দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
শিরোনাম: খুলনা করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু       বাংলাদেশ চায় রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তনে জাতিসংঘ স্পষ্ট রোডম্যাপ তৈরি করুক       মারা গেলেন ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আলতাফ হোসেন       কখনও পরমাণু যুদ্ধে জড়ানো যাবে না : যৌথ বিবৃতিতে পুতিন ও বাইডেন       বৃষ্টি আরও দুদিন হতে পারে       রাজধানীতে দেশীয় অস্ত্রসহ কিশোর গ্যাংয়ের ৮ সদস্য গ্রেফতার       চট্টগ্রামে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ১৮ মামলার আসামি গুলিবিদ্ধ        রাজশাহী মেডিকেলে আরও ১০ জনের মৃত্যু       চট্টগ্রামে করোনায় আরও দুইজনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৬৯       জয়পুরহাটে করোনায় ৭৪ জন আক্রান্ত       
সরকারি কর্মজীবন শেষ করলেন ডাক্তার দিলীপ কুমার রায়
কাগজ সংবাদ
Published : Tuesday, 11 May, 2021 at 10:08 PM, Update: 11.05.2021 10:10:57 PM, Count : 388
সরকারি কর্মজীবন শেষ করলেন ডাক্তার দিলীপ কুমার রায়সরকারি চাকরির বর্ণাঢ্য জীবন সমাপ্ত করলেন যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার দিলীপ কুমার রায়। ১৯৮৮ সালের ২৯ জুন তিনি চাকরিতে যোগ দিয়েছিলেন। আগামী ১৪ মে থেকে তিনি অবসরোত্তর ছুটিতে যাবেন।
সরকারি চাকরি জীবন সমাপ্ত উপলক্ষ্যে হাসপাতালের সভাকক্ষে আয়োজন করা হয় স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানের। সহযোগী ও অর্থোপেডিক বিভাগের প্রধান গোলাম ফারুকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন যশোর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডাক্তার মহিদুর রহমান, সিভিল সার্জন ডাক্তার শেখ আবু শাহীন, বিএমর যশোরের সভাপতি ডাক্তার একেএম কামরুল ইসলাম বেনু, হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট আব্দুর রহিম মোড়ল, সহযোগী অধ্যাপক অজয় কুমার সরকার, ডাক্তার ইলা মন্ডল, সহকারী অধ্যাপক দেবাশিষ দত্ত, বিএমএ যশোরের দপ্তর সম্পাদক গোলাম মোর্তুজা, উপসেবা তত্ত্বাবধায়ক ফেরদৌসী বেগম, নার্সেস এসোসিয়েশনের নেত্রী তহমিনা পারভীন, তৃতীয় শ্রেণি কর্মচারি সমিতির সভাপতি শাহাজান আলী এবং চতুর্থ শ্রেণি কর্মচারি সমিতির সভাপতি আবুল কালাম আজাদ।
আবাসিক মেডিকেল অফিসার আরিফ আহমেদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্মৃতিচারণ করে বক্তারা বলেন, নির্লোভ ও সজ্জন ব্যক্তি হিসেবে ডাক্তার দিলীপ কুমার রায়ের সুপরিচিতি রয়েছে। সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে তিনি তিন দশকের বেশি সময় লাখো মানুষের চিকিৎসাসেবা দিয়েছেন। তিনি একজন দক্ষ প্রশাসনিক কর্মকর্তা হিসেবে অত্যন্ত দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন যশোর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ডাক্তার, নার্স ও বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী।
ডাক্তার দিলীপ কুমার রায় যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তত্ত্বাধায়ক হিসেবে এক বছর তিন মাস ২৬ দিন দায়িত্ব পালন করলেন। ২০২০ সালের ১৯ জানুয়ারি তিনি যোগদান করার তিন মাসের মাথায় দেশে করোনা মহামারি শুরু হয়। হাসপাতালে সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রেখে মানুষকে সঠিক চিকিৎসা সেবা প্রদানের জন্য ডাক্তার, নার্সসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যসেবীদের নিয়োজিত রাখতে সক্ষম হয়েছেন। করোনা দুর্যোগ মোকাবিলা সরাসরি অংশ নিয়ে স্বপরিবারে আক্রান্ত হয়েছিলেন। সুস্থ হয়ে আবারও করোনা যুদ্ধে অংশ নিয়েছেন।
ডাক্তার দিলীপের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় হাসপাতালে চালু হয়েছে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিসিইউ)। প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে কেন্দ্রীয় প্লান্টের মাধ্যমে অক্সিজেন সরবরাহ, হাসপাতালের মূল ভবনে চতুর্থতলা সম্প্রসারণ, দু’টি ল্যাপারোস্কপি মেশিন সংযোজনসহ অপারেশন থিয়েটার আধুনিকায়ন, হৃদরোগে আক্রান্তদের উন্নত চিকিৎসা নিশ্চিতে ২৮ শয্যার করোনারি কেয়ার ইউনিটের জন্য ডাক্তার প্রয়োজনীয় ডাক্তার ও নার্স পদায়নের ব্যবস্থা করেছেন। একইসাথে ওই ভবনটি চতুর্থতলা সম্প্রাসরণ করে আরও ৩০ শয্যায় রোগী সেবার জন্য অনুমোদনসনহ প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ নিয়ে এসেছেন। সাপের কামড়ের শিকার মানুষের জন্য বিনামূল্যে এন্টিভেনম ইনজেকশনের মাধ্যমে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছেন ডাক্তার দিলীপ।
এছাড়াও, হাসপাতালের পুরাতন ভবনসহ পরিত্যক্ত আটটি ভবন অপসারণ করে নতুন ভবন নির্মাণ কাজের প্রক্রিয়াও শুরু করে গেছেন। তার প্রস্তাবে সরকার হাসপাতালে বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য পৃথক একটি ভবন নির্মাণ অনুমোদন করেছে। সার্বিক দিক বিবেচনায় ডাক্তার দিলীপ কুমার রায় যশোরবাসীর উন্নত চিকিৎসাসেবা প্রদানের জন্য কর্মদক্ষতার সবটুকু শ্রম দিয়েছেন।
ডাক্তার দিলীপ কুমার রায় খুলনার ডুমুরিয়ার বাসিন্দা গণেশ চন্দ্র রায়ে জেষ্ঠ্য পূত্র। তিনি জন্মগ্রহণ করেন ১৯৬২ সালের ১৬ মে। ১৯৭৭ সালে ডুমুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও ১৯৭৯ সালে খুলনা দৌলতপুরের বিএল কলেজ এইচএসসি পাশ করেন। ১৯৮৬ সালে তিনি বরিশালের শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করেন। ১৯৮৮ সালের ২৯ জুন তিনি নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার বুড়িরচর ইউনিয়ন সাব সেন্টারে সহকারী সার্জন হিসেবে সরকারি কর্মজীবন শুরু করেন। সরকারি আদেশে ১৯৮৯ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর তিনি মেডিকেল অফিসার পদে যশোরের মণিরামপুর উপজেলার নেহালপুর সাব সেন্টারে যোগদান করেন। ২০০১ সালের ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত মণিরামপুর ও কেশবপুরের বিভিন্ন স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত থেকে চিকিৎসা সেবা দিয়েছেন। কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আবাসিক মেডিকেল অফিসার পদে দায়িত্ব পালন করাকালীন তিনি পদন্নোতি পান। ২০১৫ সালের ১৪ জুন তিনি মেহেরপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা পদে যোগদান করেন। ২১ জুলাই একই পদে তিনি যশোরের কেশবপুর উপজেলায় যোগদান করেন। এরপর মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা হিসেবে প্রায় দু’বছর দায়িত্ব পালন করেন। পদোন্নতি পেয়ে ঝিনাইদহ ইনস্টিটিউট অব হেলথ্ টেকনোলজিতে (আইএইচটি) সহকারী পরিচালক পদে যোগ দেন। ২০১৭ সালের ১০ সেপ্টেম্বর চুয়াডাঙ্গার সিভিল সার্জন পদে যোগদান করেন। এরপর মাত্র ২০ দিনের ব্যবধানে অর্থাৎ পহেলা নভেম্বর তিনি যশোরের সিভিল সার্জন হিসেবে যোগদান করেন।
দায়িত্ব ও কর্তব্যের প্রতি নিষ্ঠা, সততা ও কর্মদক্ষতার ধারাবাহিকতা রক্ষাকারী ডাক্তার দিলীপ কুমার রায়কে ২০১৯ সালের ৯ সেপ্টেম্বর উপ-পরিচালক পদে পদোন্নতি দিয়ে ইনসিটু সিভিল সার্জন হিসেবে যশোরেই পদায়নের আদেশ দেয় সরকার। সর্বশেষ গত ৮ জানুয়ারি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় তাকে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক পদে নিয়োগ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে।
ডাক্তার দিলীপের নেতৃত্বে মাতৃস্বাস্থ্য সেবায় সর্বোন্নত সেবা প্রদান করায় ২০১৭ ও ২০১৮ সালে সিভিল সার্জন কার্যালয়, যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, চৌগাছা, ঝিকরগাছা, মণিরামপুর ও কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স জাতীয় পর্যায়ে পুরস্কার অর্জন করে। এছাড়াও ২০১৯ ও ২০২০ সালে তিনি হেলথ মিনিস্টার পুরস্কার অর্জন করেন।
ডাক্তার দিলীপ কুমার রায়ের স্ত্রী ডাক্তার অঞ্জলী রায় যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অ্যানেসথেসিওলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক হিসেব কর্মরত রয়েছেন। তার পূত্র ডাক্তার দিপঙ্কর রায় খুলনা মেডিকেল কলেজে কর্মরত ও কন্যা দেবজানী রায় এইচএসসিতে অধ্যায়নতরত।
ডাক্তার দিলীপ কুমার রায় তার অনুভূতি প্রকাশকালে বলেন, সরকারি কর্মজীবন থেকে বিদায় নিলেও মানুষের সেবায় কাজ থেকে তিনি ছুটি নিচ্ছেন না। যশোরের মানুষকে তিনি চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাবেন। স্বাস্থ্য বিভাগের উন্নয়নে যেকোনো কাজে তিনি সবর্দা অংশ নেবেন। তিনি ও তার পরিবারের সদস্যরা যাতে ভবিষ্যত জীবন সুস্থভাবে কাটাতে পারেন সেজন্য সকলের কাছে দোয়া ও আশীর্বাদ চেয়েছেন।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft