শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
যশোরে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় তিনশ’
ডাক্তার ও পুলিশসহ নতুন শনাক্ত ১৪ জন
ফয়সল ইসলাম :
Published : Thursday, 18 June, 2020 at 10:43 PM
যশোরে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় তিনশ’করোনায় বিপর্যস্ত যশোর। প্রতিদিন ধারাবাহিকভাবেই আশঙ্কাজনক সংখ্যায় মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে। এরই মধ্যে তিনশ’র কাছাকাছি চলে গেছে আক্রান্তের রোগীর সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় (১৭ জুন সকাল ৮টা থেকে ১৮ জুন সকাল ৮টা পর্যন্ত) নতুন আরও ১৪ জনসহ বর্তমানে যশোরে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে দু’শ’ ৮২। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন একজন ডাক্তার, একজন স্বাস্থ্যসেবী, দু’জন পুলিশ সদস্য ও ঠিকাদার। জেলায় ইতোমধ্যে করোনা জয় করেছেন একশ’ ২০ জন। চিকিৎসাধীন আছেন একশ’ ৬০ জন। সিভিল সার্জন ডাক্তার শেখ আবু শাহীন এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
সিভিল সার্জন জানিয়েছেন, করোনায় নতুন শনাক্ত হওয়া ১৪ জনের মধ্যে যশোর সদর উপজেলায় একজন ডাক্তারসহ তিনজন, কেশবপুরে একজন পুলিশ সদস্যসহ তিনজন,  শার্শায় একজন পুলিশ সদস্যসহ তিনজন, অভয়নগরে তিনজন,  চৌগাছা এবং ঝিকরগাছা উপজেলায় একজন করে রয়েছেন।
সিভিল সার্জন আরও জানান, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জিনোম সেন্টারের ল্যাব থেকে ৫৪টি নমুনা পরীক্ষা করে ১৬টির রেজাল্ট পজেটিভ এসেছে মর্মে বৃহস্পতিবার সকালে রিপোর্ট দিয়েছে। এর মধ্যে ফলোআপ অর্থাৎ আগে শনাক্ত হওয়া দু’জন রোগীর নমুনা পরীক্ষায় দ্বিতীয়বারও পজেটিভ এসেছে। নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ১৪ জন। বাকি একশ’ ৪০টি নমুনা পরীক্ষার রেজাল্ট নেগেটিভ এসেছে। আক্রান্তদের সুচিকিৎসা নিশ্চিতকরণ, তাদের সংস্পর্শে আসাদের কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা ও প্রশাসনের সহযোগিতায় বাড়ি লকডাউন করার জন্যে সংশ্লিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার মীর আবু মাউদের বরাত দিয়ে মেডিকেল অফিসার এ এন এম নাসিম ফেরদৌস বলেন, যশোর সদর উপজেলায় নতুন করে শনাক্ত হওয়া তিনজন করোনা আক্রান্তের মধ্যে রয়েছেন আদ-দ্বীন সখিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চক্ষু রোগ চিকিৎসা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডাক্তার মিনহাজুর রহমান (৫৯)। তিনি বসবাস করেন শহরের পোস্ট অফিস পাড়ায়। নমুনা পরীক্ষার রেজাল্ট পজেটিভ আসার খবর জানতে পেরে উন্নত চিকিৎসার জন্যে তিনি নিজ উদ্যোগে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঢাকায় চলে গেছেন। পোস্ট অফিস পাড়ায় বসবাসকারী অপর একজন নারী ফার্মাসিস্ট (৪৮) করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি স্কুল হেলথ ক্লিনিক যশোরে কর্মরত। আক্রান্ত অপর ব্যক্তি শহরতলীর বাহাদুরপুর গ্রামের বাসিন্দা একজন ঠিকারদার। তার বয়স ৬২ বছর। আক্রান্তদের নিজ নিজ বাড়িতেই আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাদের সংস্পর্শে আসা পরিবারের সদস্য ও অন্যান্য স্বজনদের চিহ্নিত করে কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। একইসাথে তাদের বসবাসের বাড়ি সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জাকির হোসেনের নেতৃত্বে প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা লকডাউন করেছেন।
অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার এস এম মাহমুদুর রহমান রিজভী বলেন, উপজেলায় নতুন করে তিনজন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। তিনজনই পুরুষ। তাদের বয়স যথাক্রমে ৪৮, ৫২ ও ৬৪ বছর। তারা নওয়াপাড়া পৌরসভার গুয়াখোলা এলাকার বাসিন্দা। নিজ নিজ বাড়িতেই তারা আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন আছেন।
ডাক্তার রিজভী আরও বলেন, করোনা সংক্রমণের হটস্পট অভয়নগর উপজেলায় বৃহস্পতিবার নতুন শনাক্ত হওয়া তিনজনসহ মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৮৫ জন। কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চিকিৎসা গ্রহণ করে ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১৪ জন। একজনের মৃত্যু হয়েছে। সংক্রমণ প্রতিহত করতে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা চিহ্নিতসহ কার্যকরী সকল পদক্ষেপ নিয়েছে প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগ। এরই অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার সকালে জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সদস্য উপজেলা কমিটির সদস্যসহ স্থানীয় প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও ব্যবসায়ীদের সাথে বিশেষ সভা করেছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়।  
কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য  ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার আলমগীর হোসেন বলেন, নতুন করে করোনায় শনাক্ত হওয়া তিনজনের মধ্যে রয়েছেন কেশবপুর থানায় কর্মরত একজন পুলিশ সদস্য (এএসআই)। ৩৬ বছর বয়সী পুলিশ সদস্য পুরুষ। আক্রান্ত অন্য দু’জনের মধ্যে রাজগঞ্জ রোড এলাকায় বসবাসকারী একজন পুরুষ (৩২)। তিনি ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান এসকেএফ ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিতে চাকরি করেন। অপরজন ত্রিমোহনী গ্রামের বাসিন্দা একজন নারী (২৫)। প্রত্যেককেই হোম আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।
ঝিকরগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার হাবিবুর রহমান বলেন, করোনায় আক্রান্ত নতুন ব্যক্তি একজন পুলিশ সদস্য (এসআই)। তিনি ঝিকরগাছা থানাতে কর্মরত। থানার পাশেই একটি বাড়িতে ভাড়া থাকেন। হোম আইসোলেশনে তিনি চিকিৎসাধীন আছেন।
শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার ইউসুফ হোসেন বলেন, বৃহস্পতিবার সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে পাঠানো নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে নিশ্চিত হওয়া গেছে পল্লী বিদ্যুতের বাগআঁচড়া অফিসের নিরাপত্ত্বা প্রহরী পুরুষ (৫০) করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়াও আক্রান্ত হয়েছেন বেনাপোল কলেজ পাড়ার বাসিন্দা পিতা (৬০) ও পুত্র (৩৮)। আক্রান্তদের হোমা আইসোলেশনে চিকিৎসার ব্যবস্থাসহ তাদের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। একইসাথে তাদের বসবাসের বাড়ি প্রশাসনের সহযোগিতায় লকডাউন করা হয়েছে।
চৌগাছায় নতুন শনাক্ত হওয়া রোগী ৩৮ বছর বয়সী একজন নারী। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার লুৎফুন্নাহার বলেন, আক্রান্ত নারী যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুরুষ পরিচ্ছন্নতা কর্মীর স্ত্রী। গত ১২ জুন ওই পরিচ্ছনতা কর্মী করোনায় সংক্রমিত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হয় স্বাস্থ্য বিভাগ। এরপর তার স্ত্রী ও মেয়ের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্যে পাঠানো হয়। ১৫ জুন রিপোর্ট আসে তার ১৬ বছর বয়সী মেয়ে ও ১৮ জুন রিপোর্ট আসে স্ত্রী করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন। তারা বসবাস করেন উপজেলার পৌর এলাকার ঋষিপাড়ায়। সেখানেই তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।
সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ও মিডিয়া ফোকাল পার্সন ডাক্তার রেহেনেওয়াজ রনি জানিয়েছেন, গত ১০ মার্চ থেকে ১৮ জুন পর্যন্ত যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ জেলার ৮টি উপজেলা থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্যে পাঠানো হয়েছে তিন হাজার তিনশ’ ৮৭টি। এর মধ্যে রিপোর্ট এসেছে তিন হাজার ৬২টি। গত ১২ এপ্রিল প্রথম শনাক্ত হওয়ার পর ১৮ জুন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন দু’শ’ ৮২ জন। ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন একশ’ ২০ জন। হাসপাতাল আইসোলেশনে ১০ জন এবং হোম আইসোলেশনে একশ’ ৫০ জন মোট একশ’ ৬০ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ১৮ জুন জেলা থেকে সংগৃহিত ৪৯টি নমুনা যবিপ্রবি’র জিনোম সেন্টারের ল্যাবে পাঠানো হয়েছে।  
এদিকে, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জিনোম সেন্টারের ল্যাবে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত সন্দেহভাজনদের নমুনা পরীক্ষণ দলের সদস্য ও অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডক্টর তানভীর ইসলাম জানিয়েছেন, ১৭ জুন দিবাগত রাতে যশোরের ৫৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে আগে শনাক্ত হওয়া দু’জনসহ ১৬ জনের, নড়াইলের ২২ জনের মধ্যে চারজনের, মাগুরার ১৮ জনের মধ্যে দু’জনের ও বাগেরহাটের ৭৬ জনের মধ্যে ১৭ জনের নমুনাতে পজিটিভ রেজাল্ট এসেছে।
অর্থাৎ যবিপ্রবির ল্যাবে মোট একশ’ ৭০ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৩৯ জনের করোনা পজিটিভ এবং একশ’ ৩১ জনের নেগেটিভ ফলাফল পাওয়া গেছে।  




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft