দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
শিরোনাম: চিরবিদায় নিলেন চিত্রনায়ক ওয়াসিম       মানবতার ফেরিওয়ালাদের দেখা নেই       এক সপ্তায় চালু হচ্ছে যমেক হাসপাতালের আইসিইউ       হাজার হাজার মানুষের লাশ কাটা গোবিন্দও লাশ হলেন       ডাক্তার সেজে ওটির সামনে রোগী দেখেন সহকারী ফিরোজ       যশোরে সাড়ে সাত হাজারের বেশি পণ্য হোম ডেলিভারি দেবে চাল ডাল ডটকম       খাজুরায় জুয়াড়ীদের ধরতে পুলিশি তৎপরতা, জুয়ার কোটে অভিযান       মেডিকেলে ভর্তিতে যশোরে ভ্যানচালকের মেয়ের অভূতপূর্ব সাফল্য       হেফাজতে ইসলাম জামায়াতে ইসলামীর বি টিম : হানিফ       প্রেমিকার আপত্তিকর ছবি ইন্টারনেটে দেয়ায় যুবক গ্রেফতার      
হুমকিতে বাড়ি ছেড়েছেন অন্তঃসত্ত্বা নারী
পাঁচ লাখ টাকায় হালসার নারী কেলেংকারী ধামাচাপার চেষ্টা
কাগজ সংবাদ
Published : Wednesday, 7 April, 2021 at 10:31 PM, Count : 289
পাঁচ লাখ টাকায় হালসার নারী কেলেংকারী ধামাচাপার চেষ্টাপাঁচ লাখ টাকা ছড়িয়ে যশোরের হালসা বাজার পাড়ার এক যুবক তার নারী কেলেংকারী ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছেন। স্থানীয় একটি রাজনৈতিক মহল ওই টাকার সিংহভাগ নিয়ে সব দিক রক্ষার দায়িত্ব নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। অন্যদিকে পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ ও ঘটনা ফাঁস করায় ভুক্তভোগী অন্তঃসত্ত্বা নারী ও তার পরিবারকে নানামুখি হুমকি দেয়া হচ্ছে। হুমকির মুখে এখন ওই অন্তঃসত্ত্বা নারী বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র অবস্থান করছেন।
এ ঘটনা নিয়ে এলাকায় চরম অসন্তোষ চলছে। বিষয়টি আমলে নিয়ে তদন্ত ও জড়িত যুবকের শাস্তি দাবি করেছেন এলাকার জনপ্রতিনিধি, মুক্তিযোদ্ধা ও শান্তিপ্রিয় মানুষ।
হাসাপাতাল, স্থানীয় সূত্র ও সরেজমিনে তথ্য মেলে, যশোর সদর উপজেলার হালসা বাজারপাড়ার ইসমাইল হোসেনের ছেলে জাহিদুল ইসলাম জাহিদ তার মুরগি খামারের কর্মচারী পতেঙ্গালী এলাকার এক নারীর সাথে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। কাজ করার সুবাদে হত দরিদ্র পরিবারের ওই নারীকে বিয়েসহ নানা প্রলোভন দেখিয়ে দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তোলেন জাহিদ। এক পর্যায়ে ওই নারী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। লোকলজ্জার ভয়ে জাহিদুলের কাছে কাকুতি মিনতি জানায় তাকে বিয়ে করার জন্য। এসময় জাহিদুল তাকে বলে, ‘নাটক করো না, ওটা নষ্ট করে দাও।’ এ সময় আইনের আশ্রয় নেয়ার জন্য ওই নারী তার নিকটজনসহ যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অন্তঃসত্ত্বা পরীক্ষা করান। হাসপাতাল থেকে বিষয়টি প্রমাণিত হয়। গত ৮ মার্চের পরীক্ষায় ওই নারী ৬ সপ্তাহের অন্তঃসত্ত্বা বলে জানান ডাক্তার। বিষয়টি নিয়ে নারীর পরিবার দুঃশ্চিন্তায় পড়লে স্থানীয়দের শ্মরণাপন হন। এসময় এলাকায় ঘটনাটি জানাজানি হলে মেয়ের বাড়িতে জাহিদুলের লোকজন এসে হুমকি দিয়ে যায়। তারা ঘটনাটি চেপে যেতে বলে। জাহিদুলের ভাই বিদেশ ফেরত বাবুলসহ কয়েকজন এলাকায় হম্বিতম্বি করে মেয়ের পরিবারের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি করে।
এ ঘটনায় দৈনিক গ্রামের কাগজে একটি তথ্যবহুল সংবাদ প্রকাশিত হয় গত ৩ এপ্রিল। ওই সংবাদ প্রকাশিত হলে জাহিদুল ইসলাম ও তার লোকজন নানামুখি ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন ভুক্তভোগী নারী ও তা পরিবারে সদস্যদের। এ  চক্রে যোগ দেন স্থানীয় এক যুবলীগ নেতা। তিনি ও জাহিদ চক্রের লোকজনের ভয়ে এবং অপতৎপরতায় অন্তঃসত্ত্বা ওই নারী বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে আত্মগোপনে রয়েছেন। নতুন করে তথ্য এসেছে ঘটনা ধামাচাপা দিতে অভিযুক্ত জাহিদুল ইসলাম ৫ লাখ টাকা ছড়িয়েছেন। ওই টাকা লেনদেনে এক যুবলীগ নেতার নাম প্রচার হচ্ছে। এ ব্যাপারে স্থানীয়রা দৈনিক গ্রামের কাগজের প্রতিবেদককে আরো তথ্য দিলে ৬ এপ্রিল আবারো সরেজমিনে খোঁজ খবর নেয়া হয়।
ওই নারীর বৃদ্ধা মা ও বৃদ্ধ বাবা জানান, তারা গরীব মানুষ, কার কাছে ন্যায় বিচার চাইবেন। তার মেয়ের সর্বনাশ করেছে জাহিদুল ইসলাম। মেয়ে এখন অন্তঃসত্ত্বা। জাহিদ পক্ষের লোকজন হুমকি দিয়ে গেছে। ভয়ে মেয়ে বাড়ি ছেড়ে চলে গেছে। সে এখন কোথায় রয়েছে তাদের জানা নেই। জাহিদুল ও তার লোকজনের কারণে মেয়ের ভবিষ্যৎ নিয়েও তিনি দুঃশ্চিন্তায় রয়েছেন। জাহিদুলের লোকজন কয়েকবার বাড়িতে এসেছিল। ঘটনা কাউকে না জানাতে বলে গেছে। তারা মুখে মাস্ক লাগিয়ে আসায় কাউকে চিনতে পারেননি। শুধু আহসান নামে একজনকে চিনেছিলেন। এছাড়া মেয়ের ব্যাপারে খোঁজখবর নিতে স্থানীয় মেম্বার আব্দুল ওয়াহাব বাড়িতে এসেছিলেন।
এ ব্যাপারে দেয়াড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান গ্রামের কাগজকে জানিয়েছেন, জাহিদুলের অপকর্ম ও নারী কেলেংকারীর ব্যাপারে তিনি খোঁজখবর নিয়েছেন। ওই ওয়ার্ডের মেম্বার আব্দুল ওয়াহাবকে মেয়ের বাড়িতে পাঠানো হয়েছিল। তথ্য মিলেছে, ঘটনা সত্য। জাহিদুলের লালসার শিকার মেয়েটি এখন বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে। ওই মেয়েটি এখন কোথায় তার পরিবারের লোকজনও জানেন না। বিষয়টি নিয়ে তিনি খোঁজ খবর নিচ্ছেন। মেয়ের পরিবার হত দরিদ্র। তাদের ন্যায় বিচার দিতে হবে। এছাড়া জাহিদুল শাস্তি পাক এটাও তিনি চান। এ ব্যাপারে আইনের আশ্রয় নিলে চেয়ারম্যান হিসেবে ভুক্তভোগী ও তার পরিবারকে সার্বিক সহায়তা করা হবে বলেও জানান তিনি।
মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার জানিয়েছেন, জাহিদুলই সর্বনাশ করেছে মেয়েটির। মেয়ের সাথে ও তার পরিবারের সাথে কথা হয়েছে। মেয়েটির ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে হাসপাতালে। জাহিদুল ওই নারীকে লালসার শিকার বানিয়েছে। তিনি নিজে খোঁজ খবর নিয়ে সত্যতা পেয়েছেন। স্থানীয় একটি চক্র প্রায় ৩ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে জাহিদুলের পক্ষ নিয়েছে। মেয়ে পরিবারের পক্ষে কথা বলায় এবং পত্রিকায় বক্তব্য দেয়ায় তিনিও একটি মহলের চাপের মুখে রয়েছেন। তিনি অভিযুক্ত জাহিদুলের কঠোর শাস্তি দাবি করেন। জাহিদুলের অপরতৎপরতার শিকার  অন্তঃসত্ত্বা মেয়েটি এখন নিখোঁজ। কঠিন সময় পার করছে ওই নারী ও তার পরিবারের সদস্যরা। তাদের পাশে দাঁড়ানো উচিৎ আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাসহ প্রশাসনকে।
এ ব্যাপারে দেয়াড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহবায়ক আরিফুল ইসলাম মানিক জানিয়েছেন, এলাকার একটি মেয়ের উপর জাহিদুল যে অবিচার করেছে এর বিচার হওয়া জরুরি। টাকা ছড়িয়ে জাহিদুল সব চাপা দেবে এটা হতে পারে না। দরিদ্র বলে মেয়ে বিচার পাবে না,  তাকে বাড়ি ছাড়া করা হবে এটা খুবই জঘণ্য কাজ। তিনি এর যথাযথ তদন্ত ও অভিযুক্ত জাহিদুলের শাস্তি দাবি করেন।
এদিকে, বক্তব্য নেয়ার জন্য অভিযুক্ত জাহিদুল ইসলামের ০১৭১৭-১১৫১৮২ এই নাম্বারে কয়েক দফা ফোন করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft