দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
শিরোনাম: যশোরে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ৪২ মামলা, ৪২ জনের জেল       করোনা নিভিয়ে দিল ফকির আলমগীরের জীবন প্রদীপ       হল না সিরিজ জয়, পরাজয়ের কারণ জানালেন মাহমুদউল্লাহ       যশোর পৌরপার্কের পুকুরে ক্যাডেট কলেজ পড়ুয়া এক ছাত্র নিখোঁজ        যশোর ঝিগরগাছায় স্বাস্থ্য বিভাগের অভিযান তিন প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা       ডুমুরিয়ায় পানিতে ডুবে 'ভাই-বোনের মৃত্যু       যশোরে জাসদ নেতার বোনের মৃত্যু : শোক       ডাক্তার এমদাদুল হক আর নেই, শোক        ১৮ হচ্ছে করোনা টিকা নেয়ার বয়সসীমা        যশোরে করোনায় আরও ৬ মৃত্যু, কমেছে পরীক্ষা ও শনাক্তের সংখ্যা       
শ্যামনগরে সাকিবের কাঁকড়া খামার বন্ধ
লীজের টাকা পাচ্ছেন না জমির মালিকরা
আকবর করীর, শ্যামনগর (সাতক্ষীরা)
Published : Monday, 14 June, 2021 at 9:14 PM, Update: 15.06.2021 11:40:56 AM, Count : 801
শ্যামনগরে সাকিবের কাঁকড়া খামার বন্ধসাতক্ষীরার শ্যামনগরে সাকিবের কাঁকড়ার খামার বন্ধ হয়ে গেছে। লীজের টাকা পাচ্ছেন না জমির মালিকরা।
সাতক্ষীরার উপকূলীয় শ্যামনগর উপজেলায় ৫ বছর আগে সাকিব আল হাসান অ্যাগ্রো ফার্ম লিমিটেড নামে একটি হ্যাচারি কাঁকড়া খামার গড়ে তোলেন জাতীয় দলের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। সম্প্রতি বিপাকে পড়েছেন সাকিবের সঙ্গে চুক্তিতে যাওয়া জমির মালিক ও ফার্মের সঙ্গে লেনদেন করা অন্য কাঁকড়া ব্যবসায়ীরা। গত বছর করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পর থেকে খামারটি বন্ধ থাকায় পাওনা টাকা বা জমি কোনোটাই ফেরত পাচ্ছেন না জমির মালিকরা।
২০১৬ সালের পয়লা জানুয়ারি শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের উপকূলীয় দাতিনাখালি এলাকায় ৪৮ বিঘা জমির ওপর কাঁকড়া প্রকল্পের জন্য পাঁচ বছর মেয়াদি চুক্তি করা হয়।
চুক্তি অনুযায়ী, স্থানীয় ১২ জন জমির মালিকের কাছ থেকে প্রতি বিঘা জমি ১২ হাজার টাকা হিসেবে ইজারা নেন ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানসহ তার দুই ব্যবসায়িক সহযোগী সাহাগীর হোসেন পাভেল ও ইমদাদুল হক। জমির চুক্তিনামার মেয়াদ শেষ হয়েছে ২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বর।
প্রকল্পে জমি ইজারাদানকারী আবদুল মজিদের ছেলে সাইফুল ইসলাম জানান, অনেক আগেই ক্রিকেটার সাকিবসহ তিন জনের সঙ্গে জমির চুক্তিপত্রের মেয়াদ শেষ হয়েছে। এছাড়া, এর আগে সাকিব আল হাসানের নামে সাইনবোর্ড থাকলেও বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটিতে সাকিবের নামের কোনো অস্তিত্ব নেই। পাশাপাশি, বর্তমানে খামারটি বন্ধ রয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
চুক্তির মেয়াদ ছয় মাস আগে শেষ হয়েছে। আমার বাবা প্রকল্পে সাড়ে পাঁচ বিঘা জমি দেন। বর্তমানে ১৯ হাজার টাকা বাকি থাকলেও তারা তা পরিশোধ করছেন না। মেয়াদ শেষ হলেও তারা নতুন করে চুক্তি করছেন না। এমনকি জমিও ফেরত দিচ্ছেন না, অভিযোগ জমির আরেক মালিক সাইফুল ইসলামের। সাকিবের প্রকল্পে ১৭ শতক জমি ইজারা দিয়েছিলেন সুরাত আলী গাজী। তিনি জানান, আমি এখনও ৬৫ হাজার টাকা পাব।
জমি ইজারা দেওয়া আরেক চুক্তিকারী আবুল বাসার বলেন, সাকিব একজন আন্তজার্তিক মানের ব্যক্তিত্ব। তাকে দেখেই আমরা জমিটা দিয়েছিলাম। এখন জমিও ফেরত পাচ্ছি না আবার টাকাও পাচ্ছি না। মৌখিকভাবে আমরা ঘটনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে জানিয়েছি। তিনিও কোনো সুরাহা করতে পারেননি।
ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান ও তার ব্যবসায়িক সহযোগীদের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ সকল জমির মালিকের।
বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ভবতোষ কুমার মন্ডলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, কাঁকড়া হ্যাচারি থেকে সাকিব আল হাসানের নামের সাইনবোর্ডটি খুলে ফেলা হয়েছে। গত এক বছর ধরে হ্যাচারিতে কোন কার্যক্রম নেই। জমির মালিকরা আমার কাছে অভিযোগ করলে সাকিবের দুই সহযোগী ইমদাদুল হক ও সাহাগীর হোসেন পাভেলের সঙ্গে যোগাযোগ করি। তারা দ্রুত সমস্যার সমাধান করতে চেয়েছেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রকল্পের আরেক অংশীদার ইমদাদুল হক বলেন, প্রকল্পটি এখন বন্ধ। সাকিব আল হাসান সকল বিষয়ে অবগত রয়েছেন। সমস্যার সমাধান তাড়াতাড়ি করা হবে।
অপর অংশীদার সাহাগীর হোসেন পাভেল বলেন, প্রকল্পটি চট্টগ্রামের একটি ব্যবসায়ী গোষ্ঠীকে ভাড়া দেওয়া হয়েছে। ফোনে যোগাযোগ করা হলে সাকিব আল হাসান বলেন, সরকারি প্রণোদনার অর্থ আসলেই জমির মালিকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। আমরা লোকসানের মুখে পড়েছি। মহামারির মধ্যে পাঁচ কোটি টাকার অর্ডার বাতিল করা হয়। সরকার থেকে প্রণোদনা হিসেবে ঋণ পেলে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকদের প্রাপ্য অর্থ পরিশোধ করব, বলেন সাকিব।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft