আক্কেল চাচার চিঠি (আঞ্চলিক ভাষায় লেখা)
শিরোনাম: আসলো আরও ৫০ লাখ টিকা       করোনাকালে ৩৩ শতাংশ ছেলেশিশু যৌন নির্যাতনের শিকার       বন্ধের পর স্কুলের প্রথম দিনে বরণ হলো তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীরা       বন্ধের পর স্কুলের প্রথম দিনে বরণ হলো তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীরা       চাঁদা না পেয়ে বাড়ি নির্মাতাকে কুপিয়ে জখমের অভিযোগ       যশোরে চুরি মোটরসাইকেল গোপালগঞ্জে উদ্ধার       টিকা পাবে ১২ বছর বয়সীরাও       যশোর সংবাদপত্র হকার্স ইউনিয়ন প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ       আত্মকর্মসংস্থানের লক্ষ্যে হাতেকলমে শিখছেন ৪০ বেকার       স্বাস্থ্যসেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে গেছে : এমপি নাবিল      
অরুন কাকারা আশার আলো জ্বালাচ্চেন
Published : Sunday, 8 August, 2021 at 9:42 PM, Count : 190
আজকের চিটিডার লিকতি যাইয়ে মনের মদ্দি ফুরফুরে এট্টা ভাব ঠেইকতেচে। ইশকুলির গন্ডি ডিঙ্গোয়ে কলেজের হাইতনেই তার উঠা হয়নি। অনেকেই তিনারে চেনে চাষাভুষো হিসেবেই। কিন্তুক তিনি পোমান কইরে দেচেন সব সাধকের বড় সাধক আমার দেশের চাষা। দশ বচর ধইরে গবেষুনা কইরে তিনি দশ ধরনের নতুন ধানের জাত বানায়েচেন। একন স¹লি তারে চেনে ধান গবেষক বিলে। তিনার নাম আরুনি সরকার। বাড়ি আমাগের পাশের জিলা খুলনায়। খুলনার বটেঘাটা উপজিলার গঙ্গারামপুর গিরামে।
আরুনি সরকার কাকার নতুন জাতের ধানগুলো উপকূলির নুনা আর পানি জইমে থাকা ভুইতিও ভালো ফলন হয়। সার মাটিও কম লাগে তার ধান চাষ কল্লি। বচর দুয়েক যকন খুলনা এলেকায় বাদামী গাছফড়িংয়ি মাইজ ধানের রস খাইয়ে চুয়া কইরে দিলো তকনও অরুন কাকার ভুই’র ধানে পুকার টুকাও লাগিনি। এইডে দেকার পর স¹লি ঝাপায় পড়ে তার কাচেত্তে বীজধান নিয়ে তাইগের জমিতি নতুন জাতের ধান লাগানোর জন্যি। অতস্ত পাড়া পড়শিতো ছিলোই সেই সাতেও কাকার বাড়ির লোকজনও তার কাজ কারবাররে পাগলামি বিলেই সিনাক্ত কইত্তো। ২০১০ সালের অক্টোবর মাসে পিরোজপুর মঠবাইড়ে গুলিসাখালি রিসোস সিন্টারে আমন ধানের শংকর করা নিয়ে টেরিং দিয়া হইলো। ফিলিপাইনির কৃষিবিজ্ঞানী ও গবেষক বংকায়া বান তাইগের টেরিং দিলেন। ছয় দিনির  সেই টেরিং বদলায় দিলো অরুন কাকার জীবন। জটাই বালাম আর বিআর ২৩ ধান দিয়ে বানায়েচেন নতুন জাত আলো ধান। বিঘে পোতি ২৪ মন পন্তিক ফলন হচ্চে। সাহেবকচি ও কাঁচড়া ধান মিলোয়ে বানায়েচেন লোকজ ধান। ইডাও বিঘে পোতি ২৪ মন পন্তি ফলন দেচ্চে। চাপশাইল ও কুমড়াগইর ধান দিয়ে বানায়েচেন আরুনি ধান। এই ধানের ফলন সবচাইতি বেশি। ফলন ২৪ মনেরও বেশী। এ ছাড়া বেনাপোল ও ডাকশাইল ধান দিয়ে বানায়েচেন গঙ্গা ধান। এর ফলন হইয়েছে  পেত্তেক বিঘেয় ২১ মন। এ ছাড়াও তার বানানো মৈত্রী ধান লক্কীভোগ ধানের ফলনও অইন্য তার চাইতেও বেশী। বিদেশীরা যদি এই সব জাত বানাইতো তালি ঝইঝই বাইদে যাইতো। কিন্তুক আমাগের নিজিগের লোক বিলে অনেকেরই উইচাই নেই।
ইতি-
অভাগা আক্কেল চাচা
০১৭২৮৮৭১০০৩




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft