দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
শিরোনাম: চুড়ামনকাটিতে আ’লীগের প্রতিপক্ষ থাকতে পারেন স্বতন্ত্র প্রার্থী       উচ্ছ্বাস ছড়িয়ে ভালোর আশায় শেষ হলো টাউনহল মাঠের গণসংগীত উৎসব       জেলা পুলিশ ও সেনাবাহিনীতে চাকরির নামে প্রতারণা       খালেদা জিয়াকে বিদেশে না পাঠালে পালানোর পথ খুঁজে পাবেন না       কেশবপুরে শিশু রত্না হত্যা মামলায় দাদার বিরুদ্ধে চার্জশিট       ঘের থেকে কৃষকের মরদেহ উদ্ধার       যশোরের ৩৫ ইউনিয়নে ভোট রোববার       স্ত্রীকে হত্যার দায়ে আটক       ফরিদপুরে গ্রাম্য ডাক্তারকে মারপিট        জয়তী সোসাইটির মানববন্ধন       
বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের প্রতি কঠোর হুঁশিয়ারি জেলা পুলিশের
নির্বাচন ইস্যুতে অশান্ত যশোর
দেওয়ান মোর্শেদ আলম
Published : Monday, 22 November, 2021 at 9:47 PM, Count : 432
নির্বাচন ইস্যুতে অশান্ত যশোরইউপি নির্বাচন ইস্যুতে যশোরের বিভিন্ন স্পটে সহিংসতায় উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে। প্রার্থী ও দলের পক্ষ ও বিপক্ষ নিয়ে প্রতিদিন কোনো না কোনো ইউনিয়নে গোলযোগের ঘটনা ঘটছে। হতাহতের ঘটনাও ঘটেছে একাধিক। আর পরিস্থিতি উত্তোরণে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নিতে পুলিশের অনেকগুলো মোবাইল টিমকে মাঠে নামানো হয়েছে। নাশকতা ঘটানোর কয়েকটি প্রস্তুতি রুখেও দিয়েছে পুলিশ। তবে বোমা উদ্ধার ও ডজন দুয়েক বিশৃঙ্খলাকারীকে আটক করার পরও আসছে নতুন নতুন অঘটনের খবর।
এ ব্যাপারে জেলা পুলিশের পক্ষে বিশৃঙ্খলাকারীদের প্রতি কঠোর হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে। মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে অতিরিক্ত ফোর্স। জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবি ও মোবাইল টিমগুলোকে কঠোর অ্যাকশানে যাওয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
আগামি ২৮ নভেম্বর যশোরের শার্শা, মণিরামপুর ও বাঘারপাড়া উপজেলার ইউনিয়নগুলোতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বেশিরভাগ ইউনিয়নে নৌকার বিপক্ষে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন আওয়ামী লীগেরই কোনো না কোনো নেতা। যে কারণে দল সমর্থিত ও বিদ্রোহীদের মধ্যে হর হামেশাই বাক-বিতন্ডা, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও বড় ধরণের গোলযোগ হচ্ছে। ইতিমধ্যে নির্বাচনী সহিংসতায়
# তাৎক্ষণিক অ্যাকশানে মোবাইল টিম
# মাঠে নেমেছে জেলা গোয়েন্দা শাখা  
# নজরদারি করছে অতিরিক্ত ফোর্স
গুরুতর জখম যশোরের শার্শার বাগআঁচড়ার মোস্তাক ধাবক মারা গেছেন। তিনি বাগআঁচড়া ইউনিয়নের আব্দুল খালেক ধাবকের ছেলে। ১৬ নভেম্বর রাতে প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তিনি আহত হয়েছিলেন। গত ১১ নভেম্বর দু’পক্ষের সংষর্ষে আহত হন স্বতন্ত্র প্রার্থী তবিবর রহমানের সমর্থক আলী ফকির। যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।  
এর আগে একাধিকবার গোগা, পুটখালী ও উলাসী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এসব ঘটনায় ৬০ জন আহত হয়েছেন। গুলিবিদ্ধ হয়েছেন ৩ জন। ওই সব ঘটনায় স্থানীয়রা বলেছেন, কয়েকটি স্পটে পুলিশের সামনে মারামারি হলেও পুলিশ নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে।
১ নভেম্বর সকালে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যাওয়ার সময় জহুরপুর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি বদর উদ্দিন মোল্লার ওপর হামলা চালায় নৌকার প্রার্থী আসাদুজ্জামান মিন্টুর সমর্থকেরা। এ ঘটনায় বদর উদ্দিন ও তার ছেলে লোটাসহ ৪ সমর্থক আহত হন। একই ইউনিয়নে গত ১৮ নভেম্বর সন্ধ্যায় মিছিল করে বাড়ি ফেরার পথে ফের বদর উদ্দিনের সমর্থকদের ওপর হামলা চালায় নৌকা প্রতীকের সমর্থকেরা। এ ঘটনায় আহত হন আনারস প্রতীকের পাঁচ সমর্থক। গত ১৯ নভেম্বর সন্ধ্যায় নারিকেলবাড়িয়া ইউনিয়নের পুনিহার মোড় এলাকায় নৌকা প্রতীকের সমর্থকেরা হামলা চালায় আনারস প্রতীকের সমর্থক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আসাদুজ্জামান চিশতীর উপর।
এদিকে শার্শার পুটখালী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী নাসির আধিপত্য বিস্তার করার জন্য ২০ নভেম্বর বোমা মজুদ করে। যদিও পুলিশ পুটখালী ইউনিয়ন পরিষদের আসন্ন নির্বাচনে ওই নাশকতার প্রস্তুতি রুখে দিয়েছে। ১০টি বোমা উদ্ধারসহ ঘটনায় জড়িত ৪ জনকে আটক করা হয়।
এর আগে গত ২৮ অক্টোবর ঝিকরগাছার শিমুলিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জহুরুল হককে মারপিট করে প্রতিপক্ষ। এছাড়া পানিসারা ইউনিয়নে ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সেখানে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর নির্বাচনী পথসভা ২৮ অক্টোবর বেজিয়াতলার মালোপাড়ায় চারপাশ ঘিরে ফেলে। এ সভায় হামলাও চালানো হয়। প্রার্থীর প্রাইভেটকারও ভাংচুর করা হয়। মোহিনীকাঠি বাজারে তার নির্বাচনী কার্যালয়ে ভাঙচুর ও হামলা চালানো হয়। এ সময় বেশ কয়েকটি নৌকা পুড়িয়ে দেয়া হয়। গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহেদুর রহমান শিপলুর প্রচার মাইক ও ভ্যান ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে।
পরের দিন ২৯ অক্টোবর চৌগাছার জগদীশপুর ইউনিয়নের আড়পাড়া বাজারে নৌকার প্রার্থী তবিবর রহমান খানের লোকজন স্বতন্ত্র প্রার্থী আজাদুর রহমান খান চৌধুরীর উপর হামলা করে। এতে তিনি আহত হন। এরপর ৯ নভেম্বর চৌগাছার সুখপুকুরিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শিক্ষক নূর ইসলামকে আহত করে নৌকার সমর্থকরা। নির্বাচনের দিন জগদীশপুর ইউনিয়নের মাড়–য়া বাজারে পুলিশ-জনতা ধাওয়া হয়। এতে ৫ পুলিশ সদস্য আহত হন।  
এদিকে ২২ নভেম্বর বাঘারপাড়া থেকে স্টাফ রিপোর্টার চন্দন দাস জানিয়েছেন, বাঘারপাড়ায় নৌকার নির্বাচনী কার্যালয় ভাংচুর ও ৩ জন জখমের ঘটনা ঘটে। নারিকেলবাড়িয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী বাবলু সাহার মালঞ্চী গ্রামে নির্বাচনী অফিস ভাংচুর ও নৌকার তিন সমর্থককে পিটিয়ে জখম করা হয়েছে ২১ নভেম্বর গভীর রাতে। নৌকা প্রতীকের কর্মী ও সমর্থক জাকির হোসেন জানান, এদিন রাত পৌনে ১২ টার দিকে নৌকার সমর্থক মালঞ্চী গ্রামের মোক্তার হোসেন মোটরসাইকেলযোগে মালঞ্চী গ্রামের হাজিরকুড় পাড়ের নৌকার অফিস থেকে ৫০ গজ দূরের মালঞ্চী স্কুল মাঠ সংলগ্ন আরেকটি নৌকার অফিসে যাচ্ছিলেন। এ সময় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবুল সরদারের সমর্থকরা তাকে পিটিয়ে আহত করে। খবর পেয়ে নৌকার কয়েকজন সমর্থক এগিয়ে এলে তাদের ওপরও হামলা চালায় আনারস প্রতীকের সমর্থকরা। হামলাকারীরা একই সাথে নৌকার নির্বাচনী কার্যালয় ভাংচুর করে। এ সময় আরো আহত হন নৌকার কর্মী মালঞ্চী গ্রামের সাত্তার মোল্লার ছেলে শিমুল ও আব্দুল লতিফের ছেলে তরিকুল ইসলাম। নৌকা প্রতীকের প্রার্থী বাবলু কুমার সাহা অভিযোগ করেন, আনারস প্রতীকের প্রার্থী আবু তাহের আবুল সরদারের নির্দেশে ৮ নং ওয়ার্ডের মেম্বর প্রার্থী আলতাফ হোসেনের নেতৃত্বে ২০/১৫ জন এ হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে। হামলাকারীরা বিএনপি-জামাতের নেতা-কর্মী বলেও উল্লেখ করেন বাবলু সাহা।
যশোরের শার্শা, মণিরামপুর, বাঘারপাড়া থেকে প্রতিনিয়তই এধরণের অনাকাঙ্খিত ঘটনার খবর আসছে। ইউনিয়ন পরিষদের তৃতীয় ধাপের এ নির্বাচন নিয়ে সহিংসতা ঘটেই চলেছে। নির্বাচনের তারিখ ঘোষনার পর থেকেই জেলা পুলিশ সতর্ক অবস্থানে থাকলেও প্রার্থী ও সমর্থকরা সবাই আওয়ামী লীগ ও একই ঘরানার হওয়ায় অনেকটা বেপরোয়া স্টাইল চলছে। তবে কয়েকটি ঘটনা ঘটে যাওয়ার খবরে যশোরের পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার পিপিএম বার কঠোর অ্যাকশানে নেমেছেন। জেলা পুলিশের সকল ইউনিটকে দলমতের উর্ধেŸ থেকে কঠোর অ্যাকশানে যাওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন। ৩টি স্তরের নিরাপত্তা বিধান করেছেন নির্বাচনী এলাকাগুলোতে। বিশৃঙ্খলাকারী প্রতি কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়ে জানিয়েছেন, সহিংসতাকারীদের ঠাঁই যশোরে হবে না।
এ ব্যাপারে যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) জাহাঙ্গীর আলম গ্রামের কাগজকে জানিয়েছেন, নির্বাচনী সহিংসতা এড়াতে জেলা পুলিশ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে। মাঝে কয়েকটি ঘটনা ঘটে গেছে সত্য। তবে সে সব ব্যাপারে তাৎক্ষনিক অ্যাকশান নেয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকার পরিবেশ সমুন্নত করা হয়েছে। যে ৩টি উপজেলায় নির্বাচন আগামি ২৮ নভেম্বর সেখানে অতিরিক্ত ফোর্স নিযুক্ত করা হয়েছে। তারা নজরদারি করছে ওই সব এলাকায়। এছাড়া অনেকগুলো মোবাইল টিম নামানো হয়েছে, তারা তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নিচ্ছে। এছাড়া জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবিকেও মাঠ পর্যায়ে নামানো হয়েছে নির্বাচন ইস্যুতে।  সিনিয়র অফিসারগণ সার্বক্ষনিক পরিস্থিতির উপর নজরদারি রাখছেন।   
যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (খ সাকেল) মুকিত সরকার জানিয়েছেন, সবকটি ইউনিয়নে অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের পরিবেশ তৈরি করছে পুলিশ। প্রতিটি ইউনিয়নে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। প্রার্থীরা নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে চলবেন এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। নির্বাচনে কোনো অরাজকতাকে সুযোগ দেয়া হবে না বলেও জানান তিনি।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নাভারণ সার্কেল) জুয়েল ইমরান জানিয়েছেন, নির্বাচনী সহিংসতায় মোস্তাক ধাবকের উপর হামলা ও নিহত হওয়ার ঘটনায় ইতিমধ্যে মামলা হয়েছে। বেশ কয়েকজনকে আটকও করা হয়েছে। মোস্তাক খুনের ঘটনায় স্থানীয়রা বিক্ষুব্ধ হলেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়া হয়েছে। একইসাথে নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সবধরণের উদ্যোগ নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।
এ ব্যাপারে যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন বলেন, ‘বিভিন্ন স্থানে গোলযোগ হচ্ছে। দলের নেতাকর্মীরাই আহত নিহত হচ্ছেন এটা অবহিত আছি। আসলে আমাদের দলটা অনেক বড়। সবাই নেতা এবং পদ পদবী চান। কিন্তু এটা আমাদের কাম্য নয়। আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনা যাকে মনোনয়ন দেবেন সবাইকে তার পক্ষে কাজ করতে হবে। যারা করবেন না তাদেরকে দল থেকে বহিষ্কার করা হচ্ছে এবং আগামীতেও বহিষ্কার করা হবে।




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft