সারাদেশ
শিরোনাম: আট বছর পর জট খুললো ভোটের        নতুন দাম কার্যকর হতে সময় লাগবে!       আগামীর সম্ভাবনা ফুটিয়ে তুললো কন্যা শিশুরা       যশোরে গ্যাসের দোকানে ভোক্তার তদারকি       অস্ত্রসহ আটক অনিক রিমান্ডে       কুষ্টিয়ায় হত্যা মামলায় একজনের ফাঁসি, দু’জনের যাবজ্জীবন       রূপসায় ট্রলারডুবি, নিখোঁজ মাহাতাবের মরদেহ উদ্ধার        ভবিষ্যতে সম্প্রীতির বন্ধন অটুট থাকবে: খাদ্যমন্ত্রী       জাতীয় কন্যা শিশু দিবস উপলক্ষে মধুখালীতে র‌্যালি ও আলোচনা সভা       কারাভোগ শেষে স্বদেশের পথে ১৩৫ ভারতীয় জেলে      
বাবার সামনে যুবলীগ কর্মীকে গলা কেটে হত্যা: অভিযুক্তের ছবি আ.লীগ নেতার সঙ্গে
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:
Published : Tuesday, 20 September, 2022 at 7:26 PM, Count : 211
বাবার সামনে যুবলীগ কর্মীকে গলা কেটে হত্যা: অভিযুক্তের ছবি আ.লীগ নেতার সঙ্গেচট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে শহিদুল ইসলাম আকাশ (৩০) নামে এক যুবলীগ কর্মীকে প্রকাশ্যে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।
সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় উপজেলার হিঙ্গুলী ইউনিয়নের চিনকির হাটে নিজের মালিকানাধীন ফার্নিচার দোকান থেকে বাইরে এনে প্রকাশ্যে বাবার সামনে কুপিয়ে এবং পরে গলা কেটে তাকে হত্যা করা হয় আকাশকে।
আকাশ উপজেলার হিঙ্গুলী ইউনিয়নের পূর্ব হিঙ্গুলী গ্রামের মিজি বাড়ির নুরুল ইসলামের ছেলে।
মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত পুলিশ এ ঘটনায় কাউকে আটক করতে পারেনি। পুলিশের দাবি এখনো নিহতের পরিবারের তরফ থেকে থানায় মামলা দায়ের হয়নি। ঘটনায় যুক্ত কয়েকজনের পরিচয় চিহ্নিত করতে পেরেছে পুলিশ।
মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) সরেজমিন আকাশের বাড়ি গেলে নিহতের মায়ের আহাজারি শোনা যায় দূর থেকে। উঠানে শামিয়ানা টানিয়ে জানাজায় আগতদের জন্য ছিল খাওয়ার আয়োজন।
তবে তখনো তাদের কেউই নিশ্চিত নন ময়নাতদন্ত শেষে কখন লাশ বাড়িতে আসবে।
নিহত আকাশের বাবা নুরুল ইসলাম ছেলে হত্যার ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বলেন, ‘ঘটনার ৫ মিনিট আগে আমার ছেলে (আকাশ) আমাকে দু শ টাকা দেয় বাড়ির খরচের জন্য। আমি টাকা নিয়ে রাস্তা পার হয়ে একটি চায়ের দোকানে চা খাচ্ছিলাম। তখন মাগরিবের নামাজ শেষ হয়েছে। হঠাৎ করে ছুরি, রাম দা নিয়ে এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী মামুন, ইকবাল, মোতালেব, মোখেশ, মিলন, রাজু ও আরিফসহ ১২ থেকে ১৪ জন মিলে আকাশকে দোকান থেকে টেনে বাইরে বের এনে প্রথমে কোপাতে থাকে। আমি নিজে বারবার আমার ছেলেকে বাঁচানোর চেষ্টা করেও পারিনি। শেষে খুনি মামুন আকাশকে মাটিতে শুইয়ে গলা কেটেদেয়।’   
নুরুল ইসলাম দাবি করেন, তার ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। খুনের ঘটনায় যারা প্রকাশ্যে যুক্ত ছিল তারা স্থানীয় হিঙ্গুলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও হিঙ্গুলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সোনা মিয়ার লোকজন।
আকাশকে খুন করার কারণ বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার ছেলের কারণে এলাকায় অনেকে চাঁদাবাজি ও মাদক ব্যবসা করতে পারছিল না। এ জন্য অর্থের বিনিময়ে এসব ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের দিয়ে আমার আকাশকে নির্মমভাবে খুন করা হয়েছে।’
আকাশের বাবা বলেন, মামুন আমার ছেলেকে জেলের ভেতরেও খুন করতে চেয়েছিল।
চিনকীর হাটের এক ব্যবসায়ী নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, সন্ত্রাসী মামুনের নেতৃত্বে এই হত্যা। নিহত আকাশ আর মামুন একই গ্রুপে ছিল। পরে নানা কারণে তাদের বনিবনা হয়নি। এরপর থেকে তাদের মধ্যে শত্রুতা তৈরি হয়। এর আগে ২০১৮ সালেও একবার মামুন তার দলবল নিয়ে আকাশের ওপর হামলা চালায়। তখনো মরতে মরতে আকাশ বেঁচে যায়।
তিনি বলেন, পাঁচ দিন আগে মামুন জেল থেকে জামিনে বের হয়। আসার পর থেকে পুরো ইসলামপুর গ্রামে চাঁদাবাজি শুরু করে। আকাশও জেলে ছিল। সে জামিনে আসে গত জুলাই মাসে।
ওই ব্যবসায়ী আরো জানান, এই হত্যার সঙ্গে ধনাঢ্য এক প্রবাসী জড়িত। পুলিশ ভালোভাবে তদন্ত করলে সব বেরিয়ে আসবে।
তিনি যখন এই প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলছিলেন তখন তাকে বেশ আতঙ্কিত দেখাচ্ছিল।
তবে অভিযুক্ত মামুনসহ অন্যদের সঙ্গে নিজের সখ্যর কথা অস্বীকার করে হিঙ্গুলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সোনা মিয়া বলেন, ‘আমি মেম্বার থেকে চেয়ারম্যান হয়ে গেছি। দলের সভাপতি হয়েছি। এসব অনেকের সহ্য হচ্ছে না। তাই আমার বিরুদ্ধে এসব অপপ্রচারের চেষ্টা করছে। যারা খুনের সঙ্গে যুক্ত তাদের কারো সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক নেই।’
সোমবার সন্ধ্যায় খুনের পর ১০ মামলার আসামি ও যুবলীগ কর্মী আকাশ খুনের নেতৃত্ব দেওয়া মামুন ও চেয়ারম্যান সোনা মিয়া ঘনিষ্ঠভাবে কেক কাটছেন এমন একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।
মামুনের সঙ্গে কেক কাটার বিশেষ মুহূর্তে এ ছবি সম্পর্কে ইউপি চেয়ারম্যান সোনা মিয়া বলেন, ‘ভাই কোন অনুষ্ঠানে আমি কেক কেটেছি তা আমার মনে নেই। তবে যদি আমি কেক কাটি আমার দৃষ্টি তো ছিল কেকের দিকে। পাশে দাঁড়াল তা আমার জানার কথা নয়।’
মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে আকাশের বাবা যখন এ প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলছিলেন তখন ঘরের বারান্দায় দাঁড়িয়ে অঝোরে বিলাপ করছিলেন মা হোসনে আরা বেগমসহ আত্মীয়-স্বজনরা।
এ সময় জানা গেল আকাশ পরিবারের একমাত্র ছেলে সন্তান, আকাশের দুটি বোন আছে। তাদের বিয়ে হয়ে গেছে। নিহত আকাশ বিয়ে করেছেন মাত্র ৩ বছর। স্ত্রী রাশেদা আক্তারের কোলজুড়ে আছে সুরাইয়া জান্নাত আনিকা নামের দেড় বছরের একটি কন্যা সন্তান।
মিরসরাইয়ের জোরারগঞ্জ থানার ওসি নূর হোসেন মামুন মঙ্গলবার বিকেল প্রায় সাড়ে ৪টায় জানান, ‘এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি। নিহতের পরিবারের তরফ থেকে এখনো থানায় মামলা দায়ের করেনি। তবে আমরা খুনের সঙ্গে যুক্ত কয়েকজনকে চিহ্নিত করতে পেরেছি। বাকিটুকু তাদের গ্রেপ্তারের পর বলব।’
নিহত আকাশের বাবার অভিযোগে মামুন নামের যে ব্যক্তির নাম উঠে এসেছে তার বিরুদ্ধে থানায় কোন মামলা রয়েছে কি না জানতে চাইলে ওসি বলেন, ‘যে মামুনের কথা বলছেন তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, ডাকাতি, নারী নির্যাতনসহ অন্তত ১০টি মামলার তথ্য আমাদের কাছে রয়েছে। তবে নিহত আকাশের বিরুদ্ধেও মারামারিসহ বহু মামলা রয়েছে।’




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


আরও খবর
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
সহযোগী সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০২৪৭৭৭৬২১৮২, ০২৪৭৭৭৬২১৮০, ০২৪৭৭৭৬২১৮১, ০২৪৭৭৭৬২১৮৩ বিজ্ঞাপন : ০২৪৭৭৭৬২১৮৪, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft