আক্কেল চাচার চিঠি (আঞ্চলিক ভাষায় লেখা)
শিরোনাম: চুড়ামনকাটিতে আ’লীগের প্রতিপক্ষ থাকতে পারেন স্বতন্ত্র প্রার্থী       উচ্ছ্বাস ছড়িয়ে ভালোর আশায় শেষ হলো টাউনহল মাঠের গণসংগীত উৎসব       জেলা পুলিশ ও সেনাবাহিনীতে চাকরির নামে প্রতারণা       খালেদা জিয়াকে বিদেশে না পাঠালে পালানোর পথ খুঁজে পাবেন না       কেশবপুরে শিশু রত্না হত্যা মামলায় দাদার বিরুদ্ধে চার্জশিট       ঘের থেকে কৃষকের মরদেহ উদ্ধার       যশোরের ৩৫ ইউনিয়নে ভোট রোববার       স্ত্রীকে হত্যার দায়ে আটক       ফরিদপুরে গ্রাম্য ডাক্তারকে মারপিট        জয়তী সোসাইটির মানববন্ধন       
গাবাডা লাগাবে কিডা?
Published : Sunday, 14 November, 2021 at 8:28 PM, Count : 109
চারিদিকি নীতি কতা হেউঢেউ খাচ্চে তার মদ্দি দিয়েও চাপনিতি কাজ চালায় যাচ্চে বহুত জন। একন পিরায় অফিসি দেকতিচি ব্যানার ট্যাঙায় দেচ্চে ‘আমি ও আমার অফিস দুন্নীতিমুক্ত’। যেকেনে কম্মকত্তা কড়া স্যানে এট্টা মানবিচ হচ্চে, তাইগের ব্যানারে লিকা লাইগদেচে না। আর অনেক জাগায় ব্যানার দিয়েও তলশুড়া কায়দায় মালকড়ি বুজবাজ হচ্চে। কেউ যদি শুনতেচে কি ফ্যারা ব্যানারে দেকতিচি দুন্নীতিমুক্ত, আবার সিবা দিতি দেড়ি টাকা গচ্চা দিতি হচ্চে ক্যান? তকন অপিসেত্তে দাত কেলায়ে কওয়া হচ্চে, ও ব্যানার যারা ট্যাঙায়েচে এইসব কতা তাগের কওগে। যকন শুনা হচ্চে কারা ট্যাঙায়েচে, তকন উত্তর আসতেচে ব্যনার দেচে দুন্নীতি দমন কমিশোন। আমরা চাইনি তাও উরা ঝুলোয় দেচে তাই উডা তাগের বিষয়, আমাগের না।
যদিও অনেক সরকারি কম্মকত্তারা আমার উপর খাররা হবেন তবু এই কতাডা না কইয়ে পাত্তিচি নে অনেক অপিস আছে ‘আমি ও আমার অফিস দুন্নীতিমুক্ত’ কতাডা শুদু ওপরে ফিটফাট তলে সদর ঘাট অবস্তা। মুক্কু সুক্কু মানুস আমি, জ্ঞানের বহর খাটো, তেবে এট্টা জিনুস বুজি আসে না, নীতিকতা থাকতি হবে অন্তরে ব্যানার দিয়ে কি কোনদিন নীতিকতা পোতিষ্টা করা যায়? দিন বদলায় যাচ্চে সেই সাতে বদলায় যাচ্চে মালকড়ি টানার পদ্দতি। যে গরুর তলশুড়া কইরে খাওয়ার অভ্যেস তার মুকি হাজার ঠুসি দিলিও তারে ঠেকানো দুস্কর। নিয়ম বদলায়ে, সিসি ক্যামেরা দিয়েও এই সব উপরি খাওয়াগের ঠেকানো যাচ্চে না। পিরায় শুনা যাচ্চে লগত টাকাসহ বড় বড় কম্মকত্তারা ঘের খাচ্চে। যত কড়া নিয়ম দেকানো হচ্চে তার মদ্দি দিয়ে ঠিকই সরু লাইনি কাজ চালায় যাচ্চে কিচু চায় চালাক লোকজন। তেবে দুক্কির কতা হচ্চে যারা ঘের খায় তারা সব চুনোপুটি, তাই এই অবস্তা, হন্যের বিলির পাকা শোল গজাল তো এই সব চারো পাইতে ধরা যায় না। গাদের তলে মুক বুড়োয়ে মচ্চি মুলামে চইরে খাইয়ে ঘাড় গদ্দান মুটা কইরে ফেলচে হটাস কারো চোকি পইড়তেচে না।
এগের ধত্তি গেলি মুটা সুতোর উড়ো জাল পাইতে গাবা লাগায় দিতি হবে। তাতে জালে পড়লিই বুজা যাবে এইগের হাড়া কনে! কিন্তুক গাবাডা লাগাবে কিডা?
ইতি-
অভাগা আক্কেল চাচা
০১৭২৮৮৭১০০৩





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft