শিরোনাম: উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে চট্টগ্রামের জয়       কোটচাঁদপুরে মহিলার নির্মাণ কাজে বাধা, তাড়িয়ে দেয়া হচ্ছে শ্রমিক       যশোরে ব্যাডমিন্টন খেলা নিয়ে যুবককে ছুরিকাঘাত       সরাসরি টিকা কেনায় সায়       যশোরের বারান্দীপাড়ায় এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা       কলেজ ছাত্রীকে অপহরণের ১০ দিন পর মামলা       বাঘারপাড়ায় ডিবির অভিযান, ৬ পিস ইয়াবাসহ দুই কারবারী আটক        নেগেটিব পজিটিব রঙ্গ!       মণিরামপুরের ‘সেই’ মাদ্রাসা সম্পর্কে খোঁজ নেয়ার নির্দেশ ডিসির       সোনা পাচার মামলায় আটক পঙ্কজ রিমান্ডে      
রোদ-বৃষ্টিতে নমুনা দিতে আসাদের দুর্ভোগ
ব্যক্তি উদ্যোগে ব্যবস্থা নিতে আগ্রহী কেউ কেউ
কাগজ সংবাদ :
Published : Sunday, 30 August, 2020 at 12:20 AM

ব্যক্তি উদ্যোগে ব্যবস্থা নিতে আগ্রহী কেউ কেউযশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা টেস্টের নমুনা দিতে আসা মানুষের দুর্ভোগ চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে। নমুনা সংগ্রহের স্থানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বসার কোনো ব্যবস্থা নেই। কোনো ছাউনির ব্যবস্থা নেই। এর ফলে রোদ-বৃষ্টিসহ দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার মধ্যে ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষার যন্ত্রণা ভোগ করতে হচ্ছে। কর্তৃপক্ষের আন্তরিকতা থাকলেও সরকারি বরাদ্দ না থাকায় নমুনা দিতে আসাদের নিরাপদ অপেক্ষালয় তৈরি করতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার দিলীপ কুমার রায়।
করোনা টেস্টের জন্যে সকাল সাড়ে ৮টার দিকে হাসপাতালের ‘ফ্লু‘ কর্ণারে লাইনে দাঁড়াতে হয়। সেখানে দায়িত্বপ্রাপ্ত ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে সরকার নির্ধারিত ফিস জমা দিয়ে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হওয়ার পর অপেক্ষা নমুনা দেয়ার জন্যে। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নমুনা নেয়ার কাজ শুরু হয়। নমুনা সংগ্রহের কাজ শেষ করতে পার হয়ে যায় দুপুর দু’টো। একটানা ৫ থেকে ৬ ঘন্টা দীর্ঘ অপেক্ষার কারণে মানুষের ভিড় জমে যায় সেখানে। এতে মানুষের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। অনেকে চরম অসুস্থ হয়ে পড়েন। শারিরিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্যে কোনো তদারকি না থাকায় সুস্থ মানুষও করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকির মধ্যে পড়ছেন।  
হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার দিলীপ কুমার রায় জানিয়েছেন, সরকারি ছুটি ব্যতিত প্রতিদিনই ৭০-৮০ জন ফ্লু-কর্ণারে গিয়ে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করার পর আইসোলেশন ওয়ার্ডের পূর্ব দিকে নির্ধারিত স্থানে গিয়ে নমুনা দিচ্ছেন। নানা সংকট ও সীমাবদ্ধতার মধ্যেও করোনা টেস্টের জন্যে নমুনা সংগ্রহের কাজ অব্যাহত রাখা হয়েছে।
ডাক্তার দিলীপ আরও জানান, হাসপাতাল অভ্যন্তরে খোলা কোনো জায়গা নেই। দক্ষ জনবলের চরম সংকট রয়েছে। নমুনা প্রদানকারীদের ফরম পূরণ করতে সতর্ক থাকতে হয়। যাতে ফরমের সাথে নমুনার কোনো গরমিল না হয়। এতে অনেক সময় লেগে যায়। ফলে নমুনা দিতে আসাদের অপেক্ষার পালা দীর্ঘ হয়। ইচ্ছা থাকলেও নমুনা দিতে আসাদের জন্যে নিরাপদ অপেক্ষালয়ের ব্যবস্থা করা যায়নি। এক্ষেত্রে সরকারি বরাদ্দ না পাওয়াটাই মূল কারণ।
এদিকে, বিষয়টি মানবিক বিবেচনায় দুর্ভোগ নিরসনে জনস্বার্থে বিত্তবানরা এগিয়ে আমতে পারেন বলেও মত দিয়েছেন অনেকে। এব্যপারে কথা হয় যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন ও জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক আজাদুল কবীর আরজুর সাথে। তারা জানিয়েছেন, যেহেতু সরকারি বরাদ্দ নেই সেহেতু উদ্যোগ নিলে তারাও এগিয়ে আসবেন। সকলের ঐক্যবদ্ধ চেষ্টায় ছোট ধরনের এ কাজটি করা খুব সহজ ব্যপার বলে মনে করছেন সচেতন মহল।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft