শিরোনাম: বাবার স্বীকারোক্তিতে উদ্ধার হলো নবজাতকের লাশ       করোনার মধ্যেই ডেঙ্গুর হানা       জিনুসির দাম বাড়চে, কমচে মানসির দাম !       ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তির রেকর্ড       নড়াইলের ইজিবাইকচালক রোহান হত্যার রহস্য উন্মোচন, তিন খুনি আটক       মা-বাবার পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত ম্যারাডোনা       দু’প্রার্থীর দিনভর গণসংযোগ       ফ্যাক্টর হতে পারেন নতুন ভোটাররা        সুনাম কুড়িয়েছে ‘বৃষ্টির রান্নাঘর’       ২৫ বছর পর রাস্তা পেল ঘুরুলিয়ার ১০ পরিবার      
কলকাতায় করোনার কোপ পড়েছে পূজার আয়োজনে
কাগজ ডেস্ক :
Published : Monday, 19 October, 2020 at 3:26 PM
কলকাতায় করোনার কোপ পড়েছে পূজার আয়োজনেকলকাতার কুমারপাড়ায় চলছে শেষ মুহূর্তে দুর্গা মূর্তির কাজ। কোথাও চলছে প্রতিমার ওপরে রং-তুলির শেষ আঁচড় কোথাও আবার প্রতিমার আবরণী সেজে ওঠার পালা।
ফলে আগমনীর তিনদিন আগে চূড়ান্ত ব্যস্ত পশ্চিমবাংলার মৃৎশিল্পীরা।
করোনায় কোপ পড়েছে ভারতের অর্থনীতিতে। বাদ পড়েনি কলকাতাও। তাই করোনার কোপ পড়েছে কলকাতার দুর্গাপূজার বাজেটও। অনেক বারোয়ারি পূজা কমিটি পূজার বাজেট নিয়ন্ত্রণে রাখতে কমিয়ে ফেলেছে মণ্ডপের সাজ-সরঞ্জাম থেকে প্রতিমার উচ্চতা। ফলে কলকাতার অধিকাংশ কুমারপাড়ায় এবারে ছোট দুর্গা প্রতিমার চাহিদা বেশি। আর এতে বিপাকে পড়েছেন মৃৎ শিল্পীরা।
সাধারণত ছোট প্রতিমার চাহিদা থাকে বাড়ির পূজায়। তবে এবার ছোট প্রতিমা চাহিদা কলকাতা বারোয়ারি পূজা কমিটিগুলোয়। বিগত বছরগুলোতে যেখানে ১২ থেকে ১৫ ফুট উচ্চতার প্রতিমার চাহিদা সব থেকে বেশি ছিলো, করোনার কারণে এবার সেখানে ছয় থেকে সাত ফুটের প্রতিমার চাহিদা।
মৃৎশিল্পীদের দাবি, কম বাজেটে জেরে ছোট প্রতিমায় সেভাবে এবছর লাভের মুখ দেখতে পাচ্ছেন না তারা। সাধারণত ছোট প্রতিমা বানানো খাটুনি বেশি। আবার বিক্রি হয় কম দামে। তাই লাভের মুখ দেখতে পাচ্ছেন না তারা।
কলকাতার বিখ্যাত প্রতিমাশিল্পী গণেশ পাল বলেন, ফিনিশিং টাচ চলছে। এবারের বারোয়ারি পূজা কমিটিগুলোর চাহিদা কম বাজেটের প্রতিমা। সে কারণেই প্রতিমার উচ্চতা কমেছে। গত বছরের যে প্রতিমা কমপক্ষে ২০ থেকে ২৫ হাজার রুপি গিয়েছিল সেই প্রতিমা এবার ১০ হাজার মধ্যে চাইছে। অথচ এবারে প্রতিমা সম্পূর্ণ করতে অর্থাৎ খড়, মাটি, রং, আবরণীর দাম অনেক বেশি। অপরদিকে ছোট মূর্তির কারণে দামও পাচ্ছি না। কোনোভাবে মানিয়ে নিচ্ছি। তবে অর্থনীতির প্রভাব এই বছর পূজার আয়োজনে বা প্রতিমার উচ্চতায় পড়লেও এর প্রভাব পূজার চারদিনে পরবে না এমনই দাবি কলকাতায় বারোয়ারি পূজা কমিটিগুলোর।  কলকাতার এক বারোয়ারি পূজা কমিটির সম্পাদক রমেশ দাস বলেন, সাধারণের পকেটে টাকা নেই। তাই পূজার বাজেট কম। তার ওপর মানুষ এবছর সেভাবে মণ্ডপে মণ্ডপে ঘুরবে না। তাই করোনাকালে পূজার আয়োজন থেকে প্রতিমার উচ্চতা সবই কম। তবে এর প্রভাব পূজার চারদিন মানুষের মধ্যে পড়বে না। পুরোপুরি উৎসবের আমেজে বহাল থাকবে শহরে।  
‘এবছরটা কোনোভাবে পার হয়ে যাবে। তবে আগামীবছর যেন সব দুর্ভোগ দূর হয়। কেটে যায় যেন করোনার কালো মেঘ। ’ এটাই প্রার্থনা কলকাতা মৃৎশিল্পী থেকে শুরু করে পূজা কমিটিসহ উৎসবমুখর বাঙালির।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft