দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
শিরোনাম: ৬ রানের হার দিয়েই বিশ্বকাপ শুরু বাংলাদেশের       ফরিদ আহমেদ চৌধুরী, শান্তসহ নবনির্বাচিতদের শপথ       বিশ্বে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ৪৯ লাখ পার       খালী কলসি বাজে বেশী ভরা কলসী বাজে না       কোচিং থেকে ছেলে নিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না শাহাজানের       দুই মাদক কারবারীকে আটক করেছে র‌্যাব       ষষ্টিতলা ও খড়কির দুটি চক্রে উত্তেজনা        বেজপাড়ায় ১০ লক্ষাধিক টাকার মালামাল চুরির অভিযোগ        কুয়াদা থেকে ভুয়া কবিরাজ আটক       যবিপ্রবিতে গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন      
যশোরে কুমারি পূজায় হাজারো পুণ্যার্থীর সমাবেশ
কাগজ সংবাদ
Published : Thursday, 14 October, 2021 at 12:43 AM, Count : 297
যশোরে কুমারি পূজায় হাজারো পুণ্যার্থীর সমাবেশঅষ্টমী পুজো দুর্গোৎসবের পাঁচটি দিনের মধ্যমণি। এই দিনেই সংহত রয়েছে পাঁচদিনের পুজোর নির্যাস। মহাসমারোহে ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান এবং মাঙ্গলিক কর্ম মেনে পর হয়েছে মহাষ্টমী। এদিনের অন্যতম আকর্ষণ কুমারি পূজা। যশোরে এবার দেবী ‘কালিকা’ অর্চনার মাধ্যমে কুমারী পূজা সম্পন্ন হয়েছে। বুধবার যশোর রামকৃষ্ণ আশ্রম ও মিশনের আয়োজনে চার বছর বয়সী কন্যা দৃষিতা ঘোষাল মামকে ‘কালিকা’ রূপে পূজা করা হয়।
আশ্রম মিশন অধ্যক্ষ স্বামী জ্ঞানপ্রকাশানন্দ নিজে হাতে এ পূজা সম্পন্ন করেন। মহাষ্টমীর দিন সকাল ১১টায় আশ্রমে অনুষ্ঠিত হয় কুমারী পূজা। এসময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজা আচারে অংশ নিতে আশ্রম আঙিনায় সমবেত হন হাজারো পুর্ণার্থী। এবছর ঢাকায় কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত না হলেও ঢাকার বাইরে হয়েছে।
এদিকে, দুর্গাপূজার পাঁচদিনের মধ্যমণি মহাষ্টমীতে যশোরের সকল মন্ডপে মহামায়ার ভক্ত অনুরাগীদের পদচারণা ছিল চোখেপড়ার মতো। মন্দিরে মন্দিরে ধূপের সুগন্ধ, ঢাকঢোলের বাদ্যের সাথে উলু শঙ্খধ্বনি সকল জ্বরা, দুঃখ অতিক্রম করে সুখ সমৃদ্ধির বার্তা দেয়। শাস্ত্র বিহীত মহাষ্টমী পূজার পাশাপাশি মহাসন্ধিক্ষণের ৪৮ মিনিটের সন্ধি পূজা ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে আসুরিক মনোভাবের বলিদানের মাহত্ব যেমন শেখায় তেমনি শতঅষ্ট প্রদীপের আলো যাবতীয় অজ্ঞতাকে পুড়িয়ে জ্ঞানের প্রজ্ঞায় উদ্ভাসিত করে হৃদয়কে। দেবী চামুণ্ডাকে দেখানো এ প্রদীপ শিখার আগুন যেন হিংসা, দৈহিক বাসনা ও ভোগের আকাঙ্খাকে পুড়িয়ে ছাঁই করে দেয়-এ মিনতি করেন সকলে।
আজ বৃহস্পতিবার মহানবমী। এদিন দেবী দুর্গাকে প্রাণভরে দেখে নেয়ার ক্ষণ। ‘কালিকাপুরাণ’-এ মহানবমীতে যথাবিধানে বলিদান এবং ঐশ্বর্যলাভের নিমিত্ত জপ ও হোম করতে বলা হয়েছে। দেবী দুর্গার নাম বারবার উচ্চারণ করাকে ‘জপ’ বলে। জপ আসলে মাকে স্মরণ করা। এই জপের সংখ্যা একশ’ আট; এক হাজার আট বা লাখও হতে পারে। এই দিন অগ্নিকে প্রতীক করে সকল দেবদেবীকে আহুতি দেয়া হয়। অগ্নি সকল দেবতার যজ্ঞভাগ বহন করে যথাস্থানে পৌঁছে দিয়ে থাকেন। এই দিনই দুর্গাপুজোর অন্তিম দিন। পরের দিন কেবল বিজয়া ও বিসর্জনের পর্ব। নবমী নিশিথে উৎসবের রাত শেষ হয়। নবমী রাত বিদায়ের অমোঘ পরোয়ানা নিয়ে হাজির। এ রাতের পর পিত্রালয়ে কণ্যা রূপী মা চণ্ডী থাকবেন আর মাত্র কয়েক প্রহর।




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft