বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
ফিল্মিস্টাইলে বোমা ফাটিয়ে ১৭ লাখ টাকা ছিনতাই
দেওয়ান মোর্শেদ আলম :
Published : Wednesday, 30 September, 2020 at 12:31 AM
 ফিল্মিস্টাইলে  বোমা ফাটিয়ে ১৭ লাখ টাকা ছিনতাই গতকাল দুপুরে যশোর কোতোয়ালি থানা প্রাচীরের মাত্র ১শ’ গজ দুরে ফিল্মিস্টাইলে ১৭ লাখ টাকা ছিনতাই করেছে একটি সংঘবদ্ধ উঠতি দুর্বৃত্ত চক্র। যশোর শহরের জেসটাওয়ারের সামনে ইউনাইটেড কমার্সিয়াল ব্যাংকের নিচে ২টা ২ মিনিটে বোমা মেরে ও ছুরিকাঘাত করে এই দু:সাহসিক ঘটনা ঘটানো হয়েছে।

ঘটনাস্থলের অদূরে পুলিশের একটি গাড়ি ছিল বলে কয়েক প্রত্যক্ষদর্শীর দাবি। বোমাবাজির ঘটনায় ব্যাংকের এটিএম বুথ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাতে টাকা বহনকারী  যুবক গুরুতর আহত হয়েছেন। তাকে প্রথমে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির পর খুলনা মেডিকেলে রেফার করা হয়েছে। পুলিশ ব্যাংকের সিসি টিভি ফুটেজ জব্দ করেছে। ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত ও আটকের চেষ্টা চলছে।

ঘড়ির কাটায় তখন ২টা ১ মিনিট। যশোর আরএন রোডের আগমনী মোটর্সের মালিক ইকবাল হোসেনের বড় ভাই এনামুল হক (২৭) দোকানের ১৭ লাখ টাকা ইউসিবিতে জমা দিতে মোটরসাইকেলযোগে আসেন। ব্যাংকের সামনে নামতেই এক দুর্বৃত্ত তার উপর চড়াও হয়। দুর্বৃত্তের পেছনে ঝুলানো একটি কালো ব্যাগ থেকে একটি ছোরা বের করে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত ও ধস্তাধস্তি করে ১৭ লাখ টাকার ব্যাগটি ছিনিয়ে নেয়। এরপর অপর একজন বোমাবাজি করে। বিকট আওয়াজ ও ঘটনাস্থল এলাকা ধোঁয়া ধোঁয়া হয়ে যাওয়ায় মানুষ দৌঁড়াদৌঁড়ি শুরু করে। ওই চক্রে একে একে ৭ থেকে ৮ জন আশপাশ থেকে বের হয়ে সিটিপ্লাজা এলাকা গোহাটা রোড দিয়ে পালিয়ে যায়।

ছুরিকাহত টাকা বহনকারী এনামুল হক বকচরের হাবিবুর রহমান কুটি মিয়ার ছেলে। টাকা নিয়ে দোকান থেকে আসার সময় মোটরসাইকেল চালাচ্ছিলেন বকচরের ইমাদুল গাজীর ছেলে নিকটআত্মীয় ইমন (২৫)। আর এনামুল টাকার ব্যাগ নিয়ে পেছনে বসেছিলেন। ২টা ২ মিনিটে বোমা মেরে ও ছুরিকাঘাত করে টাকা ছিনিয়ে নেয়ার সময় দুর্বৃত্তরা ইমনের গায়ে হাত পর্যন্ত তোলেনি।

এদিকে গুরুতর আহত এনামুল হককে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভতি করা হয়। তার অবস্থার অবনতি হতে থাকলে বিকেল ৩ টায় তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়।

ঘটনার পরপরই যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ক সার্কেল গোলাম রব্বানী ঘটনাস্থল পরিদশন করেন এবং আহত এনামুলের ব্যাপারে খোঁজখবর নিতে হাসপাতালে যান। দ্রæত ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত ও আটকে তড়িৎ ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশনা দেন অফিসারদের।

এ ঘটনায় জেলা পুলিশের তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা ডিআইও ওয়ান মশিউর রহমান জানিয়েছেন, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত মামলা রেকর্ড হয়নি কিংবা জড়িতরা শনাক্ত হয়নি। তবে শনাক্ত ও আটকে পুলিশের একাধিক টিম কাজ করছে।

যশোর কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরুজ্জামান জানিয়েছেন, আগমনী  মোটরসের মালিক ইকবাল হোসেনের ছোট ভাই এনামুল হক ইউসিবিএল ব্যাংকে ১৭ লাখ টাকা জমা দেয়ার জন্য আসেন। এসময় অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা তার গতিরোধ করে কাছে থাকা ব্যাগ নিয়ে টানাটানি করে। এক পর্যায়ে এনামুল হকের পেটে ও দুই হাতে ছুরিকাঘাত করে কাছে থাকা ব্যাগ ছিনিয়ে নেয়। পরে সেখানে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে পালিয়ে যায়।

জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ সৌমেন দাশ জানিয়েছেন, ঘটনার ব্যাপারে কয়েকটি পক্ষকে সাসপেক্ট করা হচ্ছে। টাকা নিয়ে আসার ব্যাপারে কে কে বা কারা কারা জানত এ বিষয়টি সামনে আসবে। অভিযান ও তদন্ত অব্যাহত রয়েছে। দ্রæতই একটি ভাল ফল আসবে।

ঘটনার ব্যাপারে ইউসিবিএল যশোর শাখা প্রধান মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম গ্রামের কাগজকে জানিয়েছেন, সিসিটিভির ফুটেজ অনুযায়ী ঘটনা ঘটেছে দুপুর ২টা ২ মিটিটে। নিচে বিকট আওয়াজ শুনে তিনি এক স্টাফকে খোঁজ নিতে বলেন। পরে জানতে পারেন নিচে তার এক গ্রাহকের ১৭ লাখ টাকা ছিনতাই হয়েছে। বোমাবাজি ঘটনায় ব্যাংকের এটিএম বুথ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ঘটনাস্থলের অদূরে একটি পুলিশের গাড়িও দেখা গেছে সিসিটিভি ফুটেজে। তবে কেউ কিছু বুঝে ওঠার আগেই ঘটনা ঘটে গেছে বলে সিসিটিভির ফুটেজে মনে হচ্ছে। পুলিশের কয়েকটি ইউনিট ওই ফুটেজ নিয়ে গেছে। আগমনী মোটরস তার গ্রাহক, এছাড়া আরো কয়েকটি ব্যাংকে তাদের লেনদেন হয়। ঘটনার ৩ মিনিট পরে তিনি নিচে যান  এবং দেখতে পান এটিএম বুথের গøাস ভেঙে চুরমার হয়ে গেছে। নিচে পুলিশ ও জনতার ভিড়।

ঘটনাস্থলের পাশের রুচিরা ইলেক্ট্রনিক্সের এক কর্মচারী জানান, তারা বোমার বিকট আওয়াজ শুনে বের হন। দেখেন দৌঁড়াদৌঁড়ি  করে কয়েক যুকক পালিয়ে যাচ্ছে। আর ধোঁয়া হয়ে গেছে এলাকা। পরে শোনেন ছুরিকাঘাত করে টাকা ছিনিয়ে নিয়ে গেছে সন্ত্রাসীরা। অদূরে ওই সময় পুলিশের একটি গাড়ি দাঁড়িয়ে ছিল।

এটিএম বুথের সিকিউরিটি গার্ড মোস্তফা কামাল জানিয়েছেন, দুজন মোটরসাইকেলযোগে আসেন। আর একজন কালো ব্যাগ ঘাড়ে এসে ধস্তাধস্তি করে ছুরি মারে। হঠাৎ বোমা ফাটে।  এটিএম বুথের গøাম চুরমার হয়। কিন্তু আল্লাহর রহমতে তিনি সুস্থ্য আছেন।

 

 




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft