মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
খাবারের জন্য কাঁদছে মা হারা ৫মাসের শিশু মিম
শাহানুর আলম উজ্জ্বল চৌগাছা (যশোর) :
Published : Friday, 30 October, 2020 at 12:12 AM
খাবারের জন্য কাঁদছে মা হারা ৫মাসের শিশু মিম
কোমলমতি শিশুটি জানেনা তার মা নেই। জন্মের পরপরই ওর মা মারা গেছে। মায়ের আঁচল স্নেহ আর পরম মমতা কী সেটাও সে বোঝেনা। বোঝেনা মাতৃক্রোড়। মা নেই বলেই বুকের দুধ কিভাবে খেতে হয় সেটাও শেখেনি। বৃদ্ধা নানী আর খালার কোলই মায়ের কোল ভেবে বেড়ে উঠছে শিশু মিম। মাত্র পাঁচ মাস বয়সে বেঁচে থাকার জীবন সংগ্রাম শুরু করেছে। চেয়েচিন্তে অন্যের বাড়ী থেকে যতটুকু দুধ পায় তাই দিয়ে চলছে শিশুটির বাঁচার সংগ্রাম। এই অবস্থায় শিশুটির জন্য দুধের প্রয়োজন বলে বৃদ্ধ নানী ও খালা জানিয়েছেন।   জানাগেছে, উপজেলার লস্কারপুর গ্রামের কৃষক মকলেছুর রহমানের মেয়ে নাজমা খাতুনের বিয়ে হয় খুলনা জেলায়। বিয়ের পর সে সন্তান সম্ভবনা হলে শ^শুর বাড়ি থেকে পিতার বাড়ীতে চলে আসেন। চলতি বছরের মে মাসের শেষের দিকে সে ভর্তি হয় চৌগাছার একটি প্রাইভেট হাসপাতালে। ১ জুন সিজারের মাধ্যমে ফুটফুটে কন্যা সন্তানের জন্ম দেয় মা নাজমা খাতুন। কিন্তু সন্তান প্রসবের পর নাজমা খাতুন চরম অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। চিকিৎসকের পরামর্শে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকা মেডিকেলে। ৪ জুন মা নাজমা থাতুন চলে যান না ফেরার দেশে। নাজমা খাতুনের মৃত্যুতে শিশু মিম বড়ই একা হয়ে যায়। নানা, নানী, মামা ও খালাই তার এখন আপনজন। বর্তমানে বৃদ্ধা নানী আর খালা মিনা খাতুন শিশুটিকে দেখাশুনা করছে।
শিশুটির নানী শহরবানু (৬৫) জানান, মিমের মায়ের মৃত্যুর পর তার বাবা ইয়াছিন আর কখনও চৌগাছায় আসেনি। এমনকি শিশুটির কোন খোঁজ খবর রাখেনি। শুনেছি সে অন্যত্র বিয়ে করে সংসার করছে। মা হারা এই শিশুকে মানুষ করতে আমরা বেশ কষ্টে আছি। শিশুটির খালা মিনা খাতুন এখন দেখা শুনা করছে। তারাও গরীব মানুষ, জামাই রং মিস্ত্রির কাজ করে সংসার চালায়। প্রতিদিন কিভাবে দুধ কিনবে। প্রতিদিন অন্যের বাড়ীতে চেয়েচিন্তে গরুর দুধ জোগাড় করে কোনমতে শিশু মিমকে খাওয়ানো হচ্ছে। ক্ষুধার যন্ত্রনায় কখনো কখনো শিশুটি কান্নায় ফেটে পড়ে। দুদ্ধ শিশু কান্নাকাটি করলেই মা ছুটে এসে বুকের দুধ খাওয়ায়। কিন্তু মা হারা এই শিশুটি নিয়ে বড়ই বিপাকে অসহায় পরিবারটি।  
মিমের খালা মিনা খাতুন বলেন, ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস। শিশু মিমের মা নাজমা খাতুন আমার ছোট বোন। আমার আগেই সে পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছে। তার এতিম সন্তানকে আমি বুকে আগলে রেখেছি। অভাবের সংসারে তাকে ভালো ভাবে দুধ খাওয়াতে পারিনা। আমার স্বামী রং মিস্ত্রির কাজ করে। আমার দুটি সন্তান আছে তাদের সাথে মিমকে আমার আপন সন্তান মনে করেই বড় করে তুলার চেষ্টা করছি। কিন্তু মা তো মা...ই। মাঝে মধ্যে ফ্যাল ফ্যাল করে চেয়ে থাকে। অবুঝ শিশুটির চেয়ে থাকার দৃশ্য দেখে মনে হয় শিশু মিম মাকে খুঁজে ফিরছে। মিনা খাতুন আরো জানান, এখন শিশুটির জন্য দুধের প্রয়োজন। সমাজের কোন বৃত্তবান ব্যাক্তি যদি মা হারা অবুঝ শিশু মিমের প্রতি দিনের দুধ কেনার টাকা দিয়ে সহযোগীতা করতেন তাহলে খুব ভালো হত। মাকেতো আর সে ফিওে পাবেনা। তবে দুধ খেয়ে নিজে বেড়ে উঠত পারত। পরিবারের অনুরোধে যোগাযোগ-০১৭১৯-২৬৬৫৫৭/০১৭২৮-৪০১১১০ প্রেসক্লাব চৌগাছা, যশোর।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft