শুক্রবার ২ ডিসেম্বর ২০২২ ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
                
                
☗ হোম ➤ রাজনীতি
১০ ডিসেম্বর: বিএনপির মুখোমুখি বিএনপি
ঢাকা অফিস:
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২২, ৩:৩৮ পিএম আপডেট: ১৫.১১.২০২২ ৩:৪০ পিএম |
আগামী ১০ ডিসেম্বর থেকে ঘিরে বিএনপির নেতারা এখন মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে। সারাদেশে মহাসমাবেশ শেষে শেষ মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে ঢাকায়। ঐদিন ঢাকায় বিএনপি যে মহাসমাবেশ করবে সেখান থেকে তাদের পরবর্তী লক্ষ্য কি হবে এ নিয়ে বিএনপির মধ্যে বিভক্তি দেখা দিয়েছে। বিএনপির কোনো কোনো নেতা বলছেন, ওখান থেকেই সরকারের পতনের লক্ষ্যে চূড়ান্ত কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে। ঢাকায় যারা আসবেন তারা বিভিন্ন জায়গায় অবস্থান করবেন, বিভিন্ন সড়ক দখল করে রাখা হবে এবং সরকারকে পতনে বাধ্য করা হবে। বিএনপির এই অংশে নেতারা বলছেন, ওই দিন থেকে সরকারকে অচল করে দেয়া হবে। ঢাকার পাঁচটি সড়কে তারা অবস্থান গ্রহণ করবেন এবং যতক্ষণ পর্যন্ত সরকার নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি মানবে না বা যতক্ষণ পর্যন্ত পদত্যাগে সম্মত হবে না ততক্ষণ পর্যন্ত এই অবস্থান চলবে। একই দিনে অন্যান্য রাজনৈতিক মিত্রদের ঢাকায় জমায়েত হতে বলা হয়েছে। বিএনপির এই অংশের নেতারা আশা করছেন যে, ঢাকায় ৫০ থেকে ৬০ লাখ লোক জড়ো হবে এবং এই এরকম একটি পরিস্থিতিতে ক্ষমতাসীন দল যদি বাধা দিতে চায় তাহলে পরে দেশে একটি অরাজক পরিস্থিতি তৈরি হবে এবং সেখানে সরকারের জন্য পরিস্থিতির মোকাবেলা করা কঠিন হয়ে পড়বে।
এরকম একটি চিন্তা ভাবনা পোষণ করছেন বিএনপির সিনিয়র নেতাদের মধ্যে বেশ কয়েকজন। বিশেষ করে ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাসসহ বেশ কয়েকজন নেতা এই মতামতে বিশ্বাসী। তারা মনে করছে যে, সরকারকে আর সময় দেওয়া যায় না। ডিসেম্বরের মধ্যেই তত্ত্বাবধায়ক সরকার এবং আগামী নির্বাচনের ব্যাপারে ফয়সালা করতে হবে। তাদের যুক্তি হলো যে সরকার এখন যথেষ্ট দুর্বল অবস্থায় রয়েছে, আন্তর্জাতিক পরিম-লে সরকারের সমর্থন কমে গেছে। তাছাড়া বিএনপির নেতারা মনে করছেন যে, জনগণও সরকারের ওপর অসন্তুষ্ট। কাজেই চূড়ান্ত পতনের লক্ষ্যে আন্দোলন করার এখনই সময়। তাদের মতামত হল আস্তে আস্তে যদি পরিস্থিতি সরকার নিয়ন্ত্রণ করে ফেলে তখন আর এই সুযোগ পাওয়া যাবে না। কাজেই যা আন্দোলন করার তা এখনই করতে হবে। কিন্তু লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, নজরুল ইসলাম খান সহ একাধিক নেতা মনে করছেন যে, এটিই হবে হঠকারী পদক্ষেপ। এর মাধ্যমে লাভের চেয়ে ক্ষতিই বেশি হবে। এভাবে রাস্তায় অবস্থান নিয়ে সরকারকে হটিয়ে দেওয়া যায় না। আন্দোলন করতে হবে ধাপে ধাপে।
বিএনপির এই অংশের নেতারা বলছেন যে, সারাদেশে সমাবেশ গুলোর মধ্য দিয়ে বিএনপির সাংগঠনিক শক্তি সংহত হয়েছে। এখন এই সংহত শক্তিকে কর্মসূচিতে রূপান্তর করতে হবে ধাপে ধাপে, কর্মসূচি করতে হবে। বিএনপির এই অংশে পরিকল্পনা হলো ১০ ডিসেম্বরের পর বিএনপি পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে বৈঠক করবে, তাদের মতামত নিবে এবং এরপর যুগপৎ কর্মসূচি গ্রহণ করবে এবং ধাপে ধাপে এই কর্মসূচি নিয়ে আগামী বছরের জুন-জুলাই নাগাদ অর্থাৎ ঈদের পর চূড়ান্ত আন্দোলনের প্রস্তুতি গ্রহণ করবে এবং সরকারের পদত্যাগের বাধ্য করার জন্য যা যা করণীয় সেটি করবে। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীররা মনে করছেন, এখনই যদি চূড়ান্ত ধাপের আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয় তাহলে সেই আন্দোলন ব্যর্থ হতে বাধ্য এবং এরপর বিএনপি আর ঘুরে দাঁড়াতে পারবে না। ফলে সরকার বিএনপিকে ছাড়াই বা বিএনপিকে নিয়ে নির্বাচন করার সুযোগ পাবে। এটি হবে হঠকারীতা। কিন্তু বিএনপি নেতারা বলছেন যে, এখন বিএনপির আন্দোলনের পক্ষের নেতারা বলছেন যে, আন্দোলন করার এখনই সময় এবং এখন যদি আন্দোলন না করা হয় তাহলে কখনোই আন্দোলন করা যাবে না। আর এরকম বাস্তবতায় শেষ পর্যন্ত বিএনপি কি করবে, সেটি দেখার বিষয়। ১০ ডিসেম্বরকে ঘিরে বিএনপি এখন নিয়ে এখন বিএনপির প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছে। 


গ্রামের কাগজ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন


সর্বশেষ সংবাদ
‘হ্যাটট্রিকের পথে’ ওবায়দুল কাদের
অপ্রচলিত মার্কেটে পোশাক রফতানিতে বাংলাদেশের চমক
আওয়ামী লীগের জন্য ১০ ডিসেম্বর একটি চ্যালেঞ্জিং সময়
ইবিতে পিলারের আঘাতে নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু
গুইমারা সেনা রিজিয়নে শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরের রজত জয়ন্তী নানা উদযাপিত
নওগাঁয় মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যুবক নিহত
পূরণ হচ্ছে স্বপ্ন, চরের মানুষের ভাগ্য ফেরাবে ‘ফেরি’
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
কাভার্ডভ্যান ঢুকে পড়ল হোটলে, নিহত ৫
১০ ডিসেম্বরকে ঘিরে বিএনপির ভয়ংকর পরিকল্পনা
দেশে আন্দোলন : জুয়ায় মত্ত তারেক
বেনাপোলে সোনালী ব্যাংকের ৩ কর্মকর্তা সাময়িক বরখাস্ত
দেশব্যাপি পুলিশের বিশেষ অভিযান শুরু
যশোরে ট্রেনে কাটা পড়ে যুবকের মৃত্যু
চৌগাছায় তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রকে মারপিট
আমাদের পথচলা | কাগজ পরিবার | প্রতিনিধিদের তথ্য | অন-লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য | স্মৃতির এ্যালবাম
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন | সহযোগী সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০২৪৭৭৭৬২১৮২, ০২৪৭৭৭৬২১৮০, ০২৪৭৭৭৬২১৮১, ০২৪৭৭৭৬২১৮৩ বিজ্ঞাপন : ০২৪৭৭৭৬২১৮৪, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
কপিরাইট © গ্রামের কাগজ সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft