মতামত
শিরোনাম: লোহাগড়ায় ভাইয়ের হাতে পুলিশ ইন্সপেক্টর খুন       হামলা মারপিট ও ছিনতাই ঘটনায় মামলা, আটক ১       লিগ শুরু নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি       আইপিএলে আজ মুখোমুখি হবে রাজস্থান ও চেন্নাই       টেস্ট ভেন্যুতে টাইগাররা       সাকিবকে বসানোর ইংগিত ম্যাককালামের       শিরোপা জয়ের স্বপ্ন ম্লান রিয়াল মাদ্রিদের       লক্ষ্মীপুরে জাল টাকা-ইয়াবাসহ ভুয়া পিএস গ্রেফতার       গাজীপুরে হেফাজতের আমির দুই ভাইসহ গ্রেপ্তার       সুপার লিগ নিয়ে ফুটবল বিশ্বে ঝড়      
নারী অধিকার আন্দোলনের অগ্রপথিক আয়শা খানম
মাহমুদা রিনি
Published : Saturday, 16 January, 2021 at 11:39 PM, Count : 305
নারী অধিকার আন্দোলনের অগ্রপথিক আয়শা খানমসভাপতি, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ (কেন্দ্রীয় কমিটি)। ০২ জানুয়ারি, ২০২১ শনিবার ভোরে তিনি মৃত্যু বরণ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। (ইন্না-লিল্লাহ ওয়াইন্না ইলাইহে রাজেউন)
আমার দেখা আয়শা আপা--
মহিলা পরিষদের সাথে যুক্ত হওয়ার পর প্রথম কবে কেন্দ্রীয় প্রোগ্রামে ঢাকায় গিয়েছি মনে নেই তবে সেই প্রথম আয়শা আপাকে কাছ থেকে দেখা, তাঁর বক্তব্য শোনা। এর আগে টিভিতে দেখেছি বিভিন্ন বিষয়ে, বিশেষ করে নারী অধিকার নিয়ে কথা বলতে। আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্ব ও বাচনভঙ্গি তখনও মনে দাগ কেটেছে।  তারপর যতবার কেন্দ্রীয় প্রোগ্রামে গিয়েছি, মনের ভিতর একটাই আকাঙ্খা থেকেছে আপার বক্তব্য কখন শুনতে পাবো। আয়শা আপা বক্তব্য রাখবেন তো কয়েকশো মানুষের অডিয়েন্স পিনপতন নীরবতায় চুপ করে আছে। ঘড়ির কাঁটায় ঘন্টা পার হলেও কখনো কেউ ধৈর্য হারায়নি, বরং মন্ত্রমুগ্ধের মতো শুনছে সবাই। দৃঢ় কণ্ঠস্বর, শিল্পীত বাচনভঙ্গি এবং অসাধারণ সময়োপযোগী স্থান-কাল-পাত্রের গুরুত্বপূর্ণ বিশ্লেষণ আমাদেরকে অভিভূত করেছে। সৌভাগ্য মানি আমরা যারা আয়শা আপার অনলবর্ষী বক্তৃতা শোনার সুযোগ পেয়েছি। বুকের ভিতর এখনো বাজে আপার সেই অমৃতবাণী-- "হেঁটেছি অনেক পথ, যেতে হবে আরো বহুদূর "। মায়ের মতো মমতাময়ী অথচ অসাধারণ এক পাÐিত্যপূর্ণ ব্যক্তিত্ব, যাঁর দিকে মুগ্ধ দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকতে হয়, ছোঁয়া যায় না। যাঁর মুখনিঃসৃত ভাষণে শরীরে শিহরণ লাগে, শিরদাঁড়া সোজা হয়ে যায়। তাঁর উপস্থিতি সারাদেশে ছড়িয়ে থাকা অসংখ্য কর্মী, সদস্যের মনে আশার সঞ্চার ঘটায়, আমাদের প্রিয় মানুষ, প্রাণের মানুষ আয়শা আপা তাঁর প্রাণপ্রিয় সংগঠন ছেড়ে, অসংখ্য নেতা-কর্মী, সদস্য, গুণগ্রাহী সবাইকে ছেড়ে চিরবিদায় নিলেন। মহিলা পরিষদ পরিবার শোকাহত। সারাদেশ শোকাহত। আমরা তাঁর রুহের মাগফেরাত কামনা করি।
আয়শা খানম জন্মগ্রহণ করেন নেত্রকোনা জেলার গাবড়াগাতি গ্রামে ১৯৪৭ সালের ১৮ অক্টোবর। পাকিস্তান আমলে হামিদুর রহমান শিক্ষা কমিশন বাতিলের দাবিতে ১৯৬২ সালের ছাত্র আন্দোলনে যুক্ত হওয়ার মধ্য দিয়ে তিনি রাজনীতিতে পা রাখেন। এরপর  উনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান এবং মহান মুক্তিযুদ্ধ সহ সকল প্রগতিশীল আন্দোলনের সক্রিয় সংগঠক ছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় রোকেয়া হল ছাত্র সংসদের সহসভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৭১ সালে ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি হিসেবে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষে ঢাকায় শিক্ষার্থীদের সংগঠিত করতে নামেন তিনি। এপ্রিল মাসের শেষদিকে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে তিনি আগরতলা যান। সেখানে কমিউনিস্ট পার্টি পরিচালিত শরণার্থী শিবির ও মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্প ক্রাফটস হোস্টেলে ওঠেন। মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিতে যারা ভারতে আসতেন, তাদের এক অংশের সাময়িক আবাসস্থল ছিল ক্রাফটস হোস্টেল। সেখানে মুক্তিযোদ্ধা ও শরণার্থী শিবির গুলোতে স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের মনোবল অটুট রাখা ও প্রণোদনা জোগাতেন তিনি। এছাড়াও আগরতলায় প্রাথমিক চিকিৎসা সেবার উপর প্রশিক্ষণও নেন তিনি। এরপর আগরতলার প্রতিটি ক্যাম্পে গিয়ে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা সহায়তা দিতে আত্মনিয়োগ করেন।
ছাত্র প্রতিনিধি হিসেবে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বক্তৃতা দিয়েছিলেন আয়শা খানম। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকেই নিজেকে অসা¤প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক নারী অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে যুক্ত করেন তিনি। পরবর্তীতে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় পাকবাহিনী ও তাদের দোসরদের নির্যাতনের শিকার নারীদের পুনর্বাসন এবং শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সহায়তার কাজও করেন।
শুরু থেকেই বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন আয়শা খানম। প্রথমে সাংগঠনিক সম্পাদক তারপর সহসাধারণ সম্পাদক এবং দশক কাল আগে সভাপতি নির্বাচিত হয়ে আমৃত্যু সেই পদে ছিলেন।
আজ ভাবলে অবিশ্বাস্য মনে হচ্ছে, দুর্লভ ব্যক্তিত্বের অধিকারী, মহিলা পরিষদের সংগ্রামী কর্ণধার, নারী অধিকার আদায়ের লড়াকু সৈনিক, সারাদেশে কয়েক লক্ষ মহিলা পরিষদ সদস্যের আদর্শ পথিকৃৎ আমাদের শ্রদ্ধেয় আয়শা আপা আর নেই! মাত্র কয়েক মাস আগে আমরা মহিলা পরিষদের আরেক সংগ্রামী নেতা, দৃঢ়চেতা সংগ্রামী ব্যক্তিত্ব রাখী দাস পুরকায়স্থ, আমাদের প্রিয় রাখীদিকে হারিয়েছি। সেই শোক কাটিয়ে ওঠার আগেই আমাদের ছেড়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমালেন বেগম রোকেয়ার যোগ্য উত্তরসূরী, কবি সুফিয়া কামাল এর হাতে গড়া সৈনিক আয়শা খানম।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft