রবিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২১
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
ভবিষ্যৎ চিন্তা করেই শিশু সন্তানকে হত্যা!
মা-বাবা আটক
এস এম রেজাউল ইসলাম, সাতক্ষীরা
Published : Saturday, 28 November, 2020 at 7:48 PM
ভবিষ্যৎ চিন্তা করেই শিশু সন্তানকে হত্যা!নানা রোগে আক্রান্ত ১৫ দিন বয়সী শিশুর ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত মা-বাবা পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যা করে লাশ বাড়ির সামনের সেফটিক ট্যাংকির মধ্যে ফেলে দেয়। পরে চুরি হয়েছে বলে প্রচার করতে থাকে। এ ব্যাপারে থানায় একটি ডিডিও করা হয়। কিন্তু, শেষ রক্ষা হয়নি। পুলিশি জেরায় বেরিয়ে আসে আসল তথ্য। শনিবার রাত ১টায় পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে। এ ব্যাপারে শিশুটির মা-বাবাকে আটক করা হয়েছে।
ঘটনাটি ঘটেছে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার হাওয়াখালি গ্রামে।
সাতক্ষীরা থানার ওসি আসাদুজ্জামান জানান, হাওয়াখালি গ্রামের সোগাহ হোসেন ও ফাতেমা দম্পতির ১৫ দিন বয়সী শিশু সন্তান সোহান হোসেন চুরি হয়েছে বলে বৃহস্পতিবার বিকেলে থানায় খবর দেয়া হয়। শুক্রবার দুপুরে সোহানের পিতা থানায় এ ব্যাপারে একটি জিডিই করেন। সাথে সাথে পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করে। তাদের সাথে যোগ দেয় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন-পিবিআই। তারা শিশুটির পিতা ও মাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে। তাদের স্বীকারোক্তিতে পুলিশ তাদের বাড়ির সেপটিক ট্যাংকির মধ্য থেকে শনিবার রাত ১টার দিকে সোহানের লাশ উদ্ধার করে।
সাতক্ষীরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মির্জা সালাহ উদ্দীন জানান, রাত ১টার দিকে সোহান হোসেনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ব্যাপারে তার মা-বাবাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা জানিয়েছে, সোহান জন্ডিস, রিকেট, নিউমোনিয়া, হার্টের সমস্যাসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিল। এসব কারণে বেশ চিন্তিত ছিলেন তারা। ভবিষ্যতে সোহানের আরও বড় সমস্যা হতে পারে যা দরিদ্র পিতা-মাতার পক্ষে মেনে নেয়া সম্ভব নয় মনে করেই তারা দু’জনে মিলে সোহানকে হত্যা ও লাশ গুম করার সিদ্ধান্ত নেয়।
মির্জা সালাহ উদ্দীন আরও জানান, মা ফাতেমা বেগমের সহায়তায় বাবা সোহাগ হোসেন শিশুটিকে মেরে বাড়ির সামনের সেফটিক ট্যাংকির ভেতরে ফেলে দেয়। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
উল্লখ্য, দু’বছর আগে ফাতেমার সাথে কলারোয়া উপজেলার সাহাপুর গ্রামের সোহাগ হোসেনের বিয়ে হয়। শ্বশুরবাড়িতে কিছুদিন থাকার পর পারিবারিক কলহের কারণে স্বামীকে নিয়ে তাকে আশ্রয় নিতে হয় নানির বাড়িতে। গত ১১ নভেম্বর তার একটি পুত্র সন্তান হয়।
এরপর শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে নিয়ে যান খুলনা মেডিকোল কলেজ হাসপাতালে। গত ২৫ নভেম্বর তারা সন্তানকে নিয়ে বাড়ি ফিরে আসে। বৃহস্পতিবার দুপুরে বাড়ির বারান্দায় ঘুমন্ত মায়ের পাশ থেকে শিশুটি হারিয়ে যায়। শিশুটির বাবা সোহাগ এ ঘটনায় থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করে।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft