সোমবার, ২১ জুন, ২০২১
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
ঢাকায় খাস জমি দেয়ার নামে ৮ লাখ টাকা হাতিয়েছে প্রতারক
অভিজিৎ ব্যানার্জী
Published : Friday, 4 December, 2020 at 9:49 PM
ঢাকায় খাস জমি দেয়ার নামে ৮ লাখ টাকা হাতিয়েছে প্রতারকঢাকা শহরে ৩ কাঠা করে দুটি খাস প্লট লিজ বরাদ্দ করিয়ে দেয়ার নামে যশোরের আরবপুরের এক ব্যক্তির কাছ থেকে ৮ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে এক প্রতারক। যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে চাকরি করা আরবপুরের আমিনুল ইসলাম বিপাকে পড়েছেন প্রতারক হুমায়ুন কবিরের এহেন প্রতারনায়। এ ব্যাপারে তিনি মামলা করে হুমায়ুন কবিরের বিরুদ্ধে রায় করিয়ে ওয়ারেন্ট করালেও কোনো অগ্রগতি পাচ্ছেন না। এ ব্যাপারে তিনি পুলিশের উপর মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
তথ্য মিলেছে, আরবপুর মাঠ পাড়া বাইপাস সড়কের আমিনুল ইসলামকে ঢাকা শহরে খাস জমি দেয়ার নামে নেতা নামধারী হুমায়ুন আট লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে গা ঢাকা দিয়েছেন। হুমায়ুন কবির কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার বড় কেশতুলাগ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে। বর্তমানে তিনি  ঢাকার উত্তরার ৭ নাম্বার সেক্টর এলাকার ২৯ নাম্বার রোডের ৫ নাম্বার বাসায় অবস্থান নিয়ে প্রতারণা করে যাচ্ছেন। তিনি এখন ফেরারি আসামি। নিজেকে তরুন লীগের কেন্দ্রীয় নেতা পরিচয় দিয়ে ঢাকা শহরে জমি কেনা বেচার ব্রোকার হিসেবে কাজ করেন। অনেককে চাকরি দেয়ার নাম করে টাকা হাতিয়ে পথে বসিয়েছেন। তাদের কয়েক জনকে মৃত্যুর মুখেও ফেলেছেন।
সূত্র জানায়, হুমায়ুন কবির যশোরের আমিনুল ইসলামের কাছ থেকে আট লাখ টাকা হাতিয়ে ঢাকা শহরে ভূমি মন্ত্রণালয় ও ভূমি সংস্কার বোর্ড থেকে ৩ কাঠা করে দুটি প্লট লিজ বরাদ্দ দেয়ার প্রলোভন দেখান। তিনি ২০১৪ সালের ৩০ জুন ৬ মাসের মধ্যে জমি লিজ না হলে টাকা ফেরত দেবেন মর্মে টাকা নেন। কিন্তু প্রতিশ্রুত সময়ে টাকা ফেরত না দেয়ায় তাগাদা করলে ২০১৫ সালের ১ ফেব্রুয়ারি ব্যাংকের একটি চেক দেন। চেকটি নগদ ক্যাশ করতে প্রাইম ব্যাংক যশোর শাখায় জমা দিলে চেকটি ডিজঅনার করা হয়। এরপর ১ আগস্ট তার নামে একটি মামলা করেন আমিনুল ইসলাম। এখন তিনি টাকা ফেরত দেয়া তো দূরের কথা বরং তাকে ও তার ছেলেকে হত্যার হুমকি দিয়ে চলেছে। এছাড়া তার চাকরিটুকু খেয়ে ফেলবে বলে হুমকি দিয়ে আসছে। এরপর ৪ বছর ধরে আইনি লড়াই চালিয়ে তার বিরুদ্ধে মামলায় রায় হয়েছে। কয়েকবার ওয়ারেন্ট হলেও আইন এর ফাঁক ফোঁকরের মাধ্যমে তিনি বার বার জামিন পাচ্ছে। অবশেষে এক পর্যায়ে মামলাটি সঠিকভাবে বিবেচনায় চূড়ান্ত রায়ও হয়। ওই মামলার নাম্বার ১৩০৫/১৫। মামলায় রায়ের তারিখ ২৭/০৭/২০১৯ সালে ২৭ জুলাই। তার ওয়ারেন্টসহ রায়ের কপিও অনেক আগেই আসামির ঠিকানা ও থানায় পৌঁছানো হলেও আসামি হুমায়ুন কবির সম্পূর্ণ পুলিশের ধরা ছোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছেন।
এ ব্যাপারে সরকারের উচ্চ মহলেরর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। তার অসাধু কার্যক্রম থেকে যাতে আমিনুল ইসলামের পরিবার বাঁচতে পারে সে আবেদন করেছেন।








সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft