বুধবার, ২৭ জানুয়ারি, ২০২১
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
বেনাপোল পোস্টঅফিস চত্বরে শতাধিক ফেনসিডিলের বোতল উদ্ধারে হৈচৈ
অভিজিৎি ব্যানার্জী
Published : Tuesday, 1 December, 2020 at 10:47 PM
বেনাপোল পোস্টঅফিস চত্বরে শতাধিক ফেনসিডিলের বোতল উদ্ধারে হৈচৈযশোরের বেনাপোল পোস্ট অফিস চত্বরে অর্ধশত ফেনসিডিলের বোতল উদ্ধার ঘটনায় হৈচৈ শুরু হয়েছে। ফেনসিডিল বোতল ও  মাদক ব্যবসার সাথে নৈশ প্রহরী কাম ডিজিটাল পোস্ট উদ্যোক্তা মুসা কালিমুল্লাহ শাহিনের সংশ্লিষ্টতার তথ্যে তদন্ত শুরু করেছে ডাক বিভাগ।
এদিকে তার বিরুদ্ধে তদন্তে নামায় একজন ইন্সপেক্টরকে হুমকি দিয়েছেন শাহিন। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। স্থানীয় অনেকে জানিয়েছেন সরকারি এই অফিসটি রাতে মাদকসেবী ও মাদক বিক্রেতাদের নিরাপদ স্থানে পরিণত হয়েছে। এলাকার একটি রাজনৈতিক মহলের নাম ভাঙিয়ে চলছে ওই শাহিন। স্থানীয় দ্রুত ওই শাস্তি দাবি করেছেন।
স্থানীয় একাধিক সূত্রের তথ্যে, বেনাপোলের পোস্ট অফিসে সম্প্রতি এক ঝটিকা পরিদর্শনে যান যশোর ডাক বিভাগ পশ্চিমের ইন্সপেক্টর গোলাম সরোয়ার হোসেন। এসময় তিনি পোস্ট অফিস চত্বরে শতাধিক ফেনসিডিল বোতল উদ্ধার করেন। রাতে পোস্ট অফিস চত্বরে  ফেনসিডিল সেবন ও ব্যবসা চলে বলে তিনি তথ্য পান। এছাড়ার তার সাথে শাহিন সরাসরি জড়িত এমন তথ্যও উঠে আসে। এরপর তিনি ওই বোতলগুলো জিম্মায় রেখে আসেন এবং তদন্ত কাযক্রম শুরু করেন।
এদিকে বিষয়টি ফাঁস হয়ে পড়লে আরো তথ্য বেরিয়ে আসে শাহিনকে নিয়ে। বেনাপোল রোডে অবস্থিত পোস্ট অফিসের নৈশ প্রহরী শাহিন বিধির ব্যত্যয় ঘটিয়ে ই-সেন্টারের উদ্যোক্তার দায়িত্ব পান। এটা একেবারেই পোস্ট অফিসের নীতিমালা বিরোধী। সরকারি নীতিমালা পরিষ্কারভাবে লেখা আছে, কোন ব্যক্তি সরকারি প্রতিষ্ঠানের একাধিক পোস্ট দখল করে কাজ করতে পারবেন না। আগের কর্মকর্তাদের বিশেষভাবে ম্যানেজ করে এ ব্যক্তি এ পোস্ট অফিসের দুটি পদ আগলে রেখেছেন। সম্পত্তিতে তিনি তার স্ত্রীকেও এ পোস্ট অফিস উদ্যোক্তা করতে মরিয়া হয়ে পড়েছেন। একই সাথে একাধিক রুম ব্যবহার করে মাদক ব্যবসার নিরাপদ স্থান করে নিয়েছে।
গত সপ্তাহে বেনাপোলে এ পোস্ট অফিসের ভেতর থেকে শতাধিক ফেনসিডিলের বোতল উদ্ধারের ঘটনায় গোটা যশোর ডাক বিভাগে তুমুল হৈচৈ শুরু হয়। সম্প্রতি ধান্যখোলা ইডিএমসি বা চিঠিপত্র বন্টন কারক সোহরাবকে জাল স্ট্যাম্প ও জাল টিকিট বিক্রির অফার দেন এই শাহিন। কিন্তু সোহরাব রাজি হননি।
বেনাপোল পোস্ট অফিসের পোস্টমাস্টার জুলফিকার আলী ফেনসিডিলের বোতল উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন, বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে। শাহিনকে সরকারি অফিসে এ ধরনের কার্যকলাপ পরিহার করতে বলা হয়েছে। তিনি স্থানীয় রাজনৈতিক দলের লোকজনের নাম ভাঙিয়ে চলে। তার কাজে বাধা দিলে শায়েস্তা করার হুমকি দেন। এ ব্যাপারে যশোর ডাক বিভাগের সিনিয়র অফিসাররা খোঁজ খবর নিচ্ছেন।
বিষয়টি নিয়ে ইন্সপেক্টর সরোয়ার হোসেনের সাথে কথা বললে তিনি জানান, তিনি নিজের হাতে অনেকগুলো ফেনসিডিলের বোতল উদ্ধার করেছেন। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছেন। শাহিন মাদক ব্যবসার জড়িত এমন তথ্য আসছে স্থানীয় বিভিন্ন মহল থেকে। বিষয়টি নিয়ে তাকে সতর্ক করতে গেলে তার উপরে চড়াও হন। শাহিন স্থানীয় একটির সংগঠন দিয়ে তাকে দেখে নেয়ার হুমকিও দেন। তার বিরুদ্ধে মামলা করবেন বলেও শাসান।
এ ব্যাপারে যশোর ডিভিশনের ডেপুটি পোস্ট মাস্টার জেনারেল খন্দকার মাহবুব হোসেনের বক্তব্য নেয়ার জন্য ১ ডিসেম্বর রাতে ফোন দিলে তিনি জানিয়েছেন, রাতে তিনি কথা বলতে পারবেন না। সকালে কথা বলার জন্য বলেন।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft