শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২১
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
সুবিধামত খাস জমি সংকট, দুশো বাড়ির টাকা ফিরে যাওয়ার শঙ্কা
যশোরে ৪৫৫ ভূমিহীনের জন্য বাড়ি
দেওয়ান মোর্শেদ আলম
Published : Saturday, 28 November, 2020 at 11:11 PM
যশোরে ৪৫৫ ভূমিহীনের জন্য বাড়ি যশোরে জমি নেই, ঘর নেই এমন ৪শ’৫৫ পরিবারের জন্য খাস জমি ও সেমিপাকা সরকারি বাড়ি বরাদ্দ আসলেও সুবিধামত সব জমি সংকুলান হচ্ছে না। যে কারণে দুশো বাড়ি নির্মাণে বরাদ্দের টাকা ফিরে যাওয়ার শঙ্কা করছেন প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা। একই চিত্র দেশের ২২টি জেলাতেই। বাড়ি প্রতি ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা হিসেবে যশোরে বরাদ্দ ৭ কোটি ৭৮ লাখ টাকা আগামী দু’মাসের মধ্যে ব্যয় করে নির্মাণ কাজ শেষ করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। প্রয়োজনীয় খাস জমির খোঁজে ও মাপজোকে বিরামহীন মাঠে রয়েছেন ভূমি বিভাগ, গণপূত বিভাগ, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ ও প্রকল্পবাস্তবায়ন অফিসের কর্মকর্তাগণ।
‘বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই প্রতিশ্রুতির অংশ হিসেবে ২০১৮-১৯ অর্থ বছর থেকে দরিদ্রদের জন্য গৃহনির্মাণ করে দেয়ার প্রকল্প হাতে নেয়া হয়। এরপর ২০১৯-২০ অর্থ বছরে সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ জমি আছে এমন পরিবারকে গৃহ নির্মাণ করে দেয়া হয় সরকারিভাবে। এ ব্যাপারে মুজিব জন্মশত বর্ষে ২০২০-২১ অর্থ বছরে বৃহৎ কর্মসূচি হাতে নেয় সরকার।
এবার জমি বাড়ি কিছুই নেই এমন ভুমিহীন পরিবারকে পূনর্বাসনে দূর্যোগ সহনীয় গৃহ নির্মাণে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মাধ্যমে গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার কর্মসূচি শুরু হয়। এর আওতায় যশোর সদর উপজেলায় ৪শ’৫৫ টি পরিবারকে খাস জমি ও বাড়ি বরাদ্দ দেয়ার নির্দেশনা আসে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ন প্রকল্প-২ থেকে। ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য গৃহ প্রদান নীতিমালা তৈরি করে ২০২০। দূর্যোগ ও ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের যুগ্ম সচিব আবু বক্কর সিদ্দিকী  গত ১৪ অক্টোবর  যশোর জেলা প্রশাসকের কাছে  পত্র পাঠান। স্ব স্ব উপজেলার ভূমি সহকারী কমিশনারের মাধ্যমে টেকসই গৃহ নির্মাণ করার মত খাস জমি বাছাই করে কমপক্ষে ২ শতক জমি দিয়ে বাড়ি করে দেয়ার সিডিউল দেয়া হয়। দু’কক্ষ একটি বাথরুম ও একটি রান্না ঘরের সেমি পাকা বাড়ি (দেয়াল পাকা চিনের চাল) বিপরীতে এক লাখ ৭১ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে। আবার এই বাড়ি ১৯৮৮ সালের বন্যার বিপদ সীমার উপর পর্যন্ত মাটি ভরাট করে গৃহ নির্মাণের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। অনুমোদিত নকসা অনুযায়ী দেশের ২২টি জেলার ২০ হাজার ৩শ’ ৭৩টি পরিবারকে গৃহ দেয়ার জন্য ৩শ’৪৮ কোটি ৩৭ লাখ ৮৩ হাজার টাকা ছাড় দেয়া হয়েছে। আগামী ৩ মাসের মধ্যে নির্মাণ কাজ শেষ করতে জেলা প্রশাসককে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ভুমিহীন বাছাই সম্পন্ন হয়েছে, জমি শনাক্ত শেষের পথে। দ্রুতই নির্মাণ শুরু হবে।
এ ব্যাপারে যশোর জেলা প্রশাসককে সভাপতি, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালককে সদস্য সচিব, এছাড়া সদস্য করা হয়েছে গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলী, স্থানীয় সরকার বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী, জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, জেলা প্রশাসকের নিযুক্ত দুজন গন্যমান্য ব্যক্তি ও জেলা ত্রাণ ও পূনর্বাসন কর্মকর্তা।
এছাড়া উপজেলা পর্যায়েও কমিটি করা হয়। এই কমিটি ভূমিহীন বাছাই  সম্পন্ন করতে পারে সবার জন্য বাড়ি করে দেয়ার মত বিধি মোতবেক খাস জমি সংকুলান করতে পারছে না। যে কারনে বরাদ্দ পাওয়া ৪৫৫ পরিবার খাস জমিতে সরকারি বাড়ি পাবেন কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। সেক্ষেত্রে পরবর্তী নির্দেশনা কি তা এখনও পরিস্কার নয়। আবার প্রায় একই নকসার বাড়িতে প্রায় বরাদ্দ এক লাখ কমে যওয়ায় নির্মাণের মান নিয়েও সংশয় রয়েছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ফিরোজ আহমেদ ও তার কার্যালয়ের সহকারী প্রকৌশলী ফারুক হোসেন জানিয়েছেন, চলমান প্রকল্প নিয়ে তারা এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। বিশেষ করে নীতিমালা অনুযায়ী সুবিধামত জমি মিলছে না। নিচু জমিতে ঘর নির্মাণ করা যাবে না। ১৯৮৮ সালের বন্যার  বিপদ সীমার উপরে মাটি দিয়ে ভরাট করে নির্মাণ করতে বলা হয়েছে। আবার যে নকসায় বাড়ি করতে বলা হচ্ছে গত বছরের প্রকল্পে ২ লাখ ৯৮ হাজার টাকা বরাদ্দ ছিল। আবার এবারের প্রকল্পে বাড়ি প্রতি বরাদ্দ মাত্র ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। এরপরও এখন বড় সমস্যা, সুবিধামত খাস জমি মিলছে না। ভূমি অফিসারগণ প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাসহ প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা দিন রাত কাজ করছেন। আগামী ৩ মাসের মধ্যে নির্মাণ কাজ শেষ করার তাগিদ রয়েছে। বরাদ্দ অনুযায়ী ৪৫৫ ভূমিহীন পরিবারকে বাছাই করলেও সবার বাড়ি পাওয়া নিয়ে শংকা রয়েছে। ২৯০ টি বাড়ি করার মত জমি মিলেছে। বাকি দুশো বাড়ির টাকা ফেরত যেতে পারে। তবে পরিস্থিতি উত্তোরণের চেষ্টা করে চলেছেন তারা।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft