দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
শিরোনাম: স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না যশোরের বিভিন্ন ব্যাংকের গ্রাহকরা       ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে নজর দিতে হবে নাস্তায়        যশোরের দু’ নির্বাচন কর্মকর্তাকে প্রত্যাহারের দাবিতে সাংবাদিকদের স্মারকলিপি প্রদান       সাতটি বোমাসহ একজন আটক       রাজারহাটে এমপি নাবিলের পক্ষে কম্বল বিতরণ       মাকে চেতনানাশক খাইয়ে সোনা ও টাকা চুরি        বান্ধবীকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় কিশোরকে ছুরিকাঘাত        চট্টগ্রামকে হারাল খুলনা       প্রথম জয় সূর্য সংঘের       বিএনপি-জামায়াত দেশের উন্নয়নে ভীত : তথ্যমন্ত্রী      
রংতুলির আঁচড়ে ’৭১-এর ‘যশোর রোড’কে দেখলেন দর্শক
কাগজ সংবাদ
Published : Sunday, 5 December, 2021 at 7:17 PM, Count : 224
রংতুলির আঁচড়ে ’৭১-এর ‘যশোর রোড’কে দেখলেন দর্শক ঘরহীন ওরা ঘুমহীন চোখে/যুদ্ধে ছিন্ন ঘর-বাড়ি-দেশ/মাথার ভেতর বোমারু বিমান/এই কালোরাত কবে হবে শেষ? সাল ১৯৭১। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বর্বরতায় চারদিক অন্ধকার। বাঁচার পথ খুঁজে পাওয়া ভার। এমন সময় একটি সড়কই দেখালো বেঁচে থাকার স্বপ্ন পূরণের পথ। যার প্রতিটি ধূলিকণা বলতে পারে হাজারো ঘটনার আদ্যপান্ত। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় এই রোড সন্তানহারা মাকে দেখেছে, স্বামীহারা স্ত্রীকে দেখেছে, পথের ক্লান্তি সহ্য করতে না পেরে বয়জ্যেষ্ঠ্যদের ধুঁকতে ধুঁকতে মরতে দেখেছে। সম্ভ্রমহারা নারীদের মুখ লুকিয়ে হাঁটতে দেখেছে। আবার সময় হলে আনন্দে আত্মহারা হয়ে বিজয়ের মিছিল নিয়ে নিজ বাড়ি ফিরতে দেখেছে। যে পথের কথা বলা হচ্ছে সেটি উপমহাদেশের ঐতিহাসিক যশোর রোড। রংতুলির আঁচড়ে আবারও যেন জেগে উঠল হাজারো স্বপ্নের নীরব সাক্ষী এ যশোর রোড। রোববার যশোর পৌরপার্কে অর্ধশত শিল্পীর ক্যানভাসে ফুঁটে ওঠে শরণার্থীদের দুঃখ-দুর্দশা ও মহান মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন ঘটনাপ্রবাহ। বিজয়ের ৫০ বছর পূর্তিতে ‘মুক্তিযুদ্ধে যশোর রোড’ শিরোনামে দিনব্যাপী এ আর্ট ক্যাম্পের আয়োজন করে জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট। ক্যাম্পে আঁকা চিত্রকর্ম নিয়ে সোমবার থেকে সাতদিনব্যাপী যশোর ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে প্রদর্শনীর আয়োজন করা হবে।
রোববার সকাল ১০টায় ক্যাম্পের উদ্বোধন করেন দেশবরেণ্য চিত্রশিল্পী তরুণ কুমার ঘোষ। স্বাগত বক্তৃতা করেন যশোরের জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান। আর্ট ক্যাম্প উপপর্ষদের আহ্বায়ক মামুনুর রশীদের সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন ‘বিজয়ের ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন পর্ষদ’র চেয়ারম্যান হাবিবা শেফা, সদস্য সচিব সানোয়ার আলম খান দুলু, ভাইস চেয়ারম্যান সুকুমার দাস, দীপংকর দাস রতন, ফারাজী আহমেদ সাঈদ বুলবুল, হারুন-অর-রশীদ প্রমুখ।
আর্ট ক্যাম্পে ঢাকা, জাহাঙ্গীরনগর ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন জেলার চিত্রশিল্পীরা অংশ নেন। বৈরী আবহাওয়ার মধ্যেও ইতিহাসের সাক্ষী হতে পৌরপার্কে আগমন ঘটে অনেক দর্শকের। সাদা ক্যানভাসে শিল্পীদের রংতুলির ছবিতে অনেকেই খুঁজে পান নিজেদের অস্তিত্ব। এ সময় অশ্রুজলে ভেসে ওঠে অনেকের চোখ। দেশবরেণ্য শিল্পীদের রংতুলির ছোঁয়ায় এমন মায়াভরা দৃশ্য দেখে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়ে আগত দর্শকরা। পিনপতন নীরবতার মধ্য দিয়ে বিকেলে শেষ হয় শিল্পীদের আঁকা ছবির কাজ। এসব ছবিতে দেখা যায়, মা ছেলেকে কাঁধে নিয়ে ছুটছে নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে। হানাদার বাহিনীর নানা অত্যাচার, গোয়েন্দা যুবতীর দু’পায়ে শিকল বেঁধে ইঞ্জিনের গাড়িতে টেনে শহর ঘুরোনার নির্মম দৃশ্য। অনেকের ক্যানভাসে দেখা যায়, রাস্তার দু’ধারে বড় বড় গাছ। কাদা-মাটি রাস্তায় দলবেধে ভারতের দিকে হাঁটছে শ’ শ’ নারী-পুরুষ। কারও রংতুলিতে বিজয় মিছিল দিতে দিতে যশোর রোড দিয়ে ওপার বাংলা থেকে এ বাংলার ফেরার দৃশ্য ফুঁটে উঠেছে। আবারও কেউ দেখিয়েছে স্বাধীনতার প্রথম সূর্যোদয়ের আলো এ যশোর রোডেই পড়েছিল।
আর্টক্যাম্পে অংশগ্রহণ করা চিত্রশিল্পী বাগেরহাটের ফকিরহাট ফজিলাতুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক সুকুমার বাগচি, এসএস সুলতান আর্ট কলেজের অধ্যক্ষ অনাদি কুমার বৈরাগী, দেবব্রত দাস, সুমন ভট্ট, প্রশান্ত দাশ, রিপন সিকদার, রাজিব রায়, তরুণ ঘোষ, উত্তম বৈরাগী, নাজমুন নাহার, মাহফুজা বিউটি, ফারজানা ইয়াসমিন বলেন, যশোর রোড বাঙালির আবেগের জায়গা। নতুন প্রজন্ম তাদের আঁকা ছবির মাধ্যমে এই রোড সম্পর্কে কিছুটা জানলে তাদের চিত্রকর্ম সার্থক হবে বলে মনে করেন। একইসাথে এমন সুন্দর আয়োজনের জন্য আয়োজকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তারা।
চিত্রকর্ম দেখতে আসা যশোর শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাহমুদ হাসান বুলু বলেন, বিজয়ের ৫০ বছরে ৫০ শিল্পীর মাধ্যমে যশোর রোড সম্পর্কে জানার বিষয়টি একটি ইতিহাস। এ ইতিহাসের অংশ হতে পারায় গর্ববোধ করেন তিনি।
বীরমুক্তিযোদ্ধা অশোক কুমার রায় বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সে সময়কার চিত্র শিল্পীদের মাধ্যমে ফুঁটে উঠেছে। এসব ছবি দেখে নতুন প্রজন্মের মধ্যে দেশপ্রেমের চেতনা জাগ্রত হবে বলে মনে করেন তিনি।
যশোরে জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় ও জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে রোববার থেকে শুরু হয়েছে জেলাজুড়ে ২১ দিনব্যাপী সাংস্কৃতিক উৎসব। এসব বিষয়ে আয়োজক কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ফারাজী আহমেদ সাঈদ বুলবুল জানান, মহান মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরা এবং বর্তমান ও আগামী প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় শানিত করার লক্ষ্য নিয়ে এ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। এই আয়োজনের মধ্যে দিয়ে শিল্পীরা যে আন্তরিকতা নিয়ে ছবিগুলো আঁকছেন সেটি ইতিহাসের একটি অমূল্য দলিল হিসেবে বিবেচিত হবে বলে মনে করেন তিনি।
জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান বলেন,‘বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সাথে যশোর রোডের একটি ঐতিহাসিক যোগসূত্র রয়েছে। যশোর রোড নিয়ে এ আর্টক্যাম্পের  মাধ্যমে আমরা ইতিহাসকে নতুনভাবে জানছি, যা আমাদের স্মৃতিকে প্রবলভাবে নাড়া দেয়।’ যা হোক সবার একটাই আশা ভালো থাকুক যশোর রোড, ভালো থাকুক বয়োজ্যেষ্ঠ বৃক্ষকূল এবং আগলে রাখুক ৭১-কে।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft