স্বাস্থ্যকথা
শিরোনাম: থেকেই যাচ্ছে ঝুঁকি       যশোরে ৯৯ ভাগ শিক্ষার্থীর টিকা গ্রহণ       রাষ্ট্রপতি পদক পেলেন পিবিআই যশোরের এসপি রেসমা       বেনাপোলে ৫ কেজি গাঁজাসহ ৩ মাদক কারবারী আটক        এক আসামির স্বীকারোক্তি, আরেকজন রিমান্ডে       যশোরের ফরিদপুরে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের দুই নারীকে জখম       ইছালীতে এমপি নাবিলের পক্ষে কম্বল বিতরণ       বাংলা একাডেমি পুরস্কার পাচ্ছেন হোসেনউদ্দীন হোসেন        অস্ত্র ও চোরাচালান মামলায় দু’জন রিমান্ডে        বাগেরহাটে করোনা সংক্রমণের হার ৫০ শতাংশ      
ওষুধ মিলছে না যশোর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে
খালি হাতে ফিরতে হচ্ছে খরচ করে আসা রোগীদের
কাগজ সংবাদ
Published : Sunday, 5 December, 2021 at 8:14 PM, Update: 05.12.2021 9:36:02 PM, Count : 233
খালি হাতে ফিরতে হচ্ছে খরচ করে আসা রোগীদেরযশোর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্রে ওষুধ নেই! ওষুধ না পেয়ে দীর্ঘদিন ধরে ফিরে যাচ্ছেন দূর-দূরান্ত থেকে আসা অসুস্থ মানুষ। কর্তৃপক্ষ বলছে, ওষুধের যোগান কম থাকায় রোগীরা ফিরে যাচ্ছেন। ওষুধ না দিতে পারলেও অন্যান্য সেবা প্রদান অব্যাহত রয়েছে বলে দাবি সংশ্লিষ্টদের। তবে, গত সপ্তাহে ওষুধ সরবরাহ করা হয়েছে বলে সিভিল সার্জন অফিস থেকে জানানো হয়েছে।
যশোর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায় অনেকেই তাদের সেবা কার্ড নিয়ে খালি হাতে ফিরে যাচ্ছেন। তারা বলছেন, ওষুধ নিতে এসে বারবার ফিরে  যেতে হচ্ছে তাদের। এখান থেকে ডায়াবেটিস, শ্বাসকষ্ট ও হাইপ্রেসারের কিছু ওষুধ দেয়া হলেও দীর্ঘদিন ধরে তা এখানে মিলছে না। ফলে, দূর-দূরান্ত থেকে টাকা খরচ আসা নিম্ন আয়ের মানুষকে অহেতুক হয়রানি হতে হচ্ছে। অভিযোগ রয়েছে, আগস্ট মাসের পর থেকে বাইরের লোকজন ওষুধ না পেলেও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আত্মীয় স্বজনরা ঠিকই পেয়েছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্রে ওষুধ মিলছে না। প্রতিদিনই সেবা গ্রহীতারা ফিরে যাচ্ছেন খালি হাতে।
যশোর সদর উপজেলার পুলেরহাট থেকে এসেছিলেন নূরজাহান। মধ্য বয়সী এই নারীর সাথে থাকা স্বাস্থ্য কার্ডটি চেক করে দেখা যায় ২০২১ সালের আগস্ট মাসে সর্বশেষ তিনি ওষুধ পেয়েছেন। তিনি মূলত ডায়াবেটিস, শ্বাসকষ্ট ও হাইপ্রেসারের ওষুধ নিয়ে থাকেন। ছয় থেকে সাত কিলোমিটার দূর থেকে প্রতি মাসে দু’তিন বার আসেন তিনি। অথচ অধিকাংশ দিনই ফিরে যেতে হচ্ছে তাকে।
একই কথা বলেন পারভিনা আক্তার নামে আরেকজন নারী। তিনি বলেন, হামিদপুর থেকে প্রায়ই এ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে আসেন। কিন্তু তিনি ওষুধ না পেয়ে হতাশ হয়ে ফিরে যান। তিনি ক্ষোভের সাথে বারবার বলতে থাকেন বাড়ির সাংসারিক কাজ ফেলে আসেন আর ফিরে যান।
এ ব্যাপারে সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মীর আবু মাউদ বলেন, ওষুধের ঘাড়তি একটু রয়েছে। কারণ চাহিদা অনুযায়ী ওষুধ সাপ্লাই নেই। চাহিদা দিয়ে আবেদন করা হয়েছে। খুব শিগগির ওষুধ পাওয়া যাবে। তিনি আরও জানান, ঝুমঝুমপুরের আহাদ ডায়াবেটিক হাসপাতাল থেকে যে ওষুধগুলোর নাম লেখা হয় তার দাম অনেক বেশি। যার কারণে এগুলো এখানে পাওয়া বেশ কষ্টকর হয়ে যায়। তাছাড়া যশোরের এ কেন্দ্রে ওষুধ দেয়ার সিস্টেমটা সেই চালু করেছেন বলে উল্লেখ করেন তিনি।
সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহীন বলেছেন, চাহিদা অনুযায়ী অনেক সময় ওষুধ সাপ্লাই দেয়া কঠিন হয়ে পড়ে। কারণ সব উপজেলার চাহিদা অনুযায়ী ওষুধ পাঠাতে হয়। তিনি বলেন, গত সপ্তাহেই সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্রে ওষুধ সাপ্লাই দেয়া হয়েছে।     




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft