতে তাদের একজন আহত হয় বলে তিনি জানান। তাদের দাবি যশোরে আপাতত কেউই মাছ বিক্রি করবেনা যতদিন তাদের ব্যবসার একটা গতি না হবে।  এ বিষয়ে যশোর বড়বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মীর মোশারফ হোসেন বাবু বলেন, খুচরা ব্যবসায়ীদের সাথে আড়ৎদারদের সকালে একটু ঝামেলা হয়েছিল কিন্তু পরে তা মিটে গেছে শুনেছি। তিনি আরো বলেন, বাজার খুলে দেয়ার জন্য ঈদগাহ মাঠে তাবুর দাবি জানিয়েছেন মাছ ব্যবসায়ীরা। তিনি নিজে পৌরমেয়রকে বিষয়টি জানিয়েছেন। পৌরসভা থেকে যদি তাবুর ব্যবস্থা করে তাহলে আর কোনো ঝামেলাই থাকবেনা। তিনি আরো জানান, সামনে ঈদ বিষয়টা মিমাংশা করা অতি জরুরি হয়ে পড়েছে।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft