দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
শিরোনাম: হত্যা চেষ্টার অভিযোগে ছেলের বিরুদ্ধে মামলা       যশোরে ইয়াবসহ নারী মাদক ব্যবসায়ী আটক       ক্ষেমতা যট্টুক, তট্টুকই দেকানো ভালো!       আফগানিস্তানে আকস্মিক বন্যা       যশোরে স্বামীর বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা       খুলনার লোটাস এন্টারপ্রাইজ প্রীতি খাদ্য নিয়ন্ত্রকের, চরম অসন্তোষ       হয়রানির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন       চৌগাছায় বেশি দামে তেল বিক্রি করায় ২৫ হাজার টাকা জরিমানা        কেশবপুরে পল্লী চিকিৎসক সুব্রত হত্যা মামলায় একজনের যাবজ্জীবন        ‘দেশের অগ্রযাত্রায় অংশ নিয়ে ঋণ শোধ করতে হবে’      
যশোরাঞ্চলে ৬৮ অবৈধ রেলক্রসিং
ক্রমেই বাড়ছে ঝুঁকি ও জীবনহানি
শিমুল ভূইয়া :
Published : Friday, 5 August, 2022 at 12:30 AM, Count : 190
যশোরাঞ্চলে ৬৮ অবৈধ রেলক্রসিং যশোরাঞ্চলে ঝুঁকি নিয়ে ৭৮টি অরক্ষিত রেলক্রসিং দিয়ে চলাচল করছে হাজার হাজার মানুষ। এই ৭৮ টির মধ্যে ৬৮টির কোনো অনুমোদন নেই। স্থানীয় লোকজন তাদের মতো করে ট্রেন লাইনের ওপর দিয়ে পারাপারের রাস্তা বানিয়ে নিয়েছে। এছাড়া আরও ১০ টি গেটে নেই কোনো গেটম্যান। তবে, অরক্ষিত গেটের সংখ্যা আরও বেশি বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা। এসব অবৈধ রেলক্রসিং মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে।
অরক্ষিত গেট দিয়ে চলাচল করায় বিভিন্ন সময় প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে। এরপরও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে মানুষ। এসব রেলক্রসিংয়ে গেট নির্মাণ ও গেটম্যান নিয়োগের দাবি দীর্ঘদিনের হলেও সমস্যা সমাধানে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের কোনো উদ্যোগ নেই বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। তবে, রেল কর্তৃপক্ষ দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।
রেলওয়ে সূত্র জানায়, যশোর সাব ডিভিশনের আওতায় খুলনা থেকে যশোরের শানতলা ও  বেনাপোল পর্যন্ত ১১১ কিলোমিটার রেললাইন রয়েছে। এই রেললাইনে মোট লেবেল ক্রসিং গেট রয়েছে ১৫২টি। যার মধ্যে ৮৪টির বৈধতা দিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ। এরমধ্যে ১০টিতে  গেট ও গেটম্যান নেই। গেটম্যান না থাকা গেটগুলোর মধ্যে শিরোমনিতে একটি, বেজেরডাঙ্গায় একটি, সিঙ্গিয়া স্টেশনের পাশে একটি, রূপদিয়ায় তিনটি, রাজারহাটে একটি, পুলেরহাটে একটি, ঝিকরগাছায় একটি ও শার্শায় একটি রয়েছে। এছাড়া বাকি ৬৮টি গেটের কোনো বৈধতা নেই। এর মধ্যে যশোর শহরেই রয়েছে অন্তত ১০টি অরক্ষিত গেট। প্রতিনিয়ত বাড়ছে এ গেটের সংখ্যা।
রেলওয়ে সূত্র আরও জানায়, যশোরাঞ্চলে মোট গেটম্যান রয়েছেন ১৬৬জন। তারা পালাক্রমে দায়িত্ব পালন করেন।
অভিযোগ রয়েছে,অনেক প্রভাবশালী ব্যক্তি রেললাইনের ক্রসিং সংলগ্ন জমি অবৈধভাবে দখল করে বাড়িঘর, দোকানপাটসহ বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করেছেন। যে কারণে অনেক সময় পথচারী ও যানবাহন চালকদের ট্রেন চলাচল চোখে পড়ে না। এতে করে সমস্যার মধ্যে পড়তে হয়।
এ বিষয়ে যশোর রেলওয়ে সাবডিভিশনের সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী কাজী ওয়ালি উল হক জানান, লেবেল ক্রসিং গেট নিয়ে তারা সর্বদা সজাগ রয়েছেন। দিনরাত তারা গেটম্যানদের মনিটরিং করেন। তারপরও দিন দিন অবৈধ গেটের সংখ্যা বৃদ্ধির কারণে তাদেরকে বেগ পেতে হচ্ছে। অনুমোদনহীন গেট সম্পর্কে তিনি জানান,যেগুলো রয়েছে সেগুলো অনুমোদিত ও গেটম্যান থাকা গেটের  ১০০ থেকে ১৫০ ফুটের মধ্যেই রয়েছে। এছাড়া প্রতিটি লেবেল ক্রসিংয়ের আগেই তাদের প্রতীক দেয়া রয়েছে। ট্রেন চালকদের ওই প্রতীক দেখে হুইসেল বাজানোর নির্দেশনা রয়েছে। তিনি আরও বলেন, এ বিষয়ে সমাধানের জন্য তারা নতুন উদ্যোগ হাতে নিয়েছেন। যা শিগগির বাস্তবায়ন করা হবে।
অরক্ষিত গেটের কারণে ২০১৯ সালের ২১ নভেম্বর যশোর শহরতলির মুড়লি রেলক্রসিংয়ে  ট্রেনের ধাক্কায় এক ট্রাকচালক নিহত হন। ২০২০ সালের ১৭ অক্টোবর অভয়নগরে ট্রেনের সাথে প্রাইভেটকারের সংঘর্ষে দু’জন নিহত ও তিনজন গুরুতর আহতের ঘটনা ঘটে।
এ বিষয়ে খুলনা রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মোল্লা খবির হোসেন বলেন, অনুমোদনহীন লেভেল ক্রসিং নিয়ে তারা বিব্রত। দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ এটি। অবৈধ লেবেল ক্রসিং নিয়ে তারা সজাগ রয়েছেন বলে জানান। তিনি আরও জানান, গত দু’ বছরে খুলনা রেলওয়ে থানায় (যশোর থেকে কালীগঞ্জ ও বেনাপোল) ট্রেনে কেটে ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে ২০২১ সালে ২৬ ও ২০২২ সালে ১৬ জন রয়েছেন।
জাগ্রত নাগরিক কমিটি-জানাক যশোরের সভাপতি ও ডাক্তার আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজের অধ্যক্ষ জেএম ইকবাল হোসেন বলেন, দিন যতই যাচ্ছে ততই ভয়াবহ রূপ ধারণ করছে। যার অন্যতম কারণ রেলের কর্মী সংকট। এছাড়া, রেলের জায়গায় এলজিইডিসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নিজ প্রয়োজনে ক্রসিং তৈরি করেছে। ফলে, রেলের সাথে তাদেরও ভূমিকা রাখা জরুরি। একইসাথে রেললাইনের আশপাশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করা জরুরি বলে মনে করেন তিনি।
 


 




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft