রবিবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
তিন কিশোরের ময়নাতদন্ত রিপোর্ট
মাথায় আঘাত ও রক্তক্ষরণেই মৃত্যু
একটি তদন্ত কমিটির রিপোর্ট জমাদু’জনের রিমান্ড শেষ
বিশেষ প্রতিনিধি :
Published : Wednesday, 19 August, 2020 at 1:47 AM
মাথায় আঘাত ও রক্তক্ষরণেই মৃত্যুমাথায় আঘাত ও রক্তক্ষরণের কারণেই শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের তিন কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। ময়না তদন্ত রিপোর্টে তার প্রমাণ মিলেছে। সিভিল সার্জন ডাক্তার শেখ আবু শাহীন ময়না তদন্ত রিপোর্ট পুলিশ সুপারের কাছে হস্তান্তর করেছেন।
যশোর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার দিলিপ কুমার রায় জানিয়েছেন, তিন কিশোরের মরদেহের পায়ে, পিঠে ও মাথায় আঘাতের চিহ্ন আছে। মূলত মাথায় আঘাত ও মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ জনিত কারণেই তাদের মৃত্যু হয়েছে।
গত ১৩ আগস্ট যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে নির্মম পিটুনীতে কিশোর পারভেজ হাসান রাব্বি (১৮), রাসেল সুজন (১৮) ও নাইম হোসেন (১৭) খুন হয়। কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ প্রথমে বিষয়টি কিশোরদের দুই গ্রুপের মারামারি বলে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু পরে আহতদের বক্তব্য ও পুলিশের তদন্তে বেরিয়ে আসতে থাকে কেন্দ্রের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নির্মমতার কাহিনী।
এদিকে, যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে ৩ কিশোর খুন ও ১৬ কিশোর জখমের ঘটনায় সমাজসেবা অধিদপ্তর গঠিত তদন্ত কমিটি তাদের রিপোর্ট জমা দিয়েছে। সংশ্লিষ্ট সুত্রটি জানান, এ ঘটনায় কেন্দ্রের অফিসার ও কিশোর বন্দিসহ আরও কয়েক ক্যাটাগরির স্টাফ সংশ্লিষ্ট বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।
হতাহতের ঘটনায় আটক ৫ কর্মকর্তার মধ্যে দু’জনের রিমান্ড শেষ হওয়ায় তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।
১৩ আগস্ট দুপুরে যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে পরিকল্পিত মারপিটে খুন হয় বগুড়ার শিবগঞ্জের তালিবপুর পূর্ব পাড়ার নান্নু পরামানিকের ছেলে নাঈম হোসেন (১৭), খুলনার দৌলতপুরের মহেশ্¦রপাশা সেনপাড়ার রোকা মিয়ার ছেলে পারভেজ হাসান রাব্বি (১৮) ও বগুড়ার শেরপুর উপজেলার মহিপুরের আলহাজ¦ নুরুল ইসলাম নুরুর ছেলে রাসেল হোসেন ওরফে সুজন (১৮)। একই সাথে ১৬ কিশোর গুরুতর জখম হয়। নিহত পারভেজের বাবা রোকা মিয়া ১৪ আগস্ট রাতে থানায় শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের  কর্মকর্তা কর্মচারী ও অজ্ঞাত কয়েক বন্দিকে আসামি করে মামলা করলে হেফাজতে নেয়া হয় ১৯ জনকে। এদের মধ্যে এডি আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, সহকারী তত্ত্বাবধায়ক মাসুম বিল্লাহ, সাইকোসোশ্যাল কাউন্সিলর (প্রবেশন অফিসার) মুশফিকুর রহমান, শরীর চর্চা শিক্ষক ওমর ফারুক ও কারিগরি শিক্ষক শাহানুর আলমকে আটক দেখানো হয়। ১৫ আগস্ট চালান দেয়া হয় ৭ দিন করে রিমান্ড চেয়ে। রিমান্ড আবেদনের প্রেক্ষিতে এডি আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, প্রবেশন অফিসার মাসুম বিল¬াহ, সাইকোসোস্যাল কাউন্সিলার মুশফিকুর রহমানের ৫ দিন করে ও কারিগরি প্রশিক্ষক (ওয়েল্ডিং) ওমর ফারুক ও ফিজিক্যাল ইন্সট্রাক্টর শাহানুর আলমের ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়। ১৬ ও ১৭ আগস্ট দুদিন রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় কারিগরি প্রশিক্ষক (ওয়েল্ডিং) ওমর ফারুক ও ফিজিক্যাল ইন্সট্রাক্টর শাহানুর আলমকে। রিমান্ড শেষ হওয়ায় তদন্ত কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর রোকিবুজ্জামান ১৮ আগস্ট কারিগরি প্রশিক্ষক (ওয়েল্ডিং) ওমর ফারুক ও ফিজিক্যাল ইন্সট্রাক্টর শাহানুর আলমকে আদালতে সোপর্দ করেছেন। তারা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিলেও এ ব্যাপারে মুখ খোলেননি তদন্ত কর্মকর্তা।
তিনি জানিয়েছেন, রিমান্ড শেষ হওয়া দু’জন অনেক তথ্য দিয়েছে। সেগুলো যাচাই বাছাই করা হচ্ছে। এছাড়া আরও তিন জনের দুদিন করে রিমান্ড এখনও বাকি আছে। সবার রিমান্ড শেষ হলে সব তথ্য নিয়ে তদন্ত এগুবে। তদন্তের স্বার্থে এমুহূর্তে প্রাপ্ত তথ্য দেয়া যাবে না।  
এদিকে সমাজসেবা অধিদপ্তর যশোরের উপ পরিচালক অসিত কুমার সাহা গ্রামের কাগজকে জানিয়েছেন, সমাজসেবা অধিদপ্তরের মহা পরিচালকের গঠন করা কমিটি তাদের তদন্ত সম্পন্ন করেছেন। ১৬ ও ১৭ দুদিন সরকারি কর্ম দিবসে দুই সদস্যের তদন্ত কমিটি যশোরে কাজ করেন। তারা যশোর জেনারেল হাসপাতালে গিয়ে আহতদের সাথে কথা বলেছেন। এছাড়া ঘটনাস্থল শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রেও তদন্ত করেছেন। কমিটির সদস্য সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রতিষ্ঠান) সৈয়দ মোহাম্মাদ নুরুল বসির ও উপপরিচালক (প্রতিষ্ঠান-২) এসএম মাহমুদুল্লাহ তদন্ত শেষে ১৭ আগস্ট বিকেলে যশোর ত্যাগ করেছেন।
সমাজসেবা অধিদপ্তরের অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, ১৮ আগস্ট ওই কমিটি সমাজ সেবা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক শেখ রফিকুল ইসলামের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন। অনাকাঙ্খিত ঘটনার জন্য শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের অফিসার কিশোর বন্দিসহ আরও কয়েক ক্যাটাগরির স্টাফ দায়ী বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। প্রতিবেদনে দোষীদের নামও উল্লেখ করা হয়েছে। 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft