দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
শিরোনাম: যশোরে গাঁজাসহ নারী আটক       মোরেলগঞ্জে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিটে ১০ দোকান পুড়ে ছাই       অনুপ্রবেশকালে হাসাদাহ থেকে আটক ৮        মানবপাচারকারী চক্রের হোতা সাইফুল র‌্যাবের হাতে আটক       কেশবপুর পৌরসভার উদ্যোগে ১৩ হাজার মাস্ক বিতরণ        উপকূলের উন্নয়নে জাতীয় বাজেটে বিশেষ বরাদ্দ রাখার দাবি       যশোরের নতুন জেলা শিক্ষা অফিসারকে শুভেচ্ছা স্বাশিপের       মণিরামপুরের প্রতিবন্ধী কবির হত্যা মামলায় চার্জশিট       আগামীকাল আলমগীর সিদ্দিকীর ৪৪ তম মৃত্যুবার্ষিকী        এশিয়ান কাপের বাছাই পর্বে খেলবে বাংলাদেশ      
অভয়নগরে আবাসিক এলাকায় কয়লার ড্যাম্প
পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্য চরম ঝুঁকিতে
জাকির হোসেন হৃদয়, প্রেমবাগ (অভয়নগর):
Published : Wednesday, 12 May, 2021 at 12:17 PM, Count : 100
পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্য চরম ঝুঁকিতেযশোর জেলার অভয়নগর উপজেলার শিল্প বন্দর নগরী হিসাবে খ্যাত নওয়াপাড়া পৌরসভাসহ অভয়নগরে আবাসিক এলাকায় কয়লার ড্যাম্প করা হয়েছে। এতে পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্য চরম ঝুঁকিতে রয়েছে। উপজেলার ভাঙ্গাগেট, চেঙ্গুটিয়া, বুড়োরদোকান, উড়োতলা, চাঁপাতলা, প্রেমবাগ, নগরঘাট, ঘোপেরঘাট, তালতলা, রাজঘাট, মহাকাল, কজমিল, আমডাঙ্গা, ধোপাদীর লক্ষ্মীপুর, মশরহাটিসহ আশেপাশের এলাকার অতি মুনাফালোভী ব্যবসায়ীরা আশেপাশের এলাকার পুকুর, ডোবা নালা, কৃষি আবাদি জমি ধ্বংস করে অবৈধভাবে কয়লা ড্যাম্পিং করছেন। এতে করে বিপাকে পড়েছে সাধারণ মানুষ। অভয়নগরের নওয়াপাড়া পৌর বাসিন্দা মিজানুর রহমান জানান, পাশে ভৈরব নদের তীরে মল্লিক বাড়ীর ঘাট, তরফদার পাড়ার ঘাটে ও ঘোপেরঘাট কালিবাড়ী ঘাটে চলছে দেদারছে কয়লা ড্যাম্পিং এর মহোৎসব। আশে পাশের জনবসতিতে সেখান থেকে উড়ে আসা কয়লার ধোঁয়া ও ধুলায় সৃষ্টি হচ্ছে কুয়াশাচ্ছন্ন অবস্থা। প্রশাসন ও আইন কানুনের তোয়াক্কা না করে বসতবাড়ি ঘিরে কয়লা ড্যাম্পিং করায় অনেকে বসতভিটা ছাড়তে বাধ্য হচ্ছেন।
যশোর খুলনা মহাসড়কের চেঙ্গুটিয়া থেকে রাজঘাট পর্যন্ত প্রায় ১২ কিলোমিটার পর্যন্ত রাস্তার দু’ধারে, রেল লাইনের পাশে, পাওয়ার স্টেশনের গায়ে, নদীর ধারে, কৃষি আবাদি জমি, পুকুর বন্ধ করে ও আবাসিক জনবসতি এলাকায় এ সকল কয়লা ড্যাম্পিং করা হচ্ছে। আর এই কয়লার বিষাক্ত ধোয়া ও দুর্গন্ধে আচ্ছন্ন হয়ে থাকছে পুরো এলাকা। নওয়াপাড়া পৌরসভার মহাকাল, চেঙ্গুটিয়া এলাকায় কয়লার মজুদ সবচেয়ে বেশি।
মহাকাল গ্রামের বাসিন্দা বাসুদেব কুমার ও ইব্রাহিম বিশ্বাস জানান, এখানে আমার তিন প্রজন্মের বসবাস। কয়লার কারণে বসতবাড়িতে বসবাস দুঃসাধ্য হয়ে উঠেছে। ঘর-দরজা, আসবাবপত্র, পোশাক পরিচ্ছদ কয়লার ধুলায় সয়লাব। এমনকি ভাত, তরিতরকারির সাথে খেতে হচ্ছে কলয়ার ধুলা। অভয়নগরের গাছপালা, রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ী সর্বত্রই কয়লার ছাপ লক্ষ্য করা যায়। তারা অভিযোগ করেন কয়লার ডিপো সরিয়ে দেওয়ার দাবিতে বিভিন্ন সময় স্মারকলিপি, মানববন্ধনসহ প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করা হলেও পরিবেশ অধিদপ্তর কিংবা কোন কর্তৃপক্ষই ব্যবস্থা নেয়নি।
তারা আরও বলেন, কয়লার বিষাক্ত ধুলা ও ধোয়ায় তাদের পরিবারের অনেকেই ফুসফুসজনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। একটি বিশেষ বিশেষ প্রতিবেদনে দেখা যায়, সারাবিশ্বে প্রতিবছর কয়লার দূষণের কারণে ফুসফুসের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ২৪ হাজারের বেশি মানুষ মারা যায়। কয়লার ড্যাম্পিং এর কারণে কয়লার থেকে উড়ন্ত ছাই (ফ্লাই আ্যাশ) বার্নারের নিচে জমা হওয়া ছাই (বাটম অ্যাশ), মারকারি, তেজস্ক্রিয় ইউরেনিয়াম, থোরিয়াম, আর্সেনিক, ভারি ধাতুসহ বর্জ্য উৎপাদন হয়ে থাকে। কয়লা বেশি করে মজুদ করায় উচ্চ মাত্রার সালফার মিশ্রিত এসিড বৃষ্টি হয়ে থাকে। যে এলাকায় কয়লা মজুদ হয় তা থেকে বিষাক্ত পদার্থ সমূহের ভ‚গর্ভস্থ জলাধারে এবং খনি এলাকায় মাটির বিভিন্ন স্তরে ছড়িয়ে পড়ে।
সরেজমিন দেখা যায়, রাজঘাট থেকে  প্রেমবাগ পর্যন্ত তালতলা, নওয়াপাড়া বাজারের আশপাশ, গুয়াখোলা, কলাতলা, পাঁচকবর, মশরহাটি, ভাঙ্গাগেট, মহাকাল, বালিয়াডাঙ্গা, চেঙ্গুটিয়া, চাঁপাতলা এলাকায় দেড় শতাধিক কয়লার ডিপো গড়ে উঠেছে। প্রতিবছর প্রায় সাড়ে ৯ লক্ষ টন কয়লা নওয়াপাড়ার বিভিন্ন ঘাটে জাহাজে করে আসে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রায় ৫০টি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান এই বিপুল পরিমাণ কয়লা নওয়াপাড়ায় আমদানি করে। পৌরসভার আবাসিক এলাকা ও গ্রামের মধ্যে কয়লা রাখায় দিন রাত সবসময়ই বাতাসে কয়লার ধুলা ও ধোয়া ছড়াচ্ছে। এসব এলাকায় মানুষের বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। শিশু বয়স্কসহ সব বয়সের মানুষ ফুসফুসজনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। কয়লাবোঝাই কার্গো জাহাজ ও বার্জ (লাইটার জাহাজ) থেকে ফেলা বর্জ্যে দূষিত হচ্ছে ভৈরবের পানি। স্থানীয়রা অভিযোগ করেন কয়লার পোড়া দুর্গন্ধে মহাকাল, চেঙ্গুটিয়াসহ আশেপাশের বাতাস বিষময় হয়ে উঠেছে। মাঝেমধ্যে কয়লার স্তুপে আগুন ধরে যায়। তাছাড়া কয়লার ধুলা ঢুকছে মসজিদ, মন্দির ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে। আবাসিক এলাকায় কয়লা ড্যাম্পিং ঠেকাতে না পেরে ঘরবাড়ি বিক্রি করে পরিবার নিয়ে অন্যত্র চলে গেছে শতাধিক পরিবার।
পরিবেশ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, জনবসতির দেড় কিলোমিটারের মধ্যে কয়লা ডিপো করা নিষিদ্ধ। জনবসতিপূর্ণ এলাকার বাইরে উচু দেওয়াল দিয়ে ঘির কয়লা ড্যাম্পিং করা বাধ্যতামূলক। কিন্তু প্রশানকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে জনবসতি পূর্ণ আবাসিক এলাকায় করা হচ্ছে পাহাড় সমতুল্য উচু উচু কয়লার ড্যাম্প।
এ বিষয়ে সদ্য যোগদানকারী অভয়নগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আমিনুর রহমান বলেন, আমি সদ্য যোগদান করেছি। বিষয়টি আমার নজরে এসেছে। সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে পর্যায়ক্রমে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 
এ বিষয়ে অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ইউডিসি ডাঃ মাহমুদুর রহমান রিজভী বলেন, কয়লার বিষাক্ত ধূলা মানব দেহের নিঃশ^াসের সাথে প্রবেশ করে ফুসফুস, শ্বাসকষ্টসহ বিভিন্ন রোগের প্রাদূভাব ঘটবে। করনাকালীন সরকারি কঠোর নির্দেশনার কারণে মুখে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক থাকায় কয়লার বিষক্রিয়া থেকে মোটামুটি রক্ষা পেলেও যারা মাস্ক ব্যবহার করছে না তাদের জন্য কয়লার গ্যাস স্বাস্থ্যের জন্য চরম হুমকি স্বরুপ।







« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft