দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
শিরোনাম: ধানের শীষের প্রার্থী হচ্ছেন কে?       যশোরে দেড় লাখ টাকা ছিনতাই ও ছুরিকাঘাত ঘটনায় মামলা       কৃষির মাধ্যমে সমবায়কে এগিয়ে নিতে হবে : এমএ মান্নান       যশোরে ভেড়া প্রকল্প বাস্তবায়নে ৫০ কোটি টাকার প্রস্তাব        শরণখোলায় হরিণের ১৯টি চামড়াসহ দু’জন আটক       পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচন ৫ ফেব্রুয়ারি       মোংলা বন্দরে ক্ষতির শিকার হচ্ছে বিদেশি জাহাজ, আসতে অনীহা প্রকাশ       উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে চৌগাছার জয়       মেয়র প্রার্থীদের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ       শেষ ওয়ানডে খেলতে চট্টগ্রামে বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ      
পুলিশ কন্সটেবল ইমরান মামলায় যা বলেছেন
অভিজিৎ ব্যানার্জী
Published : Wednesday, 13 January, 2021 at 10:52 PM, Count : 1197
পুলিশ কন্সটেবল ইমরান মামলায় যা বলেছেন১১ জানুয়ারি রাতে শহীদ মিনারের ভেতরে অনাকাঙ্খিত ঘটনার বিবরণ তুলে ধরেছেন পুলিশ কন্সটেবল ইমরান হোসেন।
এ ব্যাপারে মামলায় ইমরান উল্লেখ করেছেন, তিনি যশোর পুলিশ লাইন্সের ফোর্স। বর্তমানে যশোর জেলা প্রশাসক বাংলো পুলিশ গার্ডে কর্মরত। কনস্টেবল নাম্বার ১৭৭২। ১১ জানুয়ারি গার্ডে তিনি ছাড়াও কর্মরত কন্সটেবল (নাম্বার ২১৬১) জান্নাত আলী মিয়া সরকারি অস্ত্র পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার জন্য অস্ত্রের তেল, কাপড়, ফুলথ্রু ও বিভাগীয় পোশাক ভান্ডার থেকে পোশাক সামগ্রী সংগ্রহের জন্য রওনা দেন। ওই সময় পুলেরহাট গার্ডে কর্মরত কন্সটেবল (২১৫৬) আশরাফুল ইসলাম মামুন কন্সটেবল ইমরান হোসেনকে মোবাইলে ফোন দিয়ে তার অবস্থান জানতে চান।
তিনি জানান, তার সাথে থাকা জান্নাত আলী পুলিশ লাইন্সে যাচ্ছেন। আশরাফুল ইসলাম মামুন তাদের দু’জনকে পুরাতন কসবা শহীদ মিনারের কাছে দাঁড়াতে বলেন। রাত পৌনে ৮ টায় ইমরান হোসেন ও জান্নাত আলী শহীদ মিনারের ভেতরে প্রবেশ করে ছবি তুলতে থাকেন।  হঠাৎ ৪ জন ছেলে এসে তাদেরকে ‘তোরা কোথা থেকে এসেছিস এবং কেন ছবি তুলছিস’ বলে জিজ্ঞাসাবাদ করলে ইমরান হোসেন ও জান্নাত আলী পুলিশ সদস্য পরিচয় দেন। এছাড়া আইডি কার্ড প্রদর্শন করেন। এসময় তাদের দু’জনকে ওই চার যুবক কিল ঘুষি ও মারধর করতে থাকে। এরপর বিভিন্ন স্থানে ফোন করলে ৮/১০টি মোটরসাইকেলযোগে ২০/২৫ জন এসে পুলিশ সদস্য দু’জনকে গালিগালাজ করতে থাকে। এক পর্যায়ে আশরাফুল ইসলাম মামুন ঘটনাস্থলে এসে দেখে তাদেরকে ফেরানোর চেষ্টা করেন। আশরাফুল ইসলামের উপর চড়াও হয়ে তাকেও মারপিট করে।
ইমরান হোসেন আরো বলেছেন, অজ্ঞাতনামা আসামিরা বিপু নামের ব্যক্তির নির্দেশে ইমরান হোসেনকে জোরপূর্বক একটি মোটরসাইকেলে তুলে মারধোর করতে করতে কাঁঠালতলার দিকে নিয়ে যায়। সেখানে অজ্ঞাত আরো ৮/১০ জন লোক ছিল। ইমরান হোসেন মামলায় বলেছেন, অজ্ঞাত ২জন তার পকেটে থাকা নগদ সাড়ে ৪ হাজার টাকা তুলে নেয়। এসময় জান্নাত আলী ও আশরাফুল ইসলাম মামুন জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯সহ কোতোয়ালি মডেল থানায় ঘটনার বিষয়ে সংবাদ দেন। সংবাদ পেয়ে পুলিশদের উদ্ধারের জন্য কাজীপাড়া কাঁঠালতলাসহ আশপাশ এলাকায় অভিযান শুরু করে। পুলিশের তৎপরতায় ইমরান হোসেনকে একটি মোটরসাইকেলে তুলে অন্যত্র নেয়ার সময় পুরাতন কসবা শহীদ মিনারের পাশে পাকা রাস্তার উপর পৌঁছালে ও পলাতক আসামিরা অবস্থান করতে দেখে রাত ৯ টার পর অভিযানরত পুলিশ ইমরান হোসেনকে আটককৃত তপু ও ইসলামুল হকের দখল থেকে উদ্ধার করেন। এরপর ইমরান হোসেনকে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা প্রদান করা হয়। 




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft