দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
শিরোনাম: চিরবিদায় নিলেন চিত্রনায়ক ওয়াসিম       মানবতার ফেরিওয়ালাদের দেখা নেই       এক সপ্তায় চালু হচ্ছে যমেক হাসপাতালের আইসিইউ       হাজার হাজার মানুষের লাশ কাটা গোবিন্দও লাশ হলেন       ডাক্তার সেজে ওটির সামনে রোগী দেখেন সহকারী ফিরোজ       যশোরে সাড়ে সাত হাজারের বেশি পণ্য হোম ডেলিভারি দেবে চাল ডাল ডটকম       খাজুরায় জুয়াড়ীদের ধরতে পুলিশি তৎপরতা, জুয়ার কোটে অভিযান       মেডিকেলে ভর্তিতে যশোরে ভ্যানচালকের মেয়ের অভূতপূর্ব সাফল্য       হেফাজতে ইসলাম জামায়াতে ইসলামীর বি টিম : হানিফ       প্রেমিকার আপত্তিকর ছবি ইন্টারনেটে দেয়ায় যুবক গ্রেফতার      
৪২ বাঘ মারার বন্দুক দেখলেন বিজিবি মহাপরিচালক
আকবর কবীর, শ্যামনগর (সাতক্ষীরা)
Published : Wednesday, 3 March, 2021 at 11:03 PM, Update: 03.03.2021 11:37:22 PM, Count : 893
৪২ বাঘ মারার বন্দুক দেখলেন বিজিবি মহাপরিচালকএশিয়ার বিখ্যাত বাঘ শিকারী পচাব্দী গাজীর ঐতিহাসিক সেই রয়েল বেঙ্গল টাইগার শিকারের বন্দুকটি দেখতে সাতক্ষীরার শ্যামনগরে হেলিকপ্টারে উড়ে এলেন বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল সাফিনুল ইসলাম। তিনি হেলিকপ্টার থেকে নেমে সরাসরি শ্যামনগর থানায় যান। এসময় তাকে স্বাগত জানান সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান ও নীলডুমুর ১৭ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল ইয়াসিন চৌধুরী। এরপরে তিনি শ্যামনগর থানায় রাখা ঐতিহাসিক বন্দুকটি দেখেন।
বিখ্যাত বাঘ শিকারী পচাব্দী গাজীর বাড়ি গাবুরা ইউনিয়নের সোরা গ্রামে। এই বন্দুক দিয়ে তিনি ৪২টি রয়েল বেঙ্গল টাইগার হত্যা করেছিলেন। এছাড়া, গাছাল ও মাঠাল পদ্ধতিতে আরও ১৫টি বাঘ শিকার করেছিলেন তিনি। তাঁর বাঘ শিকারের মোট সংখ্যা ৫৭। মানুষখেকো এইসব বাঘ হত্যার জন্য পচাব্দী গাজী বিভিন্ন সময়ে পুরস্কৃত হয়েছেন। তৎকালীন ব্রিটিশ সরকার পচাব্দী গাজীকে বেঙ্গল টাইগার নামে অভিহিত করেছিল। পচাব্দী গাজীর মৃত্যুর পর তাঁর ব্যবহৃত বন্দুকটি উত্তরাধিকার সূত্রে পুত্র আবুল হোসেন পাওয়ার পরে বন্দুকটি রিনিউ না করার কারণে শ্যামনগর থানার অস্ত্রাগারে দীর্ঘ কুড়ি বছর ধরে পড়ে আছে। ঐতিহাসিক এই বন্দুকটি দেখার জন্য বিজিবি মহাপরিচালক এদিন শ্যামনগরে সফরে আসেন।
এ সময় তিনি বিজিবির অফিসার ও সৈনিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, সীমান্ত রক্ষায় তাদেরকে আরও তৎপর হতে হবে। মাদক, নারীপাচার ও চোরাচালানের ব্যাপারে কোনো ছাড় দেয়া হবে না।

পচাব্দী গাজীর বাঘ শিকারের বীরত্বগাঁথা
পচাব্দী গাজী সোরা গ্রামের এক ঐতিহ্যবাহী শিকারী পরিবারে ১৯২৪ সালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। সবাই তাকে পচাব্দী গাজী নামে চেনেন। তাঁর প্রকৃত নাম আব্দুল হামিদ গাজী। স্বল্পশিক্ষিত মানুষটি ছিলেন রোগা-পাতলা। পিতা মেহের গাজী, পিতামহ ইসমাইল গাজী ছিলেন খ্যাতনামা শিকারী। মেহের গাজী ৫০টি বাঘ শিকার করেছিলেন। ১৯৪১ সালে মাত্র ১৭ বছর বয়সে খুলনা জেলার পাইকগাছা থানার ‘গোলখালির সন্ত্রাস’ নামে পরিচিত একটি নরখাদক বাঘ হত্যা করার মাধ্যমে পচাব্দী গাজীর শিকারী জীবন শুরু। শিকারের জন্য উত্তরাধিকার সূত্রে তিনি লাভ করেন পিতার ডাবল বেরেল মাজল-লোডিং বন্দুকটি। পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খান ও বাংলার সে সময়ের গভর্নর মোনায়েম খাঁ এবং জার্মান চ্যান্সেলরের সুন্দরবন পরিদর্শনে তিনি গাইড হিসেবে কাজ করেন এবং পুরস্কৃত হন। এছাড়া তিনি নেপালের প্রয়াত রাজা মাহেন্দ্র ও তাঁর ছেলে প্রয়াত বীরেন্দ্রকে নিয়ে শিকার অভিযানে যান। তিনি জীবনে অনেকগুলো নামি-দামি সার্টিফিকেট ও স্মারক লাভ করেন।
পশু শিকারে তাঁর বুদ্ধিমত্তার খ্যাতি ছড়িয়ে পড়লে তৎকালীন বনকর্মকর্তার উদ্যোগে ১৯৫৫ সালে তিনি বনবিভাগের অধীনে বনপ্রহরীর কাজে যোগদান করেন। একাজে যোগদানের পরই শুরু হয় হিংস্র বাঘের সঙ্গে তাঁর বিচিত্র লড়াইয়ের রোমহর্ষক জীবনের এক নতুন অধ্যায়। তিনি সরকারের বনবিভাগের বৈধ শিকারীর সার্টিফিকেট নিয়ে সুন্দরবনের বাওয়ালি, মাওয়ালি, মাঝি ও জেলেদের জীবনরক্ষায় অবতীর্ণ হন মুক্তিদাতার ভূমিকায় এবং রক্ষা করেন অজস্র শ্রমিকের প্রাণ। তাঁর এ কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ তৎকালীন পাকিস্তান সরকার ১৯৬৮ সালে তাঁকে ‘সনদ-ই-খেদমত’ জাতীয় পুরস্কারে ভূষিত করেন। পচাব্দী গাজীর বাঘ শিকার করার কৌশল ছিল অন্যদের থেকে আলাদা। বাঘকে বশীভূত করার উদ্দেশ্যে তিনি অলৌকিক পদ্ধতির পরিবর্তে আত্মোদ্ভাবিত বিভিন্ন কৌশল, গভীর ধীশক্তি ও প্রযুক্তির আশ্রয় নিতেন। তিনি পাগমার্ক দেখে বাঘের আকৃতি অনুধাবন করতে পারতেন। তাছাড়া পদচ্ছাপ দেখে পশুর শ্রেণি ও তার গতিবিধি নির্ণয়েও তিনি দক্ষ ছিলেন। বাঘের গতিবিধি চিহ্নিতকরণে তিনি কখনও দিন-রাত পর্যবেক্ষণে থাকতেন। তিনি নিরস্ত্র অবস্থায়ও হিংস্র প্রাণিদের সঙ্গে লড়েছেন। বাঘিনীর ডাক, গাছ কাটার শব্দ কিংবা পাতা সংগ্রহের শব্দ নকল করে তিনি বাঘকে প্রলুব্ধ করতেন। জঙ্গলে কল পেতে কিংবা ১৫ হাত উঁচু মাচান তৈরি করেও তিনি শিকার করতেন। শরৎ, হেমন্ত ও বসন্তের পূর্ণিমা-অমাবস্যা হচ্ছে বাঘের প্রজনন সময়। স্থানীয় ভাষায় একে বলে ‘স্যাঁড়াসাঁড়ির কোটাল’। এসময় পচাব্দী গাজী বাঘিনীর ডাক নকল করে মিলনোন্মত্ত বাঘকে হত্যা করতেন। পচাব্দী গাজীর বাঘ শিকারের আরও দুটি পদ্ধতি হলো ‘গাছাল’ ও ‘মাঠাল’। গাছাল হলো গাছে চড়ে শিকার, আর মাঠাল হলো জঙ্গলের ভিতর চলতে চলতে শিকার। মাঠাল পদ্ধতিতে বাঘ শিকার করে তিনি একটি দোনলা বন্দুক পুরস্কার পান।
সাতক্ষীরার বুড়িগোয়ালিনী ফরেস্ট রেঞ্জে ‘আঠারোবেকি’ এলাকায় ‘টোপ’ পদ্ধতিতে তিনি যে বাঘটি হত্যা করেন সেটি ছিল সুন্দরবনের শিকারের ইতিহাসে দীর্ঘতম বাঘ, প্রায় ১২ ফুট দীর্ঘ। এরপর ‘তালপট্টির সন্ত্রাস’ নামে খ্যাত বাঘ শিকার ছিল পচাব্দী গাজীর জীবনের ৫৭তম ও শেষ শিকার। ৫৭টি রয়েল বেঙ্গল টাইগার শিকার করে তিনি সুন্দরবনের ইতিহাস হয়েছেন এবং শ্রেষ্ঠ শিকারির খেতাব নিয়ে ১৯৯৭ সালে মারা যান।




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft