স্বাস্থ্যকথা
শিরোনাম: ১২ দামি ব্রান্ডের বিপুল নকল মবিল উদ্ধার       জনস্বার্থ সাংবাদিকতা বিষয়ক প্রশিক্ষণ সমাপ্ত       ফরম পূরণের টাকা জমা না হওয়ায় ঝুঁকিতে যশোর মহিলা কলেজের ১২৭ পরীক্ষার্থী       ইউপি নির্বাচনে যশোর বিএনপির ৬০ ভাগ নেতাকর্মী অংশ নিচে চান       স্বামী হত্যার অভিযোগে স্ত্রীসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা       দুই শিশুকে মারপিটের ঘটনায় মামলা       বঙ্গবন্ধু হত্যায় জিয়াকে আসামি করতে চেয়েছিলাম       বিভিন্ন স্থানে মোস্তফা ফরিদের মতবিনিময়       বনি হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামি মেহেদির আত্মসমর্পণ        মোস্তফা ফরিদের বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ীর বিষয়টি গুজব      
‘কোভিড-১৯ পরবর্তী ব্যাথা জটিলতা’-করণীয়
ডাঃ মোঃ গোলাম ফারুক
Published : Thursday, 8 July, 2021 at 3:59 PM, Count : 103
‘কোভিড-১৯ পরবর্তী ব্যাথা জটিলতা’-করণীয়করোনা পৃথিবীর নিম্ন স্তর থেকে মহাকাশ যান পর্যন্ত সর্বত্রতার ভয়ালথাবা অপ্রতিরোধ্যভাবে বিস্থার করে চলেছে। বিত্তহীন কিম্বা বিত্তবান কারোরই কোন ছাড় নেই। মৃদুপ্রদাহ থেকে মৃত্যু পর্যন্ত এর বিষক্রিয়ায় অতিষ্ট আধুনিক এ সমাজের সকল ধারক বাহক। সামান্য সুযোগেই স্ববেগে চালিয়ে যাচ্ছে তার তান্ডবলিলা। ক্ষতবিক্ষত হচ্ছে হার্ট, ফূসফুস, কিডনি এমনকি চামড়া পর্যন্ত। আক্রান্তদের মধ্যে শতকরা ৩০ থেকে ৭০ ভাগ রোগী বয়ে বেড়াচ্ছে প্রদাহ-পরবর্তী নানা ধরনের জটিলতা। ‘ব্যাথা’ করোনা পরবর্তি এমনই একটি কঠিন জটিলতা। তাই জানা প্রয়োজন এর গতি, প্রকৃতি, উপশম ও মুক্তির পথ। করোনা আমাদের দেহকে যেমন করে ধংস করে চলেছে তেমনিভাবে বিধ্বস্ত করে দিচ্ছে অর্থনীতি।দুর্গম হয়ে পড়ছেমুক্তির সহজ পথ।      
কোথায় হতে পারে এ ব্যথা?
মাথা থেকে পায়ের পাতা এর যেকোন স্থানে হতে পারে -এ ব্যথা। তবে মাথা, বুক, শিরদাড়া, হাটুরগিট ও মাংসপেশী সমূহ  আক্রান্তের বিশেষ স্থান।
কেন হয় এ ব্যথা?
প্রতক্ষ্য অনেক কারণ অজানা থাকলেও ইতিমধ্যে কিছু কারণ চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা উদঘাটন করেছেন।যেমন-
১) করোনা ভাইরাসের বিষক্রিয়ার প্রতক্ষ্য প্রদাহ।
২) আমাদের দেহের ভাইরাস প্রতিরোধি ইমিউন সিস্টেমের ভুল ও আত্মঘাতি প্রদাহ।
৩) রোগাক্রান্ত শরীরের অঙ্গ প্রতঙ্গের স্বাভাবিক কার্যক্রমের শক্তিমত্তা অনেক খানি কমে যাওয়া।
৪) ভাইরাস রুখতে ব্যবহৃত ঔষধ ও যন্ত্রপাতির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া।
৫) মন-মস্তিষ্কের উপরে ভয়ার্ত এ রোগের ভিত-সন্ত্রস্থতার অতিশয় চাপ ইত্যাদি।
কত ধরনের হতে পারে এ ব্যথা?
১) স্বল্প মেয়াদী তীব্র ব্যথা (একিউট পোস্ট কোভিড সিন্ড্রোম), যেটা দীর্ঘ হতে পারে মাস খানেক; আবার
২) এ জটিলতা ভুগাতে পারে ১২ সপ্তাহ থেকে ১২ মাস (যেটাকে বলা হচ্ছে লং কোভিড সিন্ড্রোম); এমনকি
৩) মস্তিস্কের বিভিন্ন জটিলতা সহ ভুগতে হতে পারে বছর অধীক কাল  লং হ’লার সিন্ড্রোম হিসেবে।
কি করবেন এমন ব্যাথা হলে?
প্রথম কথা আতংকিত হওয়া চলবেনা। যেহেতু এরোগে মৃত্যু ঝুঁকি ও দীর্ঘমেয়াদি জটিলতা দুই-ই কম- তাই ভয় নয় সাহস রাখুন।করোনায় আক্রন্ত হয়ে পড়ার সাথে সাথে পরবর্তীজটিলতা যাতে না আসে সেজন্য চিকিৎসকের দেওয়া করোনাকালীন পরামর্শ অক্ষরে অক্ষরে মেনে চলুন।
মনে রাখবেন করোনা পরবর্তি জটিলতার শতকরা ৮০ ভাগ জটিলতা হয় মৃদু ও স্বল্প কালীন -এমনকি ব্যাথার তীব্রতার ক্ষেত্রেও তাই।
শতকরা ১০-২০ ভাগ রোগী আক্রান্ত হতে পারেন দীর্ঘমেয়াদি এধরনের পোস্ট কোভিড জটিলতায়।
এমন অবস্থায় মুক্তির পথ কি?
১। কমিয়ে আনুন এক নাগাড়ে দীর্ঘ মেয়াদী শয্যাশায়ী বিশ্রাম। বিছানা ছাড়ুন হাটতে থাকুন।
২। নিজেকে ক্রমান্ময়ে কর্মক্ষম করুন, সাথে সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত করুন ঘরে বসে করার মত হালকা ব্যায়াম সমূহ।
৩। ব্যথা স্থানে প্রয়োজনে বরফ ঠান্ডা ও গরম ছেক দিন। প্রোয়োজনীয় ম্যাসাজ করুন।
৪। নিয়ন্ত্রনে রাখুন প্রেশার, ডায়াবেটিস, ওজন। পরিত্যাগ করুন ধূমপান, তামাক, জর্দা, মদ জাতীয় যাবতীয় নেশা।
৫। আস্তে আস্তে বাড়াতে থাকুন ব্যায়ামের পরিসীমা; ফিরিয়ে আনুন হারিয়ে ফেলা অঙ্গের কর্মক্ষমতা।
৬। জয়েন্টের ব্যথা ও কোমরের ব্যাথা কমাতে সতর্কতার সাথে হাটুন, ধীরে ধীরে শুরু করুন উপরে নীচে হাঁটা, সাবধানে সিঁড়ি ভাঙ্গুন, জয়েন্টের ব্যায়াম করুন,সাইকেলিং করুন, তবে দেরিতে শুরু করুন সাঁতার।
৭। খেয়ালে রাখুন কি খাচ্ছেন?পরিহার করুন যত মিষ্টি-চর্বি-ভাজি। খাদ্য তালিকায় যুক্ত করুন সাধ্যমত ফল-ফলের রস, সবজি, দানাদার ও পানীয় খাবার।
৮। ঘন ঘন আসন পরিবর্তন করুন।এক নাগাড়ে একই অবস্থান পরিহার করুন। আরামদায়ক ও ব্যাথাকমে এমন সব আসন কিম্বা অবস্থান ভালোভাবে রপ্ত করুন।
৯। প্রয়োজনে কম ক্ষতিকর ব্যাথানাশক প্যারাসিটামল কিম্বা আইবোপ্রুফেন ওষুধ সেবন করুন।
কখন যাবেন ডাক্তারের কাছে?
প্যান্ডেমিকে যখন তখন ডাক্তারের কাছে যাওয়া ও সঠিক ডাক্তার পাওয়া যেমন দুষ্কর, তেমনি আর্থিক যোগানও যথেষ্ট কষ্টকর। এজন্য কেবল নিম্নের লক্ষণ বা লক্ষন সমূহ থাকলে ডাক্তারের  পরামর্শ নিন।
কোভিড পরীক্ষা নেগেটিভ হওয়ার এক মাস পরেও যদি-
১) প্রচন্ড দুর্বলতা।
২) স্বাদ ফিরে না আসা।
৩) ঘুমের অস্বাভাবিকতা।
৪) নতুন করে ব্যাথা বেড়ে যাওয়া।
৫) বুকে তীব্র ব্যাথা কিম্বা শ্বাসকষ্ট অনুভূত হওয়া।
৬) নতুন করে জ্বর আসা।
৭) অজানা কারণে অস্বাভাবিক ওজন কমতে থাকা।
৮) শরীরে অস্বাভাবিক ঝিন ঝিন অনুভূতি কিম্বা দেহের নিচের অংশ নিস্তেজ হয়ে আসা।
৯) হঠাৎ করে প্রসাব পায়খানা নিয়ন্ত্রনহীন হয়ে পড়া।
-এমন এক বা একের অধিক লক্ষণ প্রকাশ পেলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।
পরিশেষে জেনে রাখুন একবার আক্রান্তের পরে আবারও আক্রান্ত হতে পারেন। মাস্ক পরুন, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলুন। কাছের সকলকে টিকা নিতে উৎসাহিত করুন। নিজে ভালো থাকুন কাছের মানুষকে ভালো রাখুন।
লেখক: সহযোগী অধ্যাপক (অর্থোপেডিকস), বিভাগীয় প্রধান ও একাডেমিক কো-অরডিনেটর, যশোর মেডিকেল কলেজ, যশোর।




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft