জাতীয়
শিরোনাম: যশোর কারাগারে সংক্রমণ বৃদ্ধি        তৃণমূলে আলোর পথ দেখাচ্ছে শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব       আদালতের নির্দেশকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে আগরহাটি অবৈধ হামজা ব্রিক্স চলছে       সরকার স্বীকৃত গোয়ালদহ হাটটি ভাঙতে দুষ্টু চক্রের অপতৎপরতা        যশোরে দু’কলেজ ছাত্রীকে পিটিয়ে জখম        টিকা গ্রহণের পরও ফেরকরোনায় আক্রান্ত ডা. রিজভী        বোমা বিস্ফোরণে স্কুলছাত্র নিহতের ঘটনায় আরও দু’জন আটক       স্বল্পমূল্যে করোনা ভাইরাস শনাক্তে ‘সাইবারগ্রিন পদ্ধতি’ উদ্ভাবন যবিপ্রবি’র       মোবাইলে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ শুভেচ্ছা       করোনার মধ্যে স্কুল খোলা নিয়ে জরিপ      
স্বপ্নের নীড়ে ৬৬ হাজার ভূমিহীন
ঢাকা অফিস
Published : Saturday, 23 January, 2021 at 4:43 PM, Update: 23.01.2021 11:17:52 PM, Count : 250
স্বপ্নের নীড়ে ৬৬ হাজার ভূমিহীনমুজিববর্ষ উপলক্ষে ৬৬ হাজার ১৮৯ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার জমি ও ঘর উপহার পেলেন। এতে তাদের চিরায়ত স্বপ্ন পূরণ হলো। তারা হাতে পেলেন স্বপ্নের পাকা বাড়ির এক একটা চাবি।
এই ঘর প্রদান অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বললেন, মুজিববর্ষের সব থেকে বড় উৎসব এটি। যে উৎসবে ৬৬ হাজার ১৮৯ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর প্রদান করা হলো। এতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মা শান্তি পাবে।
শনিবার গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। এদিন দেশের ৪৯২ উপজেলার এই বিশাল সংখ্যক পরিবারকে পাকাঘর হস্তান্তর করেন তিনি।
দেশের ৪৯২টি উপজেলা থেকে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, উপকার ভোগী এবং জনপ্রতিনিধি ও রাজনীতিবিদরা এতে সংযুক্ত হন। প্রধানমন্ত্রী কর্মসূচির উদ্বোধনের পর নিজ নিজ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তারা প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে গৃহহীনদের হাতে জমি ও বাড়ির দলিল তুলে দেন।
সরকার প্রধান উদ্বোধনী বক্তব্য শেষে দেশের বেশ কয়েকটি উপজেলার উপকারভোগীরা শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সূত্র জানায়, প্রতিটি পরিবারকে দুই শতাংশ জমি এবং দুই কক্ষ বিশিষ্ট ঘর দেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে আরও এক লাখ পরিবারকে ঘর ও জমি দেওয়া হবে। তালিকাভুক্ত প্রায় নয় লাখ পরিবারের মধ্যে প্রথম দফায় জমিসহ ৬৬ হাজার ১৮৯টি ঘরের মালিকানা বুঝিয়ে দেওয়া হলো। দুই শতক জায়গার উপর নিয়ে দুইটি শোবার ঘর, রান্নাঘর ও বাথরুম। ইটের দেয়াল, উপরে টিনের চাল। আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর প্রতিটি ঘরের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে এক লাখ ৭৫ হাজার টাকা।
যশোরের আট উপজেলায় এক হাজার ৭৩টি পরিবারকে জমিসহ নতুন ঘর দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে শনিবার প্রথম ধাপে ৬৬৬টি পরিবারকে জমি ও ঘর প্রদান করা হলো। বাকি ৪০৭ পরিবারকে দ্রুত জমিসহ ঘর হস্তান্তর করা হবে বলে প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।
প্রথম পর্যায়ে যশোর সদর উপজেলায় ২৯০টি, ঝিকরগাছায় ১৯টি. চৌগাছায় ২৫টি, মণিরামপুরে ১৯৯টি, অভয়নগরে ৫৭টি, কেশবপুরে ১২টি ও শার্শা উপলোয় ৫০টি জমিসহ ঘর বুঝে পেয়েছেন সুবিধাভোগীরা।
বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক ফয়জুল হক বলেন, প্রধানমন্ত্রী সারাদেশে ভূমি ও গৃহহীন পরিবারকে ঘরের চাবি ও জমির দলিল হস্তান্তর করেছেন। তারই অংশ হিসেবে বাগেরহাট জেলার নয়টি উপজেলায় ৪৩৩টি পরিবার এ ঘর পাচ্ছে।
কুষ্টিয়ার ৬টি উপজেলার ১৫৭টি পরিবার শেখ হাসিনার উপহার জমিসহ দুই কক্ষ বিশিষ্ট ঘর পেয়েছেন। উপকারভোগীদের এসব ঘরের চাবি, জমির কাগজ বুঝিয়ে দেন জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা।
জেলা প্রশাসন থেকে জানায়, আশ্রয়ন প্রকল্প-২ প্রথম ধাপে কুষ্টিয়া জেলার ১৫৭টি গৃহহীন পরিবারের মধ্যে সদর উপজেলায় ১টি, মিরপুর উপজেলায় ৫৬টি এবং ভেড়ামারা উপজেলায় ১০০টি ঘর দেওয়া হয়েছে।
চুয়াডাঙ্গা জেলায় জমি ও ঘর পেয়েছে ১৩৪ গৃহহীন পরিবার। চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠান থেকে ভূমি ও ঘরহীনদের জমির দলিল ও ঘরের চাবি হস্থান্তর করা হয়। জেলার চারটি উপজেলার মধ্যে সদরের ৩৪, আলমডাঙ্গার ৫০, দামুড়হুদার ৩২ ও জীবননগরের ১৮ পরিবারকে দেওয়া হয় আধাপাকা নতুন ঘর।
চুয়াডাঙ্গা ডিসি নজরুল ইসলাম সরকার বলেন, এক হাজার ১৩১ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ঘর ও জমি দেওয়া হবে। মুজিববর্ষের মধ্যেই নির্ধারিত ভূমিহীন ও গৃহহীনরা ঘর পাবেন। শুরুতে দেওয়া হয়েছে ১৩৪ পরিবারকে।
নওগাঁ জেলা প্রশাসক হারুন-অর-রশীদ বলেন, জেলায় ‘ক’ ও ‘খ’ শ্রেণির গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারের সংখ্যা ৮ হাজার ৪৯৩টি। প্রথম পর্যায়ে জেলার এক হাজার ৫৬টি পরিবারকে দুই শতাংশ খাস জমি বন্দোবস্ত পূর্বক গৃহ প্রদান করা হচ্ছে।
মুন্সীগঞ্জের ছয়টি উপজেলার ৫০৮ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার শনিবার ঘর পেয়েছে।
মুজিববর্ষ উপলক্ষে জয়পুরহাট জেলায় ১৬০টি পরিবারকে মাঝে জমি ও গৃহ প্রদান করা হয়েছে।
রাঙামাটির ডিসি মামুনুর রশিদ জানান, রাঙামাটির ভূমিহীন ও গৃহহীন ২৬৮টি পরিবারকে ঘরবাড়ি নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে।
দিনাজপুর জেলার ১৩টি উপজেলায় তিন হাজার ২২টি পরিবারকে ঘরের চাবি বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।
টাঙ্গাইল জেলার ১২টি উপজেলার ৬০৭টি পরিবার আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর কবুলিয়ত দলিলসহ নব-নির্মিত বাসগৃহ পেয়েছেন বলে টাঙ্গাইলের ডিসি ড. মো. আতাউল গণি জানিয়েছেন।
বরিশাল জেলার ভূমি ও গৃহহীন এক হাজার নয়টি পরিবারকে মাথা গোজার জন্য ঘর দিয়েছে সরকার।
পঞ্চগড় জেলায় ১ হাজার ৬৮ গৃহহীন পরিবারকে সেমিপাকা ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে শনিবার।
নাটোর জেলার ৫৫৮টি পরিবার দুই শতক জমিসহ একটি করে আধাপাকা বাড়ির মালিক হলেন শনিবার।






« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft