দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
শিরোনাম: পদ্মা সেতুর উদ্বোধন থেকে ফেরা হলো না অহিদুল-মফিজুরের       স্বপ্ন হলো সত্যি       পদ্মাপাড়ের উৎসবের ঢেউ আছড়ে পড়ে যশোরেও       সাংবাদিক মিজানুরের পিতার ইন্তেকাল       জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশনের বাজেট বিষয়ক বিশেষ সাধারণ সভা       পদ্মা সেতুর উদ্বোধনে প্রধানমন্ত্রীকে যবিপ্রবি পরিবারের ধন্যবাদ       অনুর্ধ্ব-২০ ভলিবল দলে যশোরের দু’জন       ব্যাটিংয়ে অখুশি সিডন্স       বড় পর্দায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন দেখলেন যশোরবাসী       কালিয়ায় ট্রলিচাপায় মাদরাসা ছাত্রের মৃত্যু      
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যাত্রী ও পরিবহন সেক্টরে যুগান্তকারী পরিবর্তন
চাপ কমবে বিমানে
দেওয়ান মোর্শেদ আলম
Published : Tuesday, 21 June, 2022 at 12:49 AM, Count : 995
চাপ কমবে বিমানে ৬ ঘন্টার সাথে ফেরির জন্য আরও ৩ থেকে ৫ ঘন্টা অপেক্ষা নয়। স্বপ্নের বহুমুখি পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের পর থেকে ৯ থেকে ১০ ঘন্টার পরিবর্তে মাত্র ৪ ঘন্টায় যাওয়া যাবে রাজধানীতে। যশোর থেকে পথ কমে যাচ্ছে প্রায় ১শ’ কিলোমিটার। একইভাবে পথ কমছে বেনাপোল সাতক্ষীরা খুলনা থেকেও। সব মিলিয়ে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যাত্রী সুবিধা ও পরিবহন সেক্টরে আসছে যুগান্তকারী ইতিবাচক পরিবর্তন।
ভাড়া না বাড়িয়েও অল্প সময়ে রাজধানীর সাথে হচ্ছে যোগাযোগ। আবার তেল ও সময় সাশ্রয়ে পরিবহন মালিক শ্রমিকরা পাবেন সুবিধা। এখন পর্যন্ত দিনে একটি ট্রিপ দিলেও পদ্মা সেতু ব্যবহার করলে দিনে দুই ট্রিপ দেয়া সম্ভব। এ কারণে ভাড়া বৃদ্ধি করতে হবে না নতুন এ রুটে। আবার অনেক যাত্রীর দাবি ভাড়া কমালেও লোকসান হবে না বাস মালিকদের।
নিয়মিত বিমান যাত্রীদের অনেকেই বিমানমুখি না হয়ে বাসমুখি হবেন বলেও আশার কথা শুনিয়েছেন অনেকে। দুরত্ব ও সময় কমে যাওয়ায় আকাশ পথের ছোঁয়া থাকবে সড়ক পথেও।
হাতে গোনা ৩ দিন পরই ২৫ জুন। সেই মাহেন্দ্রক্ষনের দিকে তাকিয়ে গোটা দেশ। সার্বিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখা সুদুরপ্রশারী চিন্তার ফসল পদ্মা সেতু উদ্বোধনের ক্ষণ গুনছেন দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের গণ মানুষ। পরিবহন কৃষি, মৎস্য, শিল্প, সবজী, চিকিৎসা, বৈদেশিক বাণিজ্যসহ সব ধরনের ব্যবসায় সুবিধা বাড়ার ব্যাপারে ইতিমধ্যে বিশেষজ্ঞর মতামত ব্যক্ত করেছেন। সে অনুযায়ী বিশাল কর্মযজ্ঞ শুরু হয়েছে ওই সব সেক্টরে। এর মধ্যে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যাত্রীসেবা ও পরিবহন সেক্টরে ঈর্ষনীয় সুবিধা আসছে।  
যশোর বিআরটিএ অফিস থেকে তথ্য মিলেছে, দৌলতদিয়া পাটুরিয়া ফেরিঘাট দিয়ে ঢাকা গাবতলী পর্যন্ত দুরত্ব যশোর থেকে ২৫০ কিলোমিটার, খুলনা থেকে ২৭২ কিলোমিটার, ঝিনাইদহ থেকে ২৩২ কিলোমিটার, সাতক্ষীরা থেকে ৩২০ কিলোমিটার। এদিকে গুগোল ম্যাপ অনুয়ায়ী যশোর থেকে মাওয়া পদ্মা সেতু (খুলনা ঢাকা মহাসড়ক) ১৪০ কিলোমিটার এবং পদ্মা সেতু থেকে ঢাকা সায়েদাবাদ ৩৯ কিলোমিটার। সে হিসেবে যশোর থেকে ঢাকার দুরত্ব কমছে ৭০ কিলোমিটার। সে অনুযায়ী খুলনা, সাতক্ষীরা ও বেনাপোলের দুরত্ব কমেছে সমহারে।
এদিকে ফরিদপুর রাজবাড়ি হয়ে দৌলতদিয়া ফেরি ঘাট দিয়ে ঢাকা যাত্রায় দুরত্ব ৭০ কিলোমিটার বেশি। আবার ঘাটে ফেরির জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা- যন্ত্রণা। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের চিরায়ত ওই যন্ত্রণা ও দুর্ভোগ এবার শেষ হচ্ছে স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর থেকে।
এ ব্যাপারে বিআরটিএ যশোর নড়াইল সার্কেলের সহকারী পরিচালক এস, এম মাহফুজুর রহমান জানিয়েছেন, স্বপ্নের পদ্মা সেতু বাঙালি জাতির জন্য যুগান্তকারী একটি স্থাপনা। দেশের সর্ববৃহৎ স্থল বন্দর বেনাপোল থেকে ঢাকার যোগাযোগ খুবই সহজ হয়ে গেল। পন্য ও যাত্রী পরিবহনে অকল্পনীয় উন্নয়ন সাধিত হতে যাচ্ছে। তিনি জানান, যশোর থেকে দৌলতদিয়া হয়ে ঢাকার গাবতলীর দুরত্ব ২৫০ কিলোমিটার। সেই হিসেবে পদ্মা সেতু ব্যবহার করলে পন্যবাহী ট্রাক কিংবা যাত্রীবাহী বাসের জন্য প্রায় ১শ’ কিলোমিটার পথ কমছে। যে কারণে জ্বালানী তেল সাশ্রয় হবে। লাভবান হওয়ার দ্বার উন্মোচিত হতে যাচ্ছে বাস ট্রাক মালিকদের। আবার যাত্রীদের সুবিধাও বাড়ছে। ফরিদপুর রাজবাড়ি দৌলতদিয়া রুটে ঢাকায় যেতে ব্যয় হয় কমপক্ষে ৬ ঘন্টা। আবার ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা ফেরির জন্য। পদ্মা সেতুর ব্যবহার করলে মাত্র ৪ ঘন্টায় ঢাকা যাওয়া সম্ভব হবে। যা আমরা আগে কল্পনাও করতে পারিনি। এছাড়া যেহেতু ৪ ঘন্টায় যাওয়া সম্ভব হবে সে কারণে যশোর থেকে নিয়মিত যারা বিমান যাত্রী হতেন তাদের অনেকেই বাস ভ্রমন করতে আগ্রহী হবেন। খুলনা সাতক্ষীরা থেকে যশোর বিমান বন্দরে আসতে ২/৩ ঘন্টা সময় লাগে। আবার হযরত শাহাজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর থেকে ঢাকার কাঙ্খিত স্থানে যেতে আরো ১/২ ঘন্টা সময় লাগে। সে হিসেবে পদ্মা সেতু হয়ে গেলে প্রায় একই সময়ে রাজধানী ছোঁয়া সম্ভব হবে। কাজেই আকাশ পথের মতই এখন পদ্মা সেতু হয়ে বাসে গেলেও সড়ক পথেই যাত্রী সাধারণ বিমানের ছোঁয়া পাবেন বলে  আশা করছেন তিনি। এছাড়া বাস ট্রাকসহ বিভিন্ন ভার্সনের শ্রমিকরাও আরামদায়ক শ্রম দিতে পারবেন। অপেক্ষা যন্ত্রনা আর থাকবে না। সব মিলিয়ে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সাথে নিবিড় ও সহজ যোগাযোগ হয়ে গেলো রাজধানীর।
যশোর ইন্টার ডিস্ট্রিক বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক পবিত্র কাপুড়িয়া জানিয়েছেন,  নিঃসন্দেহে পদ্মা সেতু যশোর খুলনা সাতক্ষীরা অঞ্চলের পরিবহন সেক্টরকে গতিশীল ও লাভজনক করবে। সর্বোচ্চ যাত্রী সেবা নিশ্চিত করতে পারবে। ২৫ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে ঢাকার সাথে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে মানুষের বাধাহীন যোগসূত্রতা তৈরি হবে। ভাবা যায়, ফেরির জন্য ৫/৬ ঘন্টা অপেক্ষা। ট্রাক ভর্তি পন্যের ভয়াল অবস্থা, চিকিৎসার উদ্দেশ্যে যাওয়া মানুষের ঘাটেই মৃত্যু, পরীক্ষা দিতে যাওয়া প্রার্থীর পরীক্ষায় অংশ নিতে না পারা এসবতো এখন হরহাশেমার ঘটনা। কিন্তু ২৫ জুনের পরে এগুলোর আর অবতারনা হবে না। পদ্মা সেতু হয়ে বাস ট্রাক ও বিভিন্ন ভার্সনের গাড়ি আসা যাওয়া করলে দৌলতিদিয়া ঘাটে চাপ কমবে। যে কারণে আগে ফেরির জন্য অপেক্ষা করত গাড়ি। এখন থেকে গাড়ির জন্য অপেক্ষা করবে ফেরি।
তিনি আরও বলেন, দুরত্ব কমাতে বাসের তেল সাশ্রয় হবে সত্য, কিন্তু ফেরির ভাড়ার চেয়ে সেতুর টোল বেশি ধার্য্য হয়েছে। কাজেই ভাড়া কমানোর সম্ভাবনা নেই। তবে ভাড়া বাড়ানোও হচ্ছে না। এদিকে পদ্মা সেতু ইসুকে সামনে রেখে হঠাৎ করে ফেরি ভাড়া বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে কোচ প্রতি ৩শ’ টাকা। যাহোক এই পদ্মা সেতু সার্বিক অর্থে যাত্রী, পরিবহন মালিক ও শ্রমিক বান্ধব হবে।
এ ব্যাপারে যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আজিজুল আলম মিন্টু জানিয়েছেন, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তথা গোটা দেশবাসীর স্বপ্ন বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে। পদ্মা সেতু দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে ঢাকার দুরত্ব কমিয়ে দিয়েছে। এক্ষেত্রে যাত্রীদের জন্য সময় বাঁচবে। এছাড়া শ্রমিকরাও রিল্যাক্সডভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারবেন। ঘাটে দীর্ঘ সময় বসে থাকার যন্ত্রণা থাকবে না। ফেরিতে গাড়ির চাপ কমে যাওয়ায় দৌলতদিয়া হয়েও ঢাকা যাত্রা আরামদায়ক হবে। চলমান ভাড়া প্রতি কিলোমিটার টিকিট প্রতি  বাস ভাড়া (যাত্রী প্রতি) ১টাকা ৮০ পয়সা নির্ধারণ করা রয়েছে। তার সাথে ফেরি ভাড়া ও টোলযুক্ত রয়েছে। কিন্তু পদ্মা সেতুর কারণে পথ কিছুটা কমছে সত্য। তবে দৌলতদিয়া পথের ফেরি ভাড়া ও টোল যুক্ত করলেও পদ্মা সেতুর টোল তার চেয়ে অনেক বেশি। পথ কমে যাওয়া ও তেলসাশ্রয়ে যে টুকু আর্থিক সুবিধা আসবে সেতুর টোল বেশি হওয়ায় পরিবহন খরচ প্রায় সমান সমান হবে। যে কারণে ভাড়া কমানোর সিদ্ধান্তের কোনো তথ্য নেই আপাতত তার কাছে। ট্রিপ বাড়তে পারে। এখন দুইপথ দিয়ে যাত্রার সুযোগ হবে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের  সার্বিক পরিবহন সেক্টরে উন্নতি হবে। সব মিলিয়ে জয়তু পদ্মাসেতু।
যশোর মিনিবাস ও বাস মালিক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুসলিম উদ্দিন পাপ্পু জানিয়েছেন, পদ্মা সেতু যশোর বেনাপোল তথা দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চলের গণ মানুষের জন্য আশীর্বাদ স্বরপ বলা যেতে পারে। দুরপাল্লার যাত্রী যেমন চট্টগ্রাম সিলেট ময়মনসিংহ ঢাকার যাত্রীরা বেনাপোলে আসতে পারবে অল্প সময়ে। আবার বেনাপোল থেকেই যাত্রী যেতে পারবে একইভাবে। আর কম সময়ে আসায় ভারত যাত্রায়ও সুবিধা হবে। রাজধানীর সাথে বেনাপোল যশোরের যোগাযোগ আরো ভাল হবে। পরিবহন সংশ্লিষ্ট ব্যবসা বাণিজ্যে ঈর্ষণীয় উন্নয়ন সাধিত হতে যাচ্ছে । তিনি আরো জানান, বেনাপোল থেকে ঢাকার দূরত্ব আগে যা ছিল পদ্মা সেতু হয়ে বাস গেলে ১শ’ কিলোমিটার পথ কমে যাবে, সময় সাশ্রয় হবে। মালিকপক্ষ লাভবান হবে আশা করা হচ্ছে। যে কারণে ফেরির ভাড়া ১৮১০ টাকা থেকে পদ্মা সেতুর টোল ২৪০০ টাকা বেশি হলেও ভাড়া বাড়ানো হবে না। আগে দিনে এক ট্রিপ দেয়া হত, পদ্মাসেতু ব্যবহার করতে পারলে অতি সহজেই দিনে দুটি ট্রিপ চালানো সম্ভব হবে। এছাড়া আমাদের কেন্দ্রীয় মালিক ফেডারেশন থেকে ভাড়া বাড়ানো কমানোর ব্যাপারে কোনো তথ্য আসেনি।  কাজেই আগের ভাড়ায় পদ্মা পার হয়ে রাজধানী যাবে যাত্রীরা।
এদিকে বিআরটিএ পরিচালক সীতাংশু শেখর বিশ্ব জানিয়েছেন, পদ্মা সেতু ইস্যূতে দেশের ১৩ জেলার জন্য সরকারিভাবে ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে। গাড়ি ছাড়ার স্থান থেকে পদ্মা সেতু হয়ে ঢাকা সায়দাবাদ পর্যন্ত এই ভাড়ার আওতায় আসবে। ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর থেকে যে দিন থেকে পরিহবন চলাচল শুরু হবে সেদিন থেকেই ওই ভাড়া কার্যকর হবে। ওই ভাড়ার মধ্যে খুলনা ও সাতক্ষীরা ৬৩৩ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। সে হিসেবে যশোর থেকেও ভাড়া ওই ৬৩৩ টাকাই হবে সিট হিসেবে। সেতুর টোল ধরে আরামদায়ক যাত্রী সেবা নিশ্চিত করে ৫১ সিটের পরিবর্তে ৪০ সিট ধরে এই ভাড়া নির্ধারন করা হয়েছে বলেও তিনি জানিয়েছেন।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft