শুক্রবার, ০৫ মার্চ, ২০২১
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
চুড়ামনকাটির দুটি ঘটনায় পরস্পর বিরোধী মামলা
জেলা পরিষদ সদস্য মিন্টু ও ইউপি চেয়ারম্যান মুন্নাসহ আসামি ১৪
স্টাফ রিপোর্টার চুড়ামনকাটি (যশোর)
Published : Sunday, 15 November, 2020 at 10:12 PM
জেলা পরিষদ সদস্য মিন্টু ও ইউপি চেয়ারম্যান মুন্নাসহ আসামি ১৪যশোরের চুড়ামনকাটি এলাকায় দুটি ঘটনায় পরস্পর বিরোধী দুটি মামলা হয়েছে। মামলায় যশোর জেলা পরিষদের সদস্য সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান মিন্টু ও চুড়ামনকাটি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান মুন্নাসহ উভয় পক্ষের ১৪ জনকে আসামি করা হয়েছে।
স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দুটি গ্রুপের নেতাকর্মীদের নামে পাল্টাপাল্টি মামলার ঘটনায় উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এছাড়া দলীয় নেতাকর্মীদের নামে মামলা হওয়ায় হতাশা ব্যক্ত করেছেন ইউনিয়নের তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা। পুলিশ উভয় পক্ষের আসামি আটকে অভিযান অব্যাহত রেখেছে।
মামলা সূত্রে প্রকাশ, যশোর সদর উপজেলার শ্যামনগর গ্রামের মৃত মহিউদ্দিনের ছেলে সাইদুর রহমান ১৪ নভেম্বর রাতে একটি মামলা করেন। মামলায় আসামি করা হয়েছে, ছাতিয়ানতলা গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে চুড়ামনকাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান মুন্না, তার ছেলে আব্দুল আওয়াল, ভাই আব্দুল হান্নান,  চুড়ামনকাটি রেলস্টেশনের পাশের হঠাৎ পাড়ার আলম হোসেন, ইসলামপুরের আব্দুল কাদেরের ছেলে আলমগীর হোসেন, শ্যামনগর গ্রামের আব্দুল মুজিদের ছেলে আমিনুর রহমান, একই গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে আব্দুল আজিজ ও চুড়ামনকাটি গ্রামের মৃত আশকার কবিরাজের ছেলে ইছাহক আলী। এছাড়া ওই মামলায় অজ্ঞাত ৭/৮জনকে আসামি করা হয়েছে।
সাইদুর রহমান তার মামলায় উল্লেখ করেছেন, তার আপন ভাই সাইফুল ইসলাম বাবু (৩৪) যুবলীগ কর্মী। এলাকায় গ্রুপিং ও মত পার্থক্যের কারনে আব্দুল মান্নান মুন্নার সাথে বিরোধ চলে আসছিল। ১১ নভেম্বর যুবলীগের ৪৮তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে শহরের গরীব শাহ সড়কে এমপি কাজী নাবিল আহমেদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলনের প্রোগ্রামে তারা অংশ গ্রহণ করেন। এ ঘটনার জের ধরে গত ১২ নভেম্বর বিকেল সাড়ে ৪ টায় শ্যামনগর বাজারে আব্দুল মান্নান মুন্নার হুকুমে সাইফুল ইসলামের দোকানে হামলা চালিয়ে মারপিট করে। এ সময় দোকানের ক্যাশ বাক্স থেকে নগদ ৩০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।  ওই সময় সাইফুল ইসলাম গুরুতর জখম হন।
অপরদিকে, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল আজিজ একই রাতে একটি মামলা করেছেন। মামলায় আব্দুল আজিজ উল্লেখ করেছেন, ১২ নভেম্বর রাত আনুমানিক ৮টার দিকে তিনি যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পশ্চিম পাশে বেলতলা বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। এসময় এলাকার কিছুু লোক তাকে অপহরণের চেষ্টা করে। তাকে খুন করার উদ্দেশ্যে মাইক্রোতে ওঠানোর চেষ্টা করে। এসময় গ্রামবাসীর হস্তক্ষেপে তারা পালিয়ে যায়। এ সময় আব্দুল আজিজ প্রাণে রক্ষা পান। তিনি মামলায় আরো উল্লেখ করেন, সন্ত্রাসীরা আব্দুল আজিজের কাছ থেকে ৬৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। এর আগে সন্ত্রাসীরা আব্দুল আজিজের উপর হামলা চালিয়ে তার একটি পা কেটে ফেলে। বর্তমানে তিনি অনেকটা পঙ্গু জীবন যাপন করছেন। তার উপর হামলার একটি মামলা চলমান থাকায় সন্ত্রাসীরা মামলা প্রত্যাহার করার জন্য তাকে হুমকি দিতে থাকে। মামলা না তুলে নেয়ার কারনে তাকে অপহরণের চেষ্টা করা হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।
আব্দুল আজিজ মামলায় আসামি করেছেন শ্যামনগর গ্রামের বাদল, টিপু, বাবু, কওছার, ছাতিয়ানতলার দাউদ হোসনে রক্সি, জেলা পরিষদ সদস্য দৌলতদিহি গ্রামের মেহেদী হাসান মিন্টুসহ অজ্ঞাত আরো ৭/৮ জন। তবে, এই মামলার আসামিদের অভিযোগ মামলাটি সর্ম্পূন মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। তাদের দাবি, একটি মহল রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য আব্দুল আজিজকে দিয়ে এই মিথ্যা মামলাটি করিয়েছেন। তাদের দাবি, এই মামলায় আসামি করা হয়েছে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি ও আসন্ন ইউপি নির্বাচনে চুড়ামনকাটি ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী দাউদ হোসেন দফাদার ও সাবেক উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য মেহেদী হাসান মিন্টুকে। যা করায় এটি হাস্যকর মামলায় পরিণত হয়েছে।
এদিকে, সাইদুরের করা মামলার আসামিদের দাবি, একটি পক্ষ স্থানীয় ইউপি নির্বাচনের আগে রাজনীতি ঘোলাটে করতেই তাদের নামে এই মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান মুন্না জানান, আমার ছেলে ঘটনার আগে থেকেই ঢাকায় অবস্থান করলেও এ মামলায় তাকেও আসামি করা হয়েছে। এতেই বুঝা যাচ্ছে মামলাটি মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।
এদিকে স্থানীয়দের দাবি, নিজেদের উদ্দেশ্য হাসিল করতে দুটি পক্ষের কতিপয় নেতাকর্মী দলীয় নেতাকর্মীদের নামে মামলা করেছে। এতে হতাশা ও উৎকণ্ঠা সৃষ্টি তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে। তাদের মতে চুড়ামনকাটি হঠাৎ করে উত্তপÍ হয়ে উঠেছে। গোটা ইউনিয়ন জুড়েই চলছে দুটি গ্রুপে চাপা উত্তেজনা।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft