সারাদেশ
শিরোনাম: যশোরের ৪ অফিসার পুরস্কৃত       ট্রেনের ভাড়াও বাড়ানো হতে পারে : রেলমন্ত্রী       গম-ভুট্টা চাষিরা কম সুদে পাবেন ১ হাজার কোটি টাকার ঋণ       ৩৮ দিন পর করোনায় মৃত্যু শূন্য দিনে দেখলো দেশ       আমদানি পণ্যের ট্রাকে মিলল ফেনসিডিল-ওষুধ        শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার পথে গাছে ধাক্কা খেয়ে বাইকার নিহত       মাছে রং মেশানোর অপরাধে ২ ব্যবসায়ীকে জরিমানা       বাংলাদেশকে জিডিআইতে যুক্ত হতে প্রস্তাব দিয়েছে চীন       তাজিয়া মিছিলে বর্শা-বল্লম-তরবারি নয়, আতশবাজি নিষিদ্ধ       হজে গিয়ে ভিক্ষাবৃত্তি করা সেই মতিয়ারের জামিন      
দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে পেঁয়াজ ও রসুনের দাম কমায় লোকসানে পড়েছেন ব্যবসায়িরা
প্লাবন শুভ, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:
Published : Saturday, 6 August, 2022 at 7:09 PM, Count : 56
দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে পেঁয়াজ ও রসুনের দাম কমায় লোকসানে পড়েছেন ব্যবসায়িরাদিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে পেঁয়াজ ও রসুনের দাম কেজিতে কমেছে ১০ থেকে ১৫ টাকা। এতে ক্রেতারা স্বস্তি প্রকাশ করলেও আর্থিক লোকসানে পড়েছেন পাইকারি ব্যবসায়িরা।
শনিবার ফুলবাড়ী পৌর বাজারের পাইকারি ও খুচরা সবজি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, পাইকারি বাজারে প্রতিকেজি রসুন প্রকারভেদে বিক্রি হচ্ছে ৪৮ থেকে ৫০ টাকা দরে। যা গত এক সপ্তাহে আগে প্রকারভেদে বিক্রি হয়েছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকা কেজিদরে।
একইভাবে ভারতীয় আমদানিকৃত পেঁয়াজ প্রকার ভেদে পারকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১৬ থেকে ১৮ টাকা কেজিদরে। যা এক সপ্তাহ আগে বিক্রি হয়েছে প্রকারভেদে ২২ থেকে ২৫ টাকা কেজিদরে। তবে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে আগে ৩২ থেকে ৩৫ টাকা কেজিদরে বিক্রি হলেও বর্তমানে সেটি বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৩৮ থেকে ৪০ টাকা কেজিদরে। এক্ষেত্রে খুচরা বাজারে আমদানিকৃত এবং দেশি পেঁয়াজ প্রকার ভেদে পাইকারি দাম থেকে প্রতিকেজিতে ২/৩ টাকা বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে।
পৌর এলাকার সবজি বাজারে বাজার করতে আসা এনজিও কর্মী আব্দুর রহমান বলেন, বর্তমানে পেঁয়াজ ও রসুনের দাম কমে আসায় নিম্ন ও মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোর জন্য স্বস্তির বিষয় হয়। আবার একই সময়ে কাঁচা ও শুকনা মরিচের দাম বেড়ে যাওয়ায় একই পরিবারগুলোর জন্য অস্বস্তির খবর হয়। দাম বেড়ে যাওয়ার কারণে অনেক পরিবার চাহিদানুযায়ী মরিচ যেমন কিনতে পারছেন না, তেমনি দাম কমে আসায় একই পরিবারগুলো পেঁয়াজ ও রসুন চাহিদানুযায়ী কিনছেন।
খুচরা পেঁয়াজ ও রসুন বিক্রেতা গোলাম মোস্তফা বলেন, দাম কমে আসায় পেঁয়াজ ও রসুনের বেচাবিক্রি বেড়েছে। কয়দিন আগেও রসুন ও পেঁয়াজ মানুষ হিসেব করে এক কেজির স্থানে ২৫০ গ্রাম কিনলেও দাম কমে যাওয়ায় এখন প্রয়োজন মাফিক কিনছেন।
পাইকারি রসুন ও পেঁয়াজ বিক্রেতা অজয় দত্ত ও রাজু আহম্মেদ বলেন, ভারতীয় রসুন ও পেঁয়াজের আমদানি চাহিদানুযায়ী হওয়ায় স্থানীয় বাজারগুলোতে রসুন ও পেঁয়াজের দাম কমে এসেছে। গত এক সপ্তাহ আগের ক্রয় করা রসুন ও পেঁয়াজ বর্তমানে কমে যাওয়া দামে বিক্রি করতে গিয়ে ব্যবসায়িরা আর্থিক লোকসানের মুখে পড়েছেন। তবে দেশি রসুন ও পেঁয়াজের দাম একটু বাড়তি রয়েছে। ভারতীয় পেঁয়াজ ও রসুন আমদানি স্বাভাবিক থাকলে বাজার সকল শ্রেণির মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে থাকবে। 




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft