অর্থকড়ি
শিরোনাম: পদ্মা সেতুর উদ্বোধন থেকে ফেরা হলো না অহিদুল-মফিজুরের       স্বপ্ন হলো সত্যি       পদ্মাপাড়ের উৎসবের ঢেউ আছড়ে পড়ে যশোরেও       সাংবাদিক মিজানুরের পিতার ইন্তেকাল       জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশনের বাজেট বিষয়ক বিশেষ সাধারণ সভা       পদ্মা সেতুর উদ্বোধনে প্রধানমন্ত্রীকে যবিপ্রবি পরিবারের ধন্যবাদ       অনুর্ধ্ব-২০ ভলিবল দলে যশোরের দু’জন       ব্যাটিংয়ে অখুশি সিডন্স       বড় পর্দায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন দেখলেন যশোরবাসী       কালিয়ায় ট্রলিচাপায় মাদরাসা ছাত্রের মৃত্যু      
ক্রেতা কমে গেছে মাছবাজারে
ঢাকা অফিস:
Published : Saturday, 21 May, 2022 at 1:05 PM, Count : 177
ক্রেতা কমে গেছে মাছবাজারেনিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের মূল্যবৃদ্ধির চাপ সামাল দিতে নানাভাবে সংসার খরচ কাটছাঁট করছেন নিম্নবিত্ত থেকে শুরু করে মধ্যবিত্তরাও। এতে মাছের বাজারে কমে গেছে ক্রেতা। আগে থেকেই মাছের দাম নিম্নবিত্তের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে। বাজারে কম দামি মাছ বলতে একমাত্র তেলাপিয়া। তাই যেটুকু মাছ এখন বিক্রি হচ্ছে, তার বড় অংশই তেলাপিয়া। রাজধানীর বাজার ও মানভেদে তেলাপিয়া মাছের কেজি ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা। মাছের বাজারে ২০০ টাকার কমে এ মাছই পাওয়া যাচ্ছে এখন। এরপরই আছে রুই আর কই মাছ। বাজার ও আকারভেদে রুই মাছের কেজি ২৮০ থেকে ৩৫০ টাকা। বেশির ভাগ বাজারে যেসব রুই মাছ পাওয়া যায়, সেগুলোর ওজন দেড় কেজির বেশি। ফলে রুই মাছ কেনার সামর্থ্য অনেকের নেই।
মাছ বিক্রেতাদের দাবি, বাজারে নিত্যপণ্যের দাম ঈদের পর যতটা বেড়েছে, মাছের দাম সেভাবে বাড়েনি। তারপরও ক্রেতা কম। বিক্রেতারা বললেন, বেশির ভাগ ক্রেতাই এসে দাম জিজ্ঞেস করে চলে যান। এক মাছ বিক্রেতার কাছে দরদাম জিজ্ঞেস করতেই কিছুটা বিরক্তি প্রকাশ করে তিনি জানতে চান, ‘কিনবেন, নাকি শুধু দাম শুনতে আসছেন। সবাই এসে শুধু দাম জিজ্ঞেস করে চলে যায়।’
সেখানে মাছের বাজারে ৩০ মিনিটের বেশি সময় অপেক্ষা করে দুজন ক্রেতার দেখা মেলে। এর মধ্যে একজন ক্রেতা ইলিশ মাছের দাম শুনে বেরিয়ে যান। আরেকজন ক্রেতা ২৮০ টাকায় এক কেজি কই মাছ কেনেন। এক কেজি মাছ কেনায় বিক্রেতা খুশি হয়ে তাঁর কাছ থেকে কাটার পয়সা রাখেননি।
দুপুরে জুমার নামাজের পরে মাছবাজারে গিয়েও দেখা যায় ক্রেতা নেই। এই প্রতিবেদক ওই বাজারে ঢুকতেই শুরু হয়ে যায় হাঁকডাক, ‘ভাই আসেন, দাম কমায় রাখমু’। বেশ কিছুক্ষণ অপেক্ষার পরে জানা গেল, এ বাজারে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়েছে তেলাপিয়া মাছ। সেলিমউল্লাহ নামে এক বিক্রেতা জানালেন, প্রতি কেজি তেলাপিয়া মাছ বিক্রি করেছেন ১৮০ টাকায়। এই প্রতিবেদক জানতে চান, কেজিতে কয়টা মাছ ধরে। বললেন, তিনটি মাছে এক কেজির কিছুটা বেশি হয়। প্রতিটি মাছকে খুব হিসাব করে টুকরা করলেও মাথা, লেজসহ তিন টুকরার বেশি হবে না। তাতে ৩টি মাছে টুকরা হবে ৯টি। পাঁচ সদস্যের একটি পরিবারে ১৮০ টাকার মাছে দুই বেলাও যাবে না।
ভোজনরসিক বাঙালির চিরায়ত প্রবাদ, ‘মাছে-ভাতে বাঙালি’। সেই বাঙালির একটি শ্রেণির কাছে মাছ খাওয়াও এখন অনেকটা বিলাসিতা। আর মাছ খাওয়াকে বিলাসিতার পর্যায়ে নিয়ে গেছে ‘দাম’। বাজারভেদে প্রতি কেজি রুই মাছের দাম ২৮০ থেকে ৩৫০ টাকা, কাতলা মাছ ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা, পাবদা আকারভেদে ৩৮০ থেকে ৬০০ টাকা, বাইলা মাছ মানভেদে ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা, ইলিশ আকারভেদে ৭৫০ থেকে ১ হাজার ৮০০ টাকা কেজি।
আর ছোট মাছের দাম আরও বেশি। মলা মাছ বাজারভেদে ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা, পুঁটি ৩৫০ থেকে ৬০০ টাকা। আর গরিবের মাছখ্যাত পাঙাশের কেজিও ২০০ থেকে ৩০০ টাকা। যেসব পাঙাশের দাম একটু কম, সেগুলো আবার আকারে বেশ বড়। তাতে কয়েক কেজি ওজনের একটি পাঙাশ কিনতে হলে পকেট থেকে বেরিয়ে যাবে ৫০০ থেকে হাজার টাকা।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft