দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
শিরোনাম: কলাপাড়ায় কিছুতেই থামছে না আন্ধারমানিক নদীর দখল দৌরাত্ম       গাজীপুরে পুলিশ দম্পত্তিকে মারধোর       ব্যবসায়ীদের সুযোগ-সুবিধা আরো বাড়ানো দরকার : অর্থমন্ত্রী       আনারস ফলে রয়েছে অনেক গুণাগুণ       ‘বিএনপির মিথ্যাচারের থলের বিড়াল বেরিয়েছে’       পত্র-পত্রিকায় আমার বক্তব্য বিকৃত করে ছাপা হয়েছে : মির্জা আব্বাস       আন্তঃব্যাংক লেনদেন চালু       একদিনে রেকর্ড ১০২ মৃত্যু       রাজশাহীতে বের হবার করণ দেখাতে না পারলে ফিরতে হচ্ছে উল্টো পথে       বাঁশখালী বিদ্যুৎকেন্দ্রে নিহতের ঘটনায় দুই মামলা      
ইউনিকের আদলে প্রতারণা ফাঁদ পেতেছেন সাবেকরা
শিমুল ভূইয়া
Published : Thursday, 25 February, 2021 at 11:31 PM, Count : 227
ইউনিকের আদলে প্রতারণা ফাঁদ পেতেছেন সাবেকরাএবার প্রতারণামূলক কোম্পানি খুলে বসেছেন ইউনিক ফোর্স লিমিটেড থেকে বের হয়ে আসা কয়েকজন। ইউনিক ফোর্সে চাকরিকালীন অবহায় বেকারদের চাকরি দেয়ার নামে হাতিয়ে নেয়া টাকা আত্মসাৎ করে এসব ব্যক্তি নিজেরাই খুলে বসেছেন এক একটি প্রতিষ্ঠান। ইউনিকের মতো এখানেও চাকরি নামক ‘সোনার হরিণ’র মুলো ঝুলিয়ে বেকারদের ফাঁসানো হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। শহরের কয়েকটি এলাকায় এ ধরনের কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের খবর পাওয়া গেছে যাদের কর্মকর্তারা সবাই কোনো না কোনা সময় ইউনিক ফোর্স লিমিটেডের পিওন, রিক্রুটিং অফিসার, ফিল্ড অর্গানাইজারসহ বিভিন্ন পদে চাকরি করেছেন।
ইউনিক ফোর্স লিমিটেডের সাবেক পিওন পঞ্চম শ্রেণি পাশ মোহাম্মদ শিমুল নিউমার্কেট এলাকায় গড়ে তুলেছেন বীর বাংলা সিকিউরিটিগার্ড সার্ভিস। তিনি এর অন্যতম পরিচালক। নতুন এই প্রতিষ্ঠানের আরও কয়েকজন পরিচালক আব্দুল্লাহ আল মামুন, জাহিদ হাসান ও আশরাফ ছিলেন ইউনিকের ফিল্ড অর্গানাইজার, অ্যাকাউন্টস অফিসার লায়লা হক ছিলেন ইউনিকের রিক্রুটিং অফিসার। ফেইসবুকসহ বিভিন্ন সোস্যাল মাধ্যমে প্রচারণা চালিয়ে এখন তারা বেকারদের প্রলোভন দেখিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিতে সচেষ্ট হয়েছেন।
সাংবাদিক পরিচয় গোপন রেখে সরেজমিন বীর বাংলা সিকিউরিটিগার্ড সার্ভিসে চাকরির জন্য গেলে দেখা যায় তারা যেন চাকরির পসরা সাজিয়ে বসেছন। তাদের শর্ত অনুযায়ী এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে চাকরি নিতে হলে প্রথমে তিনশ’ টাকা দিয়ে আবেদন ফরম পূরণ করতে হয়। এরপরই চাকরি নিশ্চিত! পরে আরও কয়েকটি শর্তসাপেক্ষে হাতিয়ে নেয়া হয় সাত হাজার টাকা থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত।  
অ্যাকাউন্টস অফিসার লায়লা হক বলেন, তাদের হাতে যেসব চাকরি রয়েছে তারমধ্যে রেলের টিটির চাকরিটাই মর্যাদাপূর্ণ। সেক্ষেত্রে তাদের প্রথমে তিনশ’ টাকা দিয়ে ফরম পূরণ করতে হবে। এরপর প্রশিক্ষণ, পোষাক বাবদ আরও সাত হাজার টাকা দিতে হবে। সর্বশেষ সিকিউরিটি বাবদ দিতে হবে ৫০ হাজার টাকা।
এসময় কথা হয় মনিরুল ও আজিজুর নামের দু’জন চাকরি প্রত্যাশীর সাথে। তারা জানান, চাকরির জন্য টাকা দিয়ে তারা এখন দুশ্চিন্তায় আছেন।
স্থানীয়দের কাছ থেকে পাওয়া অভিযোগে জানা গেছে, নেতা পরিচয়ধারী মাহামুদুল নামের এক ব্যক্তির মাধ্যমে বীর বাংলা সিকিউরিটিগার্ড সার্ভিস নানাভাবে অর্থ হাতাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।
অনুসন্ধানে এ ধরনের প্রতারণামূলক আরও কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের নাম উঠে আসে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে শংকরপুর ছোটনের মোড়ের দেশ সেফটি ফোর্স প্রাইভেট লিমিটেড। রাশেদুল ইসলাম টিপু এর কথিত ম্যানেজিং ডাইরেক্টর। তিনি ছিলেন ইউনিকের শেয়ারহোল্ডার। অভিযোগ রয়েছে ইউনিক থেকে ২১ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন তিনি। শুধু তাই নয়, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরি দিয়েও ওই সব বেকারদের কাছ থেকে তিনি হাতিয়েছেন মোটা অংকের টাকা। এসব বিষয় নিয়ে যশোর আদালতে পৃথক দু’টি মামলা রয়েছে। যা তদন্তাধীন। এ প্রতিষ্ঠানের আরেক পরিচালক আশরাফুল ছিলেন ইউনিকের অ্যাডমিন অফিসার। ইউনিকের ঢাকার অ্যাডমিন শরিফুল ইসলাম যশোরের ফিল্ড অর্গানাইজার অর্জন, রিক্রুটিং অফিসার সৌরভ, মার্কেটিং অ্যাডমিন গফ্ফার হয়েছেন দেশ সেফটির শেয়ারহোল্ডার।
সাংবাদিক পরিচয় গোপন রেখে ফেব্রুয়ারির প্রথম দিকে দেশ সেফটি অফিসে যেয়ে একের পর এক চাকরি প্রত্যাশীদের ভীড় করতে দেখা যায়। এখানে আসা বেকারদের কাছ থেকে দুশ’ থেকে তিনশ’ টাকা করে ফরম পূরণের জন্য নেয়া হচ্ছে। আবার অনেককে পাওনা টাকা নিতে আসতেও দেখা যায়। সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে আশরাফুল নামের এক ব্যক্তি কর্মকর্তা পরিচয়ে বিভিন্ন ধরনের প্রলোভন দেখান।
অন্যদিকে, পালবাড়ি এলাকায় গড়ে উঠেছে ব্রাকেট (ইজঅকঊঞ) পাওয়ার সার্ভিস কোম্পানি লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান। এ প্রতিষ্ঠানের প্রধানের দায়িত্বে রয়েছেন মেহেদি সোরাব ও রিপন হোসেন। এদের মধ্যে রিপনের বাড়ি বাঘারপাড়ায়। তিনি নিজেকে নেতা পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন সুবিধা গ্রহণ করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। অথচ তারা দু’জনই কয়েকমাস আগে ইউনিক ফোর্সের অ্যাডমিন অফিসার হিসেবে কাজ করতেন। এছাড়াও ইউনিকের ফিল্ড অর্গানাইজার রবিউল ইসলাম, রিক্রুটিং অফিসার সাকিন ও সুইট আফরোজ হয়েছেন বিরাকেটের অংশীদার।
গত বুধবার সরেজমিনের ব্রাকেট এ যেয়ে মেহেদিকে বসে থাকতে দেখা যায়। এছাড়া অভ্যর্থনায় এক নারী বসে ছিলেন। সেখানে সেতু নামে আরও একজন ছিলেন যিনি নিজেকে যুবলীগের এক নেতার ভাই পরিচয় দেন।  
এসব বিষয়ে কথা হয় বীর বাংলা সিকিউরিটি সার্ভিস প্রাইভেট লিমিটেডের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর আব্দুল্লাহ আল মামুন, দেশ সেফটি ফোর্স প্রাইভেট লিমিটেডের ম্যানেজার আব্দুল গফ্ফার মোল্লা ও ব্রাকেট’র পরিচালক রিপন হোসেনের সাথে। তাদের দাবি ইউনিক ফোর্সে নানা ধরনের অনিয়ম ছিল। বেতন দিতনা। তাই তারা নিজেরাই প্রতিষ্ঠান খুলে ব্যবসা করছেন।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft