বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
বাঘারপাড়া উপজেলা পরিষদ উপনির্বাচন
নৌকা ও ধানের শীষ মাঠে, আনারস কোর্টে !
চন্দন দাস, বাঘারপাড়া (যশোর)
Published : Thursday, 3 December, 2020 at 8:47 PM
নৌকা ও ধানের শীষ মাঠে, আনারস কোর্টে !আগামী ১০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে  প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন একদলের দু’ প্রার্থীসহ তিনজন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভিক্টোরিয়া পারভিন সাথী। একই দলের আনারস প্রতীক নিয়ে বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) প্রার্থী হয়েছেন জহুরপুর ইউনিয়নের দু’ বারের চেয়ারম্যান দিলু পাটোয়ারী। একইসাথে মাঠে জোর প্রচারণায় আছেন বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী ও উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক একাধিকবার নির্বাচিত সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শামছুর রহমান।
পোস্টার-লিফলেটসহ এ নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় আছে নানা অনুষঙ্গ। বেলা দু’টো বাজলেই বের হচ্ছে প্রচার মাইক। মাঝে মাঝে দেখা মিলছে প্রচার মিছিলও। আছে প্রার্থীদের ব্যস্ততা। এরই মধ্যে পুলিশ প্রশাসনের ব্যস্ততা বেড়েছে কয়েকগুণ। চলছে ভোটের নানা আয়োজন। এক কথায় ভোটের আয়োজন থেকে বাদ যাচ্ছে না কোন কিছুই। কিন্তু তারপরও ভোট দেয়ার যেন দৃশ্যত আগ্রহ নেই সাধারণ ভোটারদের। গ্রামাঞ্চলের ভোটাররা সরবে মুখ খুলতে চাচ্ছেন না প্রার্থীর পক্ষে কিংবা বিপক্ষে। এক প্রকার আতঙ্ক বিরাজ করছে ভোটারদের মনে। এর আগে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে এমন পরিস্থিতি দেখেননি এখানকার ভোটাররা। এবার ব্যতিক্রম। এর কারণও আছে।
ঘটনার সূত্রপাত গত ১৭ নভেম্বর নৌকা ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের পর পাল্টাপাল্টি মামলা-হামলা আর গ্রেপ্তার আতঙ্কের মধ্য দিয়ে।
গত ১৭ নভেম্বর রাত সোয়া নয়টার দিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী দিলু পাটোয়ারী নারিকেলবাড়িয়া থেকে ইন্দ্রা বাজারে এসে তার কর্মী সমর্থকদের সাথে কথা বলছিলেন। এসময় নৌকা প্রতীকের সমর্থক তরিকুল ইসলামের সাথে দিলুর তর্ক হয়। এক পর্যায়ে নৌকার সমর্থকেরা দিলু পাটোয়ারীকে আটকে রাখার চেষ্টা করেন। তখন দিলুর সমর্থকরা তাকে উদ্ধার করতে আসলে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় কমবেশি ১৫ জন আহত হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ১৮ নভেম্বর স্বতন্ত্র প্রার্থী দিলু পাটোয়ারী ও কয়েকজন আওয়ামী লীগ নেতাসহ ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন নৌকা প্রতীকের কর্মী ও ইন্দ্রা গ্রামের আবু জাফর মোল্লার ছেলে জাকির হোসেন। পরে ১৯ নভেম্বর একই ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান পৌর কাউন্সিলরসহ ২৫ জনের নাম উল্লেখ করে বাঘারপাড়া থানায় পাল্টা মামলা দায়ের করেন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী দিলু পাটোয়ারী। দু’টি মামলায় গ্রেপ্তারও হন নৌকা প্রতীকের তিন ও আনারস প্রতীকের চার কর্মী।
এরপর গত ২৯ নভেম্বর বাসুয়াড়ি ইউনিয়নের আলাদিপুর বাজারে নৌকা ও আনারস প্রতীকের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের দু’জন আহত হন। এ ঘটনায় ৩০ নভেম্বর পৃথক দু’টি মামলা হয়। মামলায় নৌকা প্রতীকের ১৯ ও আনারসের ৩৭ কর্মীকে আসামি করে মামলা দু’টি করেন যথাক্রমে নৌকা প্রতীকের কর্মী ওলিয়ার রহমান ও আনারস প্রতীকের পক্ষে স্থানীয় ইউপি সদস্য জাহিদ সরদার। দু’ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় আনারস প্রতীকের ৩০ কর্মীকে আটক করা হলেও নৌকা প্রতীকের তিন কর্মীকে আটক করা হয়। এতে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।
এ ব্যাপারে আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী দিলু পাটোয়ারী অভিযোগ করে বলেন, ‘দু’পক্ষের মামলা হলেও ৩০ নভেম্বরের মামলায় নৌকার পক্ষের আসামিদের আটক করা হচ্ছে না। এটা ষড়যন্ত্র। আমার জনপ্রিয়তা দেখে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ভয় পেয়ে আমার কর্মীদের চাপে রাখতে ভিন্ন পন্থা অবলম্বন করছেন। যা দৃশ্যমান। পুলিশের বিরুদ্ধে আমার কোনো অভিযোগ নেই। তবে কতিপয় পুলিশ কর্মকর্তা বিমাতাসূলভ আচরণ করছেন’।
তিনি বলেন, ‘ভয় দেখিয়ে কোনো লাভ নেই। আওয়ামী লীগের সব নেতা-কর্মী আমার সাথেই আছে। আনারস প্রতীকের কর্মীরা মামলা-হামলার ভয়ে ঘরে বসে থাকবেনা। ১০ তারিখে আনারস প্রতীকের বিজয় নিশ্চিত করেই আমরা ঘরে ফিরবো’।
এদিকে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ভিক্টোরিয়া পারভিন সাথীর সাথে সেলফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তবে তার দেবর ইউপি চেয়ারম্যান কামরুল ইসলাম টুটুল স্বতন্ত্র প্রার্থীর মামলা গ্রহণের বিষয়ে ওসিকে দায়ী করে বলেন নৌকার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে লাভ হবে না। নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত।
জানতে চাইলে বাঘারপাড়া থানার ওসি সৈয়দ আর মামুন বলেন, ‘কে কোন পক্ষে এটা আমাদের দেখার বিষয় না। ঘটনার সাথে যারা জড়িত আমরা তাদেরকেই গ্রেপ্তার করছি’। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে আমরা নিরপেক্ষভাবে কাজ করছি’।






সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft