সোমবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২০
স্বাস্থ্যকথা
চোখের ক্যানসার বুঝবেন কীভাবে
কাগজ ডেস্ক :
Published : Friday, 11 September, 2020 at 8:30 PM
চোখের ক্যানসার বুঝবেন কীভাবেচোখের সুস্থ কোষের অস্বাভাবিক পরিবর্তন ঘটলে এবং বিশৃঙ্খলভাবে খুব দ্রুত বৃদ্ধি পেলে টিস্যুর একটি পিণ্ড গঠিত হয়। এটাকে বলে চোখের টিউমার।
এ সমস্যা চোখের ভেতর হলে তাকে প্রাইমারি আই ক্যানসার বলে। শরীরের অন্য অংশ থেকে চোখে ক্যানসার ছড়ালে তাকে সেকেন্ডারি আই ক্যানসার বলে।
চোখের ক্যানসারের উপসর্গ
চোখের ক্যানসারে যে লক্ষণটি সবচেয়ে বেশি দেখা গেছে তা হলো, দৃষ্টিতে পরিবর্তন। এ ক্যানসারের রোগী ভালোভাবে দেখতে অসমর্থ হতে পারে অথবা চোখের সামনে আলোর ঝলকানি অথবা ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র স্পট/দাগ/রেখা/ফুটকি/বিন্দু (ফ্লোটার্স) দেখা যেতে পারে। এক চোখে কালো দাগও ডেভেলপ হতে পারে অথবা আকার-আকৃতিতে পরিবর্তন আসতে পারে।
চোখের ক্যানসারে সবসময় প্রাথমিক পর্যায়ে উপসর্গ প্রকাশ পাবে এমনটা নাও হতে পারে। তাছাড়া অন্য সমস্যার কারণেও উপসর্গগুলো ডেভেলপ করতে পারে।
চোখের ক্যানসারের ধরন
ইউভিয়াল মেলানোমা: প্রাইমারি আই ক্যানসারের সবচেয়ে কমন ধরন হলো ইউভিয়াল মেলানোমা। চোখের ইউভিয়াতে কোষ থেকে টিউমার সৃষ্টি হলে তাকে ইউভিয়াল মেলানোমা বলে। ইউভিয়ার তিনটি অংশ, যথা- আইরিস বা চোখের রঙিন অংশ, সিলিয়ারি বডি (তরল তৈরি করে ও ফোকাসে সাহায্য করে) ও কোরয়েড লেয়ার (চোখে রক্ত সরবরাহ করে)। সাধারণত কোরয়েড লেয়ারে কোষের পরিবর্তন হতে থাকে এবং ক্যানসারে পরিণত হয়।
রেটিনোব্লাস্টোমা: শিশুদের চোখের ক্যানসারের সবচেয়ে কমন ধরন হচ্ছে রেটিনোব্লাস্টোমা। বেশিরভাগ সময় পাঁচ বছরের পূর্বে এ ক্যানসার শনাক্ত হয়। সাধারণত শিশু গর্ভে থাকা অবস্থায় চোখের পেছনের অংশ রেটিনাতে এটি বিকশিত হতে শুরু করে। শিশু বেড়ে ওঠার সাথে সাথে রেটিনোব্লাস্ট নামক কোষগুলো অনিয়ন্ত্রিতভাবে বৃদ্ধি পায় ও টিউমার গঠন করে। কখনো কখনো শিশুর ফটোগ্রাফে এ ক্যানসারটি প্রথম ধরা পড়তে পারে, যেখানে চোখের একটি তারা অন্য তারা থেকে ভিন্ন দেখায়।
ইন্ট্রাঅকুলার লিম্ফোমা: লসিকা গ্রন্থিগুলো বর্জ্য ও জীবাণু দূর করতে সাহায্য করে। শরীরের সবখানে লসিকাগ্রন্থি রয়েছে, এমনকি চোখেও। ইন্ট্রাঅকুলার লিম্ফোমা হচ্ছে একটি বিরল প্রকৃতির ক্যানসার, যা চোখের লসিকা গ্রন্থিতে ডেভেলপ করতে শুরু করে। ক্যানসারটি শনাক্ত করা কঠিন হতে পারে, কারণ এর উপসর্গ ব্যক্তিভেদে ভিন্ন হয়ে থাকে।
কনজাঙ্কটিভাল মেলানোমা: চোখের সাদা অংশের ওপর ও পাতার নিচে যে শ্লৈষ্মিক ঝিল্লি বা পাতলা পর্দা থাকে তাকে কনজাঙ্কটিভা বলে। কনজাঙ্কটিভাল মেলানোমা হচ্ছে একটি বিরল ধরনের ক্যানসার যা কনজাঙ্কটিভাতে বিকশিত হয়। চোখের ওপর কালো দাগ দেখলে এটা কনজাঙ্কটিভার টিউমার হতে পারে। এ ক্যানসারের চিকিৎসা দ্রুত না করলে এটি লসিকাতন্ত্রের মাধ্যমে শরীরের অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে পড়তে পারে।
ল্যাক্রিমাল গ্ল্যান্ড ক্যানসার: অশ্রু উৎপাদনকারী গ্রন্থিতে সৃষ্ট টিউমারকে ল্যাক্রিমাল গ্ল্যান্ড ক্যানসার বলে। এটাও বিরল ধরনের ক্যানসার। ল্যাক্রিমাল গ্রন্থির অবস্থান হলো প্রত্যেক চোখের উপরিস্থ পাতার নিচে। ৩০ এর ঘরে পা রাখা লোকদের এ ক্যানসার বেশি হয়।
আইলিড ক্যানসার: এ টাইপের স্কিন ক্যানসার চোখের পাতায় বিকশিত হয়। সূর্যের নিচে অত্যধিক সময় কাটালে এ ক্যানসারটি হয়ে থাকে। হালকা বর্ণের ত্বক রয়েছে এমন মানুষদের এ ক্যানসারের ঝুঁকি বেশি। প্রারম্ভিক পর্যায়ে শনাক্ত করতে পারলে খুব সহজে ও কার্যকরভাবে আইলিড ক্যানসারের চিকিৎসা করা যায়।
সেকেন্ডারি আই ক্যানসার: অধিকাংশ ক্ষেত্রে ক্যানসারের বিকাশ চোখে শুরু হয় না, শরীরের অন্য কোথাও থেকে চোখে ক্যানসার ছড়িয়ে থাকে। এটাকে বলে সেকেন্ডারি আই ক্যানসার। বেশিরভাগ সময় নারীর স্তন ক্যানসার ও পুরুষের ফুসফুস ক্যানসার থেকে চোখের ক্যানসার হয়। ত্বক, কিডনি, কোলন, থাইরয়েড ও শরীরের অন্য স্থানের ক্যানসারও চোখে ছড়াতে পারে।
চোখের ক্যানসারের চিকিৎসা
চোখের ক্যানসারের উল্লেখযোগ্য চিকিৎসা হচ্ছে: সার্জারি, রেডিয়েশন ও লেজার থেরাপি। টিউমার ছোট হলে, দ্রুত বৃদ্ধি না পেলে ও চোখে সমস্যা সৃষ্টি না করলে চিকিৎসকেরা এটাকে ঘনিষ্ঠ পর্যবেক্ষণে রাখবেন। এ টিউমার চতুর্দিকে ১০ মিলিমিটার বড় হলে অথবা ৩ মিলিমিটার লম্বা হলে চোখের অংশবিশেষ ফেলে দিতে সার্জারির পরামর্শ দিতে পারেন। টিউমারটি কতটুকু অংশকে আক্রান্ত করেছে তার ওপর ভিত্তি করে সার্জারি নির্ভর করছে।
চোখের ক্যানসার কোষকে ধ্বংস করতে চিকিৎসকেরা উচ্চ শক্তির বিকিরণও (একপ্রকার এক্স-রে) ব্যবহার করতে পারেন। সার্জারি সহকারে অথবা সার্জারি ছাড়াই রেডিয়েশন থেরাপি দেয়া যায়। কিন্তু এতে সুস্থ কোষও মারা যায় এবং চোখ শুষ্ক হয়ে পড়ে, চোখের পাতার লোম ঝরে যায় ও দৃষ্টি ঝাপসা হতে পারে।
সবচেয়ে প্রচলিত লেজার চিকিৎসা হলো ট্রান্সপিউপিলারি থার্মোথেরাপি (টিটিটি)। এ থেরাপিতে ছোট টিউমারকে সংকুচিত করতে অবলোহিত আলোর বিকিরণ প্রয়োগ করা হয়। আই মেলানোমার চিকিৎসায় এ থেরাপি ব্যবহার করা হয়, কারণ কোষগুলো লেজারের আলোকশক্তি শোষণ করে। ইন্ট্রাঅকুলার লিম্ফোমাতে এ থেরাপি কার্যকর নয়। লেজার থেরাপিতে সার্জারি অথবা রেডিয়েশনের চেয়ে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কম হয়। তথ্যসূত্র : ওয়েব এমডি



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft