মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২০
সারাদেশ
দেশি চাঁদিঠোঁট পাখি বিলুপ্তের পথে
মোফাজ্জল হোসেন, নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি :
Published : Saturday, 24 October, 2020 at 4:30 PM
দেশি চাঁদিঠোঁট পাখি বিলুপ্তের পথে পাখিটির নাম ‘দেশি চাঁদিঠোঁট’। এর ইংরেজি নাম ‘ইন্ডিয়ান সিলভারবিল। বৈজ্ঞানিক নাম ‘লঙ্কুরা মালাবারিকা’ এরা ‘ছোট মুনিয়া’ নামেও পরিচিত। এরা চড়–ই আকৃতির পাখি। তাই অনেকেই চড়–ই ভেবে থাকেন। বসবাসের জন্য এরা নিরাপদ জায়গা পছন্দ করে। মানুষের সমাগম দেখলে পালিয়ে যায়। বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলে একসময় এ পাখি প্রচুর দেখা যেত।
তবে কাশবন, ছোট গুল্ম ও ঝোপঝাড় কমে যাওয়ায় দেশি চাঁদিঠোঁট বা মুনিয়া পাখি দিন দিন বিলুপ্তের পথে বিভিন্ন এলাকা থেকে। এরা ধূসর ঠোঁট ও কালো লেজের পাখি। দেহের দৈর্ঘ্য ১০ সেন্টিমিটার এবং ওজন প্রায় ১২ গ্রাম। প্রাপ্তবয়স্ক পাখির সাদা কোমর, দেহের পেছনের অংশ, ডানাসহ পিঠ ফিকে ও মেটে বাদামি। লম্বা সুচালো লেজ কালো। দেহতল সাদাটে। ঠোঁট ত্রিকোণাকার ও ধূসরাভ পা, পায়ের পাতা ও নখর ধূসরাভ-পাটল রঙের। ছেলে ও মেয়ে পাখির চেহারা অভিন্ন।
কাশবন, বালুময় শণবন, নদীতীরের আবাদি জমি ও কাঁটা ঝোপে এরা বিচরণ করে। ভারতীয় উপমহাদেশ, মধ্যপ্রাচ্যে এদের দেখতে পাওয় যায়। প্রকৃতি গতভাবে এরা মুনিয়ার সমগোত্রীয়। এ পাখি সচরাচর দলে থাকে। ভূমিতে, ঘাসবনে ও মেঠোপথে লাফিয়ে লাফিয়ে খাবার খোঁজে। খাদ্যতালিকায় রয়েছে বীজ ও ছোট পোকা। এরা কোনো কোনো সময় বাবুই পাখির পরিত্যক্ত বাসায় রাত কাটায়। প্রজনন সময় জুলাই থেকে ডিসেম্বর।
কাঁটা ঝোপের দুই-তিন মিটার উঁচুতে ঘাস, পাতা, পালক, পশম ও তুলা দিয়ে বলের মতো বাসা বানায় এবং ডিম পাড়ে। ডিমের রং সাদা, সংখ্যায় চার থেকে আটটি। ছেলে ও মেয়ে পাখি দুজনই ডিমে তা দেয় এবং ছানা পালন করে। তবে খুব বেশি দেখা যায় না এদের।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft