সোমবার, ২৫ জানুয়ারি, ২০২১
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
একটি কালভার্টে দুর্দশা ঘুচতে পারে আমতলা-সাহাপাড়া এলাকার মানুষের
মিনা বিশ্বাস
Published : Wednesday, 18 November, 2020 at 9:53 PM
একটি কালভার্টে দুর্দশা ঘুচতে পারে আমতলা-সাহাপাড়া এলাকার মানুষেরযশোর শহরের মোল্লাপাড়া আমতলা ও নীলগঞ্জ সাহাপাড়া এলাকার মানুষের প্রয়োজনে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহার হয়ে আসছে মধ্যবর্তী সংযোগ খালের বাঁশের সেতু। খালের দু’ পাড়ে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা না থাকা, ভাঙা পাড় ও টেকসই না হওয়ার কারণে এ সেতুর ওপর দিয়ে চলাচল বর্তমানে বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে। এলাকাবাসী বিভিন্ন সময়ে কালভার্টের দাবি জানিয়ে আসলেও এখনো তা আমলে নেয়া হয়নি। উদ্যোগী হয়নি বাঁশের সেতুটি সংস্কারে।  
মোল্লাপাড়া আমতলা ও নীলগঞ্জ সাহাপাড়া এলাকার মধ্যবর্তী শত বছরের পুরানো সংযোগ খালের বাঁশের সেতু দিয়ে প্রতিদিন শ’ শ’ মানুষের চলাচল। দু’এলাকার মানুষ বাজার, চিকিৎসা, অফিস- আদালত, স্কুল-কলেজে যাতায়াত করে থাকে। প্রতিদিন এ সেতু দিয়ে সাইকেল, মোটরসাইকেল ও বিভিন্ন ধরনের হালকা বাহন চলাচল করে। খালপাড় এলাকার বাসিন্দা জাহাঙ্গীর আলম ব্যক্তিগত উদ্যোগে বছর তিনেক আগে সেতুটি নির্মাণ করেন। বাঁশের খুঁটি ও পাটাতনের ওপর খোয়া, বালি ও সিমেন্টের প্রলেপ দিয়ে করা সেতুটি দু’ এলাকার মানুষের একমাত্র ভরসা। তবে, বর্তমানে এটি ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। অনেকটা ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করছেন দু’ এলাকার মানুষ। বিশেষ করে শিশু, বৃদ্ধ ও অসুস্থ মানুষের চলাচল দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে। দ্রুতই সংস্কার করা না হলে যেকোনো সময় ঘটতে পারে দুর্ঘটনা।
মোল্লাপাড়া আমতলা এলাকার বাসিন্দা শেখ হারুনুর রশিদ ফুলু বলেন, তিনি ১৯৯৫ সালে খালের ওপর একটি সাঁকো তৈরি করেন। বিভিন্ন সময়ে আরও অনেকেই ব্যক্তি উদ্যোগে এখানে সাঁকো নির্মাণ করেন। কিন্তু চাপ বেশি বলে টেকসই হয় না। পৌরসভার এক, দুই, চার ও নয় নাম্বার ওয়ার্ডসহ এ খাল দিয়ে বলতে গেলে শহরের অর্ধেক পানি ভৈরবে গিয়ে পড়ে। এখানে একটি কালভার্ট করা জরুরি। একই কথা বলেন মহসিন কবির ও শাহ আলম নামে দু’ বাসিন্দা।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft