আক্কেল চাচার চিঠি (আঞ্চলিক ভাষায় লেখা)
শিরোনাম: লালপুরে শ্রীকৃষ্ণের জন্মষ্টমী পালিত       অসময়ে পাওয়া যায়, সময়ে নয়       নৌকার গ্রাম রামসিদ্ধি        এই কষ্ট সাময়িক, দুর্দিন চলে যাবে : কাদের       বিষ দিয়ে মাছ ধরলে সুন্দরবন মৎস্যশূন্য হয়ে যাবে       গার্ডার দুর্ঘটনা : শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণে আপত্তি নেই চীনের       বাম জোটের নতুন সমন্বয়ক প্রিন্স       খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়নি: ডা. জাহিদ       ১৪ দিনের জেল হেফাজত শেষে আদালতে তোলা হচ্ছে পার্থ-অর্পিতাকে       ৪০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ মুদ্রাস্ফীতির কবলে ব্রিটেন      
তারা একন কনে?
Published : Friday, 9 July, 2021 at 9:44 PM, Count : 255
কাল এট্টু জরুলী কাজে বাইরোলাম স্বাস্তবিধি মাইনে। তেমাতায় যাতিই দেকা এক মুরুব্বীর সাতে। ভুলুক মাত্তি মাত্তি যাচ্চিলাম ককন আবার কু কু কইরে গাড়ি আইসে বাইড়োন শুরু করে সেই ভয়তি। দূরিত্তেই চোকি পইড়লো মুরুব্বীরে। চোক শন্যি কইরে ওপর, আশে পাশে তাগাদি তাগাদি আইসতেচে। আমি তার চোকি পড়তিই আমারে আগড়া দিয়ে থামালে। কলে এট্টু র’ কর। দুডো কতা আচে তোর সাতে, তোর বাড়ির দিকি যাচ্চিলাম। এট্টু তফাতে তারে ডাইকে নিয়ে বসলাম হাত তিনেক দূর কইরে। তারে কলাম যা কবা কও, তেবে আগে মুকি মাকস বাইন্দে নেও। সেই কতা শুইনে মুরুব্বী থুথনীতি বাদায় রাকা মাকস এট্টু উইচো কইরে নিয়ে কলে তে নেও হইয়েচে। আমি কলাম কি কবা এট্টা জলদি কও। আমার এট্টু তাড়া আচে।
তিনি কলেন, মনের দুক্কু কওয়ার কোন জাগা নেইরে। তাই তোর মতো অভাগারে এট্টু তলাশ কইরে দুডো কতা কতি চাই, তাও যুইত হালে শুনতি চাইস নে। আমি কতার রেশ ধইরেই কলাম চাচা ভুল বুইজে না। এট্টু জরুলী কাজে যাচ্চি, পাচে আবার বন্দ ছন্দ হইয়ে যায় কিনা কিম্বা যাওয়ার পতে দাবোড় খাতি হয় কিনা সেই ভয়তি কচ্চিলাম। তিনি লম্বা এট্টা হাই ছাইড়ে কলেন, স্যাও ঠিক। আমি তারে কলাম আসার পতে দেকলাম চোক শন্যি কইরে ওপর আর আশপাশ দেকতি দেকতি আসতিলে, কি খুজদি চাও চাচা? তিনি কলেন এইডে কতিই তো আসতিলাম। গাছে গাছে প্যানা আর ঝুলা বোড তলাশ কচ্চিলাম। আমি তার কতায় টাসকি খাইয়ে কলাম, এই দুসসুমায়তি প্যানা আর বোড দিয়ে তুমি কি করবা। তিনি কলেন, তলাশ আসলে কচ্চিলাম বোডে ঝুলা নিতাগের। দুসসুমায় বিলেইতো তাইগের হইন্নে হইয়ে তলাশ কত্তিচি। এট্টু কিচু হলিই যারা গাছে গাছে প্যানায় ঝুইলতো তারা একন কনে? এ্যাবার হাতেগুনা দু’চারজন বাদে এইগের কারোরিতো বাটি চালোক দিয়েও পাওয়া যাচ্চে না। খাইদ্য খাওয়া দিয়া তো দূরি থাক, এট্টা করোনার রুগিরেও হাতাসিং কইরে ধইরে হাসপাতাল কিম্বা মরার পর গোরে নিতিও দেকতিচি না।
ফ্যারাডা কি! তারাও কি ড্যাঙাত্তে গাছে উইটে গ্যালো! আলাম কনে, মলাম যে !
ইতি-
অভাগা আক্কেল চাচা
০১৭২৮৮৭১০০৩





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft